চট্টগ্রাম বুধবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২১

সর্বশেষ:

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ | ১:৫৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক 

বিটরুট: মস্তিষ্ক সচল ও কোষ সুরক্ষিত করে

নানান রোগের উপশম বিটরুট। বিটরুট যদিও বাংলাদেশি সবজি নয়, তবু বাংলাদেশের বাজারে সবজির দোকানে সারা বছরই পাওয়া যায় বিটরুট। প্রাচীন সময় থেকেই বিটের বিশেষ কদর রয়েছে। গ্রিক ও রোমানরা বিভিন্ন রোগের হাত থেকে নিস্তার পেতে নিয়ম করে বিট খেতেন। বিটরুট রক্ত স্বল্পতা ও আয়রনের ঘাটতি মেটায়। এতে রয়েছে অতিমাত্রায় নাইট্রেটস। যা মুখে থাকা ব্যাক্টেরিয়ার সংস্পর্শে এসে এই নাইট্রেট মস্তিষ্কের রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে তোলে।

শরীরের ঋতুচক্রের যেকোনো সমস্যা হলে বিটরুটের এল গ্লাস জুস খেলে স্বস্তি পাওয়া যায়। বিটে থাকা আয়রণ নতুন লোহিত রক্তকণিকা গঠনে সাহায্য করে। বিটের এন্টি অক্সিডেন্ট ফ্রি রেডিক্যাল ক্ষতিকারক দিক থেকে মানব শরীরকে বাঁচায়। ফলে এই সবজি নিয়মিত খেলে বিভিন্ন রোগের হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। বিটের মধ্যে রয়েছে এন্টি-টিউমার গুণ।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে- ক্ষতিগ্রস্ত কোষের হাত থেকে সুস্থ কোষগুলোকে বাঁচায় বিটরুট। ডায়াবেটিস ও কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রণে রাখে এ ফল। বিট খাওয়ার ফলে ব্রেনে রক্ত চলাচল বেড়ে যায়। যারা নিয়মিত বিট খায় তাদের চিন্তা-ভাবনা করার ক্ষমতা অন্যদের তুলনায় অনেকটাই বেশি। যাঁদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা রয়েছে, তাদের উচিত বেশি করে বিটের জুস খাওয়া। বিপাকের সমস্যা দূর করে হজমশক্তি বাড়াতেও সাহায্য করে বিটরুট। বিটে ট্রিপ্টোফান ও বিটেইন নামে যে উপাদান থাকে তা ডিপ্রেশন কাটাতে ভালো কাজ করে।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 564 People

সম্পর্কিত পোস্ট