চট্টগ্রাম সোমবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ৬:৩৪ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

পুঁজিবাজারে দরপতন,  আস্থা ফিরছে না কিছুতেই

সবার প্রত্যাশা ছিল পুঁজিবাজার নিয়ে বাজারের অংশীজনদের সঙ্গে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের বৈঠকের পর বাজার ঘুরে দাঁড়াবে।  কিন্তু তা না হয়ে উল্টো দরপতন হচ্ছে বাজারে। কোনো কিছুতেই বাজারে আস্থা ফিরছে না।

বৈঠকের পর দুই দিনে ঢাকায় প্রধান সূচক ডিএসইএক্স পড়েছে ৭০ পয়েন্টের বেশি। চট্টগ্রামে সার্বিক সূচক সিএএসপিআই কমেছে ২১৫ পয়েন্ট।

পুঁজিবাজার চাঙ্গা করতে সোমবার বাজারের সকল অংশীজনদের সঙ্গে বৈঠক করেন অর্থমন্ত্রী। বৈঠকে বাজারে কোনো ধরনের গড়বড় হচ্ছে কি না, তা পর্যবেক্ষণে নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ বিএসইসির অধীনে একটি বিশেষ কমিটি কাজ করবে বলে সিদ্ধান্ত হয়।

‘ইন্টারনাল অডিট কমিটি’ নামের এই কমিটি কোম্পানিগুলো যাতে শেয়ারের ন্যায্যমূল্য পায়, কোনো কোম্পানির শেয়ারের দাম যেন অতিমূল্যায়িত না হয় সেদিক নজর রাখবে এই কমিটি। বিডি নিউজ।

বৈঠক অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল বলেছেন, ‘এখানে আজ আশ্বস্ত করব সবাইকে যে, আমরা পুঁজিবাজারকে সুশাসন দেব এবং আমরা গর্ভন্যান্সে ভালো করব। যেসব ত্রুটি-বিচ্চুতি আছে, মিসম্যাচ আছে, সেগুলো আমরা টেককেয়ার করব। এভাবে আমাদের পুঁজিবাজারকে আমরা একটি শক্তিশালী বাজারে রূপান্তরিত করব।”

সবাই প্রত্যাশা করেছিল অর্থমন্ত্রীর এই বৈঠককে ঘিরে বাজার ঘুরে দাঁড়াবে, বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থা ফিরে আসবে। কিন্তু তা না হয়ে উল্টো দরপতন হচ্ছে।

২০১০ সালে বড় ধসের পর ২০১৭ সাল থেকে পুঁজিবাজারে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করে; ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬ হাজার পয়েন্ট ছাড়িয়ে যায়। কিন্তু তার পরের বছর আবার কমতে শুরু করে সূচক।

২০১৯ সালে বাজার ঘুরে দাঁড়াবে বলে সবাই প্রত্যাশা করলেও তেমনটি হয়নি। দিন যতো যাচ্ছে বাজারের অবস্থা ততোই খারাপ হচ্ছে।

ডিএসইএক্স ৫০০০ পয়েন্টের নিচে নেমে এসেছে। লেনদেন নেমে এসেছে ৩০০ থেকে ৪০০ কোটি টাকার ঘরে।

বাজার পরিস্থিতি

সপ্তাহের চতুর্থ দিন বুধবার প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স কমেছে ৪১ পয়েন্ট। অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই কমেছে ১০২ পয়েন্ট।

মঙ্গলবার ঢাকায় এই সূচক পড়েছিল ৩০ পয়েন্ট। চট্টগ্রামে কমেছিল ১১২ পয়েন্ট।

বুধবার ঢাকায় ৩৭১ কোটি ৫৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। মঙ্গলবার লেনদেন হয়েছিল ৪৩৫ কোটি ৫৬ লাখ টাকা।

চট্টগ্রামে মবুধবার ৩৫ কোটি ৬৫ লাখ টাকার শেয়ার হাতবদল হয়েছে। মঙ্গলবার এই বাজারে লেনদেনের পরিমাণ ছিল ৩৯ কোটি ৯০ লাখ টাকা।

বুধবার ডিএসইএক্স ৪০ দশমিক ৯৬ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ৮৮৮ দশমিক ০১ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ১৬ দশমিক ৩৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে এক হাজার ১৩০ দশমিক ৬৩ পয়েন্টে। আর ডিএস৩০ সূচক ১৫ দশমিক ৯৬ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ৭৩৫ দশমিক ৮৫ পয়েন্টে।

বুধবার ঢাকায় লেনদেনে অংশ নিয়েছে ৩৫২টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৯৭টির, কমেছে ২১৪টির। আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৪১টির দর।

অন্যদিকে সিএসইতে সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১০২ দশমিক ০৫ পয়েন্ট কমে ১৪ হাজার ৮৪৮ দশমিক ২২ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

লেনদেনে অংশ নিয়েছে ২৬২টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৬৭টির, কমেছে ১৬২টির। আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টির দর।

পূর্বকোণ/পলাশ

The Post Viewed By: 220 People