চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট, ২০২২

সর্বশেষ:

৪ জুলাই, ২০২২ | ১০:৫৫ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

গরমে শিশুর খাবার যেমন হবে

খুব গরমে সাধারণত শিশুরা কিছু খেতে চায় না। এ নিয়ে মা-বাবাও চিন্তিত হয়ে পড়েন। খাবারের মাধ্যমে গরমে বেশি অসুখ বিসুখ ছড়ায়। তাই শিশুদের খাবারের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সাবধান থাকতে হবে। খাবারে মশা-মাছি বসা, খাবার ঢেকে না রাখা, কোন খাবার এই সময় খাওয়া উপকারী- এসব দিকে বাড়তি খেয়াল রাখা জরুরি।

খাবারে অতিরিক্ত তেল-মসলা নয়: শিশুদের খাবার তৈরির সময় অতিরিক্ত তেল, ঘি, মসলা, মাখন, মেয়নেজ পরিহার করতে হবে। অতিরিক্ত মসলা ও তেল সমৃদ্ধ খাবার শিশুর পেটের পীড়ার কারণ হতে পারে।

বয়স বুঝে খাবার: শিশুর দ্রুত বৃদ্ধির আশায় সব সময় তার পেছনে খাবারের বাটি হাতে ছুটে বেড়াবেন না। একেক বয়সী শিশুদের পাকস্থলীর ধারণক্ষমতা একেক রকম। তাই অতিরিক্ত খাবার শিশুর উপকারের চেয়ে অপকার বয়ে আনতে পারে। এ জন্য শিশুর বয়স বুঝে তাকে খাবার খাওয়াতে হবে। জন্মের পর থেকে পাঁচ বছর পর্যন্ত শিশুকাল ধরা হয়। এই সময় বয়সের অনুপাতে শিশুর খাবারে মাছ, মাংস, দুধ, ডিম ও ডাল রাখতে হবে। শিশুর বয়স এক বছর হলে এক হাজার ক্যালরি, দুই বছর হলে এক হাজার ১০০ ক্যালরি এবং তিন বছর হলে এক হাজার ২০০ ক্যালরিযুক্ত খাবারই তার জন্য যথেষ্ট।

তরলের জুড়ি নেই: গরমে শুষ্ক আবহাওয়া শরীর থেকে আর্দ্রতা টেনে নেয়। শিশুদের ত্বক বেশি পাতলা বলে তাদের কষ্ট আরো বেশি। এ জন্য গরমে শিশুদের বেশি বেশি তরল খাবার খাওয়াতে হবে। বিশুদ্ধ পানির পাশাপাশি পানিজাতীয় ফল, ফলের রস খাওয়ানো যেতে পারে।

তবে ফলের রস সরাসরি পান না করিয়ে পানি মিশিয়ে নেওয়া ভালো। অর্ধেক ফলের রসে সমপরিমাণ পানি মিশিয়ে খাওয়াতে পারেন। এ ছাড়া লেবুর রস মিশ্রিত পানিও খাওয়ানো যেতে পারে।

খাবারের পুষ্টিমান: বেশি খাবার খাওয়ানোর চেয়ে পুষ্টিমানসমৃদ্ধ অল্প খাবারও শিশুর জন্য অধিক উপকারী। গরমে শিশুর জন্য টাটকা খাবারকে প্রাধান্য দিতে হবে। টাটকা খাবার শিশুদের নানা রোগে পড়ার ঝুঁকি থেকে রক্ষা করবে। খাবারটি যেন হালকা হয় সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।

 

পূর্বকোণ/সাফা/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট