চট্টগ্রাম সোমবার, ০১ মার্চ, ২০২১

সর্বশেষ:

৩১ জানুয়ারি, ২০২১ | ১১:২৮ পূর্বাহ্ণ

হেলথ ডেস্ক

সু স্থ থা কু ন

বয়স্করা সুস্থ থাকতে খাদ্যতালিকায় রাখবেন যেসব খাবার

সুস্থ থাকতে হলে বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনা জরুরি। কারণ সঠিক খাদ্যাভ্যাসই পারে আপনাকে সুস্থ রাখতে। শরীরে প্রয়োজনীয় পুষ্টি ও সঠিক ওজন বজায় থাকলে বেশি বয়সেও থাকা যায় সক্রিয়। তাই বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের খাদ্যগ্রহণের অভ্যাসেও পরিবর্তন আনতে হবে।

এর কারণ হচ্ছে- আমাদের মেটাবলিজম ধীরগতিতে হয়। বয়স বাড়তে থাকলে ক্যালোরির প্রয়োজনীয়তাও কমে আসে। বেড়ে যায় পুষ্টির প্রয়োজনীয়তা। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে হজম ক্ষমতা কমে যায়। যারা ব্যায়াম করেন না বা কম পরিশ্রম করেন তাদের তখন ক্যালরি ক্ষয় করার ক্ষমতা কমে যায়। তাই পরিমাণ মতো খেয়ে শরীরের সঠিক ওজন বজায় রাখা ও ব্যায়াম করা জরুরি।

আসুন জেনে নিই কী ধরনের খাবার খাবেন-
১. বয়স বাড়লে লোহিত রক্তকণিকা ও মস্তিষ্ক শুষ্ক রাখা জরুরি। এ সময় দুধের তৈরি খাবার, মুরগি, মাছ ও ডিম খেতে হবে।
২. এ বয়সে হাড়ের জন্য ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার খান। হাড়ের ভর নিয়ন্ত্রণ করতে এস্ট্রোজেন উপকারী। তাই মেনোপোজের পর নারীদের হার অপেক্ষাকৃত ভঙ্গুর হয়ে পড়ে।
৩. এ সময় পর্যাপ্ত ক্যালসিয়াম না নিলে হাড় থেকে এর ঘাটতি পূরণ হয়। ফলে হাড় দুর্বল হওয়া শুরু করে। ৪০ থেকে ৫০ বছর বয়স্ক নারীদের জন্য দৈনিক এক হাজার মিলিগ্রাম এবং পুরুষদের জন্য ১২০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়ামের প্রয়োজন। পঞ্চাশোর্ধ্ব নারীরা খাদ্যতালিকায় ক্যালসিয়ামসমৃদ্ধ খাবার যেমন- কাঠবাদাম, কমলা, মটর, কপি ও পালংশাক যুক্ত করলে উপকার পাবেন।
৪. এ সময় ত্বক ভালো রাখতে ও দেহে বয়সের ছাপ কমাতে এবং হৃদরোগ, ক্যান্সার ও অন্যান্য রোগ থেকে বাঁচতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া জরুরি।
৫. তিনটি গুরুত্বপূর্ণ ওমেগা থ্রি হলো- ইপিএ, ডিএইচএ এবং এএলএ। ইপিএ ও ডিএইচএ পাওয়া যায় মাছ থেকে। এএলএ পাওয়া যায় উদ্ভিজ্জ খাবার যেমন- আখরোট, তিসির বীজ ও চিয়া বীজ থেকে।
ওমেগা থ্রি হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি থেকে রক্ষা করে। তাই ৪০-এর পর এই খাবারগুলো নিয়মিত খেতে হবে।
৬. বয়স হলে অনেকেরই দাঁতের সমস্যা হয় তাদের হালকা ও নরম খাবার খাওয়া উচিত। যারা কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগেন তাদের ফাইবার যুক্ত খাবার খাওয়া উচিত যেমন দুধ, শস্যদানা, মুসলি, দই ইত্যাদি। এতে তারা প্রয়োজনীয় পুষ্টিও পাবেন আবার পেটের সমস্যাও থাকবে না।
৭. যে কোনো ধরনের ওষুধ ও ভিটামিন ট্যাবলেট খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

পূর্বকোণ/পি-আরপি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 450 People

সম্পর্কিত পোস্ট