চট্টগ্রাম শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

সর্বশেষ:

৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ | ১২:১১ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

ভ্যাকসিন : জিজ্ঞাসার জবাব

করোনাভাইরাস মহামারীর ক্রান্তিকাল বুঝি শেষ হতে চলেছে। একের পর এক সুখবর আসছে। বহুল প্রতীক্ষিত করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন আবিষ্কারের পর তার ব্যবহারও শুরু হয়েছে। আমাদের দেশেও গত ২৭ জানুয়ারি থেকে এই ভ্যাকসিনেশন শুরু হয়েছে। এ সময়ে জনমনে তৈরি হয়েছে অনেক প্রশ্ন।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন ও আরো ক’টি প্রতিষ্ঠান সে সব প্রশ্ন ও উত্তর নিয়ে বিশেষ বিশেষ নিবন্ধ লিখেছে। সেখান থেকে উল্লেখযোগ্য প্রশ্ন ও উত্তর নিয়ে পূর্বকোণের এ আয়োজন।

১. সাধারণত একটি নিরাপদ ভ্যাকসিন আবিষ্কৃত হতে কয়েক বছর সময় নেয় কিন্তু সম্মুখসারির দুটি ভ্যাকসিন কীভাবে মাত্র ১০ মাসে উন্মুক্ত হলো ?
এটা ঠিক, অধিকাংশ ভ্যাকসিনই আবিষ্কৃত হতে কয়েক বছর এবং কিছু ক্ষেত্রে কয়েক দশকও লেগেছে। তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অপারেশন ওয়ার্প স্পিড এবং যুক্তরাজ্যে ভ্যাকসিন টাস্কফোর্সের মতো উদ্যোগ নিয়ে সরকারগুলি ভ্যাকসিন তৈরিকারক সংস্থাগুলিতে বিপুল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করেছে। এ মহামারীটি সারা বিশ্ব জুড়ে বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়কে এমনভাবে উজ্জীবিত করেছিল যে, ভাইরাস কীভাবে কাজ করে তা বুঝার জন্য কয়েক ডজন দেশের গবেষকরা প্রায় একযোগেই কাজে নেমে পড়েছিলেন।

ভ্যাকসিন আবিষ্কৃত হবার পর পরই সেগুলো ঠিকভাবে কার্যকর হবে কিনা তা জানার আগেই বিশে^র নানা জায়গায় পরবর্তী ধাপগুলোর কাজ এগিয়ে নেয়া হয়েছিল। দ্রুত ভ্যাকসিন উৎপাদনের ব্যাপক ব্যবস্থা নিয়ে রাখা হয়েছিল। সোজা কথায় এর অর্থ দাঁড়িয়েছে আমাদের ব্যবহারের জন্য কয়েক মিলিয়ন ডোজ প্রস্তুত।

২. এই ভ্যাকসিন কতটা কার্যকর?
ফাইজার-বায়োএনটেক, অক্সফোর্ড-এস্ট্রাজেনেকা এবং মডার্নার ভ্যাকসিনগুলো ৯০%-এরও বেশি কার্যকর বলে দাবি করা হয়েছে। প্রাথমিক তথ্য অনুসারে, অন্যান্য ভ্যাকসিনের চেয়ে এ হার অনেকটাই বেশি। তবে ফলাফলগুলি ছিল ভ্যাকসিনগুলোর প্রাথমিক ট্রায়ালের ওপর ভিত্তি করে। বলাবাহুল্য, স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলোও এ অবস্থায় ভ্যাকসিন অনুমোদন দেবে না জেনেই কোম্পানিগুলো তাদের ২য় ও ৩য় পর্যায়ের ট্রায়ালও চালিয়ে গেছে। ফলাফল হয়েছে দারুণ ইতিবাচক। মডার্না তাদের পরীক্ষায় ১৫ হাজার অংশগ্রহণকারীকে একটি প্লাসিবো (স্যালাইনের শট) দেয়- যা কোনও প্রভাব ফেলেনি।

বেশ কয়েক মাস পরে, এই লোকগুলির মধ্যে ৯০ জন কোভিড -১৯-এ আক্রান্ত হয়। আরও ১৫ হাজার জন অংশগ্রহণকারীকে এই ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছিল, এবং তাদের মধ্যে পাঁচ জন কোভিড -১৯-এ আক্রান্ত হয়েছিল। প্লাসিবো প্রাপ্তদের মধ্যে ১১ জন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন, তবে যারা এই ভ্যাকসিন পেয়েছিলেন তাদের কেউই গুরুতর অসুস্থ হননি।

আন্তর্জাতিক ভ্যাকসিন ইনস্টিটিউটের প্রধান বায়োটেক সংস্থা মডার্নার কোভিড -১৯ ভ্যাকসিন পরীক্ষার্থীর প্রাথমিক তথ্যকে প্রশংসা করে বলেছে যে এটি ‘ধারণার প্রমাণ’, তবে সতর্ক করা হয়েছে যে ফলো-আপ কার্যকারিতার দিক থেকে এটি এখনও প্রথম দিন। এটা ঠিক নতুন করোনভাইরাস ভ্যাকসিনগুলি বাস্তবে কীভাবে কার্যকর হবে সে সম্পর্কে এখনও অনেক কিছুই অজানা রয়েছে। তারা পুরোপুরি সংক্রমণ রোধ করবে বা গুরুতর অসুস্থতার সম্ভাবনা কম করবে কিনা তাও পরিষ্কার নয়।

এমনকি চিকিৎসকরা জানেন না তাদের সুরক্ষা কত দিন স্থায়ী হবে। যা হোক, মার্কিন এলার্জি ও সংক্রামক রোগ বিষয়ক জাতীয় ইনস্টিটিউটের পরিচালক ড. এন্টনি ফাউসি এটিকে ‘এটি যতটা পারা যায় তত ভাল’ বলে বর্ণনা করেছিলেন। তিনি আগে বলেছিলেন যে তিনি ৭০% থেকে ৭৫% কার্যকর একটি ভ্যাকসিন স্থির করবেন। ভ্যাকসিনগুলির বিভিন্ন কার্যকারিতা হার রয়েছে।

রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধের জন্য মার্কিন কেন্দ্রগুলির মতে, পোলিও ভ্যাকসিনগুলির একটি পূর্ণ ডোজ ৯৯% থেকে ১০০% কার্যকর, ডিপথেরিয়া, টিটেনাস এবং পের্টুসিসের বিরুদ্ধে সম্পূর্ণ টিকা ৮০% থেকে ৯০% কার্যকর, তবে ফ্লু ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা বছরের পর বছর পরিবর্তিত হয়।

৩. ভ্যাকসিনগুলি কতটা নিরাপদ এবং এর কী রকম পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে?
মডার্না বলেছে, তাদের ভ্যাকসিনের কোনও উল্লেখযোগ্য পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই। যারা এটি নিয়েছেন তাদের অল্প শতাংশই শরীরে ব্যথা এবং মাথাব্যথার মতো লক্ষণ অনুভব করেছেন। একটি ফ্লু শটের পরে লোকেরা যেভাবে অনুভব করতে পারে তার অনুরূপ এবং এটি একটি লক্ষণ যা প্রমাণ করে প্রতিরোধ তৈরির জন্য ভ্যাকসিন কাজ করছে। সুরক্ষার বিষয়ে তেমন উদ্বেগের কথা জানা যায়নি। এর প্রধান পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি হল, টিকা নেবার পরে টিকা নেওয়ার স্থান লাল হওয়া, সামান্য ফুলে যাওয়া, ইনজেকশনস্থলে ব্যথা, জ্বর ওঠা, ক্লান্তি, পেশী বা জয়েন্টে ব্যথা এবং মাথাব্যথা যা দ্বিতীয় ইনজেকশনের পরে আরও ঘন ঘন ঘটে বলে মনে হয়।

এখন পর্যন্ত যা জানা গেছে, ফাইজার-বায়োএনটেক, অক্সফোর্ড-এস্ট্রাজেনেকা, মডার্না সবগুলোর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া একই রকম বলা যায়। তবে সাধারণত একশ জনে একজন অল্পমাত্রা এবং এক হাজার জনে একজন অধিক মাত্রার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার শিকার হতে পারেন। সাধারণত এই উপসর্গগুলো ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই সেরে যায়।

আর এখন পর্যন্ত যেহেতু, ভ্যাকসিনগুলো জরুরিভাবে ব্যবহারের অনুমোদন পেয়েছে তাই সিডিসি এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি পর্যবেক্ষণ করবে এবং সুরক্ষাবিষয়ক কোনোও ঘাটতি রয়ে গেছে কী না তা মনিটর করে প্রয়োজনীয় সুপারিশ করবে।

৪. ভ্যাকসিন গ্রহণের পর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হলে কী করতে হবে?
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে অযথা উদ্বিগ্ন না হয়ে চিকিৎসককে জানান এবং তাদের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।

৫. এই ভ্যাকসিনগুলি কীভাবে কাজ করে? অনেকেই এদের এখনো ‘পরীক্ষামূলক ব্যবহার’ হচ্ছে বলে মনে করছেন
ভ্যাকসিনগুলি সাধারণত ভাইরাস থেকে রক্ষা করে এমন একটি অংশের নকল করে তৈরি যা আপনার ইমিউন সিস্টেমকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। মডার্না এবং ফাইজার উভয়ের ভ্যাকসিনগুলি একটি নতুন পদ্ধতি ব্যবহার করে তৈরি- যা এর আগে অনুমোদিত কোনোও ভ্যাকসিনে ব্যবহৃত হয়নি। দুটি ভ্যাকসিনই ‘মেসেঞ্জার আরএনএ’ বা এমআরএনএ নামে একটি কৌশল যাতে ভাইরাসের কোনও অংশের চেয়ে জেনেটিক কোড ব্যবহার করা হয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে মডার্না এবং ফাইজার’র এই কৌশল যেমন ফলদায়ক হয়েছে তেমনি ভ্যাকসিন উৎপাদন করাকে আরও সহজ এবং ত্বরান্বিত করতে পারে। ভবিষ্যতে যেকোনও সংক্রামক রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য (এবং বিদ্যমান রোগজীবাণুর বিরুদ্ধেও) এটি সহায়ক হতে পারে।

অন্যান্য সংস্থাগুলি ভিন্ন কৌশল ব্যবহার করে ভ্যাকসিন তৈরি করছে, যেমন – অক্সফোর্ড-এস্ট্রাজেনিকা ভ্যাকসিনটি একটি নিরীহ পরিবর্তিত শিম্পাঞ্জি ভাইরাস থেকে তৈরি করা হয়েছে।

পূর্বকোণ/পি-আরপি

শেয়ার করুন
  • 19
    Shares
The Post Viewed By: 156 People

সম্পর্কিত পোস্ট