চট্টগ্রাম বুধবার, ০৪ আগস্ট, ২০২১

সর্বশেষ:

২৩ জুন, ২০২১ | ৯:০৪ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

হলুদ ছত্রাক সবচেয়ে আধুনিক ও সর্বাপেক্ষা প্রাণঘাতী

মহামারী করোনাভাইরাসের মধ্যেই উদ্বেগের জন্ম দিয়েছে ফাঙ্গাস/ছত্রাক। কালো এবং সাদা ফাঙ্গাসের সঙ্গে সম্প্রতি আরও একটি নাম আমোদের আতঙ্কিত করে তুলছে এটি হলো হলুদ ফাঙ্গাস। ভারতে বিরল ছত্রাকজনিত এ রোগটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানার আগে কালো ও সাদা ছত্রাক সম্বন্ধে সংক্ষিপ্ত জেনে নিই :

কালো ফাঙ্গাস/ছত্রাক : ভারতে এ পর্যন্ত প্রায় ১০ হাজারেরও বেশি কালো ছত্রাকে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এটি নাক, মুখ, চোখের কক্ষপথ-মস্তিষ্ক এবং ফুসফুস আক্রমণ করতে পারে। কোভিড আক্রান্ত ব্যক্তি, ডায়াবেটিস এবং দীর্ঘমেয়াদি স্টেরয়েড চিকিৎসাধীন রোগীদের ক্ষেত্রে এটি সংক্রমণের বেশি ঝুঁকি রয়েছে। এটি দেহের রক্তনালির ভিতর প্রবেশ করে, কোষ আক্রমণ করে তাই চিকিৎসা নিতে বিলম্ব হলে এটি রোগীর জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক হতে পারে।

সাদা ছত্রাক : ভারতে কালো ছত্রাকের তুলনায় সাদা ছত্রাক সংক্রমণের হার অনেক কম। এর লক্ষণগুলোর সঙ্গে কোভিডের লক্ষণগুলোর অনেক সাদৃশ্য আছে। যেমন শ্বাসকষ্ট, বুকে ব্যথা, কাশি, মাথাব্যথা ইত্যাদি। এক্ষেত্রে ডায়াবেটিস কিংবা ক্যান্সারে আক্রান্ত ব্যক্তি এবং দীর্ঘ সময় ধরে স্টেরয়েড ব্যবহার করা ব্যক্তিদের বেশি ঝুঁকি আছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

হলুদ ছত্রাক : হলুদ ছত্রাকের মেডিকেল নাম ‘মিউকর সেপটিকাস’। আাগে এটি সরীসৃপ জাতীয় প্রাণির দেহে সংক্রমণ ঘটাত। অন্যান্য ছত্রাকের মতো এটিও দূষিত পরিবেশে বিস্তার লাভ করে। সন্দিহান রোগীদের ক্ষেত্রে দূষিত বাতাস থেকে মিউকর মোল্ড গ্রহণের মাধ্যমে এটি তাদের দেহে প্রবেশ করতে পারে। সংক্রমণ ছড়ানোর ক্ষেত্রে এটি অন্যান্য ছত্রাক থেকে ব্যতিক্রমধর্মী। কালো ছত্রাকের আক্রমণে দেহের পরিবর্তন শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হলুদ ছত্রাক দেহের অভ্যন্তরীণ অঙ্গসমূহে আক্রমণ শুরু করে। দেহের গুরুত্বপূর্ণ শারীরিক প্রক্রিয়াগুলোর ব্যাঘাত ঘটিয়ে ফেলে এবং বিভিন্ন লক্ষণ প্রকাশ পায়। শুরুতে হজমে ব্যাঘাত, ক্ষুধামন্দা ও অস্বাভাবিক ওজন হ্রাস প্রকাশ পেলেও গুরুতর অবস্থায় চোখ কোটরে ঢুকে যায়। শক্তি হ্রাস ও অলসতা দেখা দেয়, ক্ষত থেকে পুঁজ নিঃসরণ ও বিলম্বে আরও গুরুতর অবস্থায় কোষের মৃত্যু  ঘটে। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া 

পূর্বকোণ/মামুন/পারভেজ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 181 People

সম্পর্কিত পোস্ট