চট্টগ্রাম সোমবার, ০১ মার্চ, ২০২১

সর্বশেষ:

৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ | ৫:৩৮ অপরাহ্ণ

পূর্বকোণ ডেস্ক

প্রথম ডোজ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে উজ্জীবিত করে, দ্বিতীয় ডোজ বুস্টারের মতো কাজ করে

ভ্যাকসিন : জিজ্ঞাসার জবাব

করোনাভাইরাস মহামারীর ক্রান্তিকাল বুঝি শেষ হতে চলেছে। একের পর এক সুখবর আসছে। বহুল প্রতীক্ষিত করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন আবিষ্কারের পর তার ব্যবহারও শুরু হয়েছে।

আমাদের দেশেও গত ২৭ জানুয়ারি থেকে এই ভ্যাকসিনেশন শুরু হয়েছে। এ সময়ে জনমনে তৈরি হয়েছে অনেক প্রশ্ন। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন ও আরো ক’টি প্রতিষ্ঠান সে সব প্রশ্ন ও উত্তর নিয়ে বিশেষ বিশেষ নিবন্ধ লিখেছে। সেখান থেকে উল্লেখযোগ্য প্রশ্ন ও উত্তর নিয়ে পূর্বকোণের এ আয়োজন।

১. বৃদ্ধ, গর্ভবতী বা চিকিৎসাগতভাবে দুর্বলদের কী হবে? অর্থাৎ কারা এই ভ্যাকসিন নিতে পারবেন না?
যাদের বয়স ১৮ বছরের নিচে, গর্ভবতী নারী, যাদের এলার্জির সমস্যা আছে, বেশি বয়স্ক মুমূর্ষু রোগী এবং যাদের শারীরিক প্রতিরোধ ক্ষমতা কম (যেমন ক্যান্সারের রোগী যারা কেমোথেরাপি বা রেডিও থেরাপি নিচ্ছেন) তারাও টিকা নিতে পারবেন না। তবে গর্ভবতী মহিলা যাদের পেশাগত বা অন্য কোনো কারণে সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছেন, তারা চাইলে টিকা নিতে পারবেন।

মডার্নার ট্রায়ালে অংশ নেওয়া ৩০ হাজার স্বেচ্ছাসেবীর মধ্যে ৭ হাজারেরও বেশি আমেরিকান যারা ৬৫ বছরের বেশি বয়সের ছিল। ৫ হাজারেরও বেশি আমেরিকান যাদের বয়স ৬৫ বছরের কম কিন্তু যাদের উচ্চ ঝুঁকির দীর্ঘস্থায়ী রোগ, গুরুতর কোভিড -১৯, ডায়াবেটিস, স্থূলতা এবং হৃদরোগ ছিল। গবেষণায় বর্ণ ও সম্প্রদায়ের ১১,০০০ এরও বেশি অংশগ্রহণকারীও অন্তর্ভুক্ত ছিল। যার মধ্যে ৬ হাজারেরও বেশি হিস্পানিক বা ল্যাটিন হিসাবে চিহ্নিত করেন এবং ৩,০০০ এর বেশি অংশগ্রহণকারী ছিল ব্ল্যাক বা আফ্রিকান আমেরিকান।

মডার্না বলছে, তারা ফলাফলের মধ্যে কোনও পার্থক্য পায়নি। যেহেতু গর্ভবতী মহিলাদের বিষয়ে কোভিড -১৯ ভ্যাকসিনের সুরক্ষা সম্পর্কিত এখনও পর্যাপ্ত তথ্য নেই, তাই তাদের জন্য এই ভ্যাকসিনটি এখনও অনুমোদিত নয়।

এফডিএ’র জীববিজ্ঞান বিষয়ক মূল্যায়ন ও গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক ডা. পিটার মার্কস বলছিলেন, ‘গর্ভবতী মহিলার ক্ষেত্রে কোভিড -১৯ রি-একশন পরীক্ষিত নয় বিধায় এটি এই মুহূর্তে আমরা তাদের জন্য সুপারিশ করছি না।’

ফাইজার ক্লিনিকাল ট্রায়ালগুলি সক্রিয়ভাবে কোনো গর্ভবতী মহিলাকে তালিকাভুক্ত করেনি, তবে ২৩ জন স্বেচ্ছাসেবক পরীক্ষাকালীন সময়ে গর্ভবতী হয়েছিলেন। কিন্তু তাদের ক্ষেত্রে কোনও বিরূপ প্রতিক্রিয়ার দেখা মেলেনি। ফাইজার-বায়োএনটেক এ মহিলাদের পর্যবেক্ষণে রেখেছিল।

পর্যবেক্ষণ তথ্যানুসারে, এ গর্ভবতী মহিলাদের ঝুঁকি কম বলে বিবেচিত হয়েছে। যেহেতু এমআরএনএ ভ্যাকসিনগুলিতে কোনও লাইভ ভাইরাস নেই, তাই এগুলি শরীরে জিনগত পরিবর্তন করতে পারে না। তাই আমেরিকান কলেজ অব অবস্টেট্রিশিয়ানস এন্ড গাইনোকোলজিস্টস (এসিওজি) সুপারিশ করেছিল যে ভ্যাকসিনগুলি থেকে গর্ভবতীদের বিরত রাখা উচিত নয়, বিশেষ করে যারা টিকা দেওয়ার মানদ- পূরণ করে। ক্লিনিকাল ট্রায়ালটিতে দুধ পান করানো মহিলাদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি, তবে এমআরএনএ ভ্যাকসিনগুলি বুকের দুধ খাওয়ানো শিশুদের পক্ষে ঝুঁকি বলে মনে করা হচ্ছে না। তাই এসিওজি ওই মহিলাদেরও ভ্যাকসিন পাওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছে।

অন্তর্নিহিত চিকিৎসা শর্তযুক্ত ব্যক্তিরা কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন পেতে পারেন। ফাইজার ভ্যাকসিনের শেষ পর্যায়ের ক্লিনিকাল ট্রায়ালগুলি সুস্থ মানুষদের মতোই অন্তর্নিহিত শর্তযুক্ত লোকদের ক্ষেত্রেও একই রকম ফলাফল দেখিয়েছিল। সংস্থাটির মতে, বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্করাও ক্লিনিকাল ট্রায়ালগুলিতে টিকা দেওয়ার পরে কম এবং হালকা প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন।

২. ভ্যাকসিনগুলি কি বাধ্যতামূলক হবে? আমি যদি টিকা না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিই তবে কী হবে?
কিছু লোক ভ্যাকসিন নেয়াকে তাদের দেশপ্রেমিক দায়িত্ব হিসাবেই হয়তো দেখবেন, তবে অন্যরা তা নাও করতে পারেন। যুক্তরাজ্য বলেছে যে, সেদেশে ভ্যাকসিন নেয়া বাধ্যতামূলক হবে না। ফাউসিও বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রে ভ্যাকসিন নেয়া বাধ্যতামূলক হবে না।

যদি আপনি কোনও টিকা দেওয়ার বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত নেন, তবে সেটা হবে একান্তই আপনার নিজের ব্যাপার। তবে আপনাকে মনে রাখতে হবে এটা কোভিড -১৯ এর বিরুদ্ধে আপনাকে সুরক্ষা দেবার পাশাপাশি আপনার থেকে আক্রান্ত হবার ঝুঁকিতে রয়েছে অমন ব্যক্তিদেরও সুরক্ষা দেয়।

লন্ডন স্কুল অফ হাইজিন এন্ড ট্রপিকাল মেডিসিনের মতে একটা সম্প্রদায়ের আক্রান্তের ঝুঁকি এড়াতে কমপক্ষে ৫৫% জনগণের কোভিড -১৯ টিকা গ্রহণের প্রয়োজন হবে। কিছু বিজ্ঞানীর ধারণা এটা আরও উচ্চতর সংখ্যাই হবে।

৩. কোভিড -১৯ ভ্যাকসিন নেয়ার পরে শরীরে রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা কত দিন স্থায়ী হবে?
মার্কিন খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন বলছে, এখনি এটা বলা মুশকিল যে খুব তাড়াতাড়ি হয়ে যাবে। কোভিড -১৯ যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম সনাক্ত হওয়ার এক বছরেরও কম সময়ের মধ্যে ফাইজার-বায়োএনটেক এবং মডার্নার ভ্যাকসিন তৈরি হয়েছে। কোভিড -১৯ ভ্যাকসিনগুলি যেহেতু নতুন, তাই এটি পরিষ্কার নয় যে ভ্যাকসিনগুলি থেকে শরীরে রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা কত দিনের জন্যে পাওয়া যাবে।

৪. যদি ভ্যাকসিনগুলি করোনভাইরাসে অসুস্থ হওয়া থেকে মানুষকে রক্ষা করে, তবে তারা কি একইসাথে ভাইরাস বহন কিংবা অন্যকে সংক্রমিত করতেও বাধা দিতে সক্ষম?
সিএনএন চিফ মেডিকেল করেসপন্ডেন্ট ডা. সঞ্জয় গুপ্ত বলছেন- ‘এখন অবধি এটা আমরা নিশ্চিত করে বলতে পারি না।’ তবে মডার্না বলছে যে, এর ভ্যাকসিন সংক্রমণ এবং সংক্রমণ রোধ করতে সক্ষম হতে পারে। এর সমর্থনে সদ্য নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের করোনভাইরাস পরামর্শক সদস্য ড. রিক ব্রাইট বলেছেন, উভয় ভ্যাকসিনই আজ অবধি পরিচালিত ক্লিনিকাল ট্রায়ালগুলিতে কার্যকর এবং খুব নিরাপদ বলে প্রমাণিত হয়েছে। অর্থাৎ ভ্যাকসিনের দুটি ডোজ (৪ সপ্তাহের ব্যবধানে) আপনাকে সংক্রমণের হাত থেকে সুরক্ষা দেবে বটে, তবে ব্রাইট এবং এফডিএ উভয়ই বলেছেন, যে এটি এখনও স্পষ্ট নয় যে ফাইজার-বায়োএনটেক ভ্যাকসিন মানুষকে ভাইরাস বহনে কিংবা অন্যকে সংক্রমিত করতে বাধা দেয় কিনা।

৫. কেউ ইতিমধ্যে কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত হয়ে থাকলেও কি তাদের ভ্যাকসিন নেয়া উচিত?
মহামারী বিশেষজ্ঞ ডা. ল্যারি ব্রিলিয়ান্ট জানিয়েছেন, হ্যাঁ. কিছু ক্ষেত্রে নেয়া উচিত। কেননা সংক্রমিত হওয়ার পরে শরীরে উৎপাদিত এন্টিবডিগুলির চেয়েও শক্তিশালী সুরক্ষা দিতে পারে একটি ভ্যাকসিন। প্রকৃতপক্ষে ছয়টি করোনাভাইরাস রয়েছে- মারস, সারস এবং অন্য চারটি ভাইরাস যেগুলো সাধারণ সর্দি তৈরি করে। কিন্তু দেখা গেছে এর ফলে উৎপাদিত এন্টিবডিগুলি দীর্ঘমেয়াদী প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করে না।

এ পর্যন্ত তৈরি ভ্যাকসিনগুলো বরং তার থেকে বেশি প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করে থাকে। এটি কতটা দীর্ঘ হতে পারে তা স্পষ্ট নয়। অক্সফোর্ড-এস্ট্রাজেনিকা ,ফাইজার-বায়োএনটেক এবং মডার্না ভ্যাকসিন সবগুলোই দুটি মাত্রায় আসে: প্রথম ডোজ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে কার্যত: উজ্জীবিত করে এবং দ্বিতীয় ডোজ বুস্টারের মতো কাজ করে।

পূর্বকোণ/পি-আরপি

শেয়ার করুন
  • 11
    Shares
The Post Viewed By: 158 People

সম্পর্কিত পোস্ট