চট্টগ্রাম শনিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২২

সর্বশেষ:

২৭ জুলাই, ২০২২ | ১০:৫৪ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

ইউরিক এসিডের মাত্রা যেভাবে কমাবেন

রক্তে ইউরিক এসিডের মাত্রা বেড়ে গেলে তাকে হাইপারইউরিসেমিয়া বলা হয়। পায়ের আঙুলে ব্যথা, গোড়ালিতে কিংবা গেঁটে বাতসহ নানা অস্থিসন্ধি ফুলে গিয়ে তীব্র যন্ত্রণা- এই সব শারীরিক অসুবিধার নেপথ্যে থাকে ইউরিক এসিড। তবে শরীরের গিরায় গিরায় ব্যথা, সারা শরীর ব্যথা বা কামড়ানো ইত্যাদি কিন্তু ইউরিক এসিড বাড়ার লক্ষণ নয়।

ইউরিক এসিড হওয়া মানেই অনেক ধরনের খাবার খাওয়ার ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ তৈরি হয়ে যায়। পালংশাক, টমেটো, মসুর ডাল, খেসারির ডাল, খাসির মাংস, টমেটো কেচআপ, ঠাণ্ডা পানীয়, চকলেট, চিপস, বিস্কুট ও প্রক্রিয়াজাত খাবার খাওয়া একেবারেই চলবে না। এইগুলো খাওয়ার অভ্যেস থাকলে এখন থেকেই সতর্ক হোন। তবে এমন কিছু খাবার আছে যা প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখতে পারলে এই রোগকে জব্দ করা যেতে পারে।

গ্রিন টি: শরীরে ইউরিক এসিডের মাত্রা বাড়লে সাধারণ চায়ের পরিবর্তে গ্রিন টি খেতে পারেন। এই চায়ে ক্যাটেচিন নামক যৌগ থাকে যা ইউরিক এসিডের মাত্রা কমাতে সাহায়্য করে।

ফাইবারজাতীয় খাবার: ডায়েটে ফাইবারযুক্ত খাবার রাখলে এই রোগের প্রকোপ কমবে। এই রোগ শরীরে বাসা বাঁধলে খাদ্যতালিকায় ওটস, গোটা শস্য, ব্রকলি, কুমড়ার মতো সবজি রাখার পরামর্শ দেন পুষ্টিবিদরা। ফাইবার রক্তের ইউরিক এসিড শোষণ করে শরীর থেকে বের করে দিতে সাহায্য করে।

ভিটামিন সি যুক্ত খাবার: বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গিয়েছে ভিটামিন সি রক্তে ইউরিক এসিডের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। লেবু, কমলা, কাঁচা মরিচ ডায়েটে বেশি পরিমাণে রাখলে উপকার পাবেন।

ডার্ক চকলেট: এই প্রকার চকলেটে থেওব্রোমাইন থাকে। এই যৌগ রক্তে ইউরিক এসিডের মাত্রা হ্রাস করে। চকলেট খেলেই শরীরের ক্ষতি হয়, এমনটা কিন্তু নয়।

 

পূর্বকোণ/সাফা/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট