চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

২১ নভেম্বর, ২০২২ | ৬:০৭ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

টিভি ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আলী ইমামের ইন্তেকাল

শিশু সাহিত্যিক ও টিভি ব্যক্তিত্ব আলী ইমাম ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। সোমবার (২১ নভেম্বর) শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। ১৯৫০ সালের ৩১ ডিসেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জন্মগ্রহণ করেন বাংলাদেশি এই শিশু সাহিত্যিক এবং অডিও ভিজ্যুয়াল ব্যবস্থাপক।

আলী ইমাম এ পর্যন্ত প্রায় ২০০টির মতো পুস্তক রচনা করেছেন ও ৪০টির মতো গ্রন্থ রচনা করেছেন। শিশু মনস্তত্ত্ব, রোমাঞ্চ এবং মানবতা ধরনের বিষয় তার কাহিনীতে উঠে এসেছে। তিনি সহজ সরল ভাষায় লিখেন। তার লেখায় বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী, রোমাঞ্চকর উপন্যাস ও ইতিহাস সংশ্লিষ্ট রচনা লক্ষণীয়।

আলী ইমাম বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহা-ব্যবস্থাপক ছিলেন এবং ২০০৬ সালে চাকরি থেকে অবসরগ্রহণ করেন। তারপর তিনি স্যার সাঈদ ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজিতে ভর্তি হন কম্পিউটার প্রকৌশল বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি নেয়ার জন্য। ২০১০ সালে তিনি তার শিক্ষা সমাপ্ত করেন এবং জনসেবামূলক নিজের প্রতিষ্ঠান খুলে বসেন। তিনি একে বলেন বযিমস। এছাড়াও তিনি অনেক ব্লগের লেখক।

আলী ইমামের প্রবন্ধ-গবেষণা
সোনালী তোরণ (১৯৮৬); আলোয় ভুবন ভরা (১৯৮৭); দুঃসাহসী অভিযাত্রী (১৯৮৮); প্রিয়-প্রসঙ্গ (১৯৯০); বুনোহাঁসের পালক (১৯৯০); সেসুলয়েডের পাঁচালী (১৯৯০); রক্ত দিয়ে কেনা (গল্প, ১৯৯১); ভিনদেশী কিশোর গল্প (১৯৯১); কাছের পাহাড় দূরের পর্বত (১৯৯২); সাগর থেকে সাগরে (১৯৯২); বাংলাদেশের কথা (১৯৯২); বিদেশি পর্যটকদের চোখে বাংলাদেশ (১৯৯৪); দূরের দ্বীপ কাছের দ্বীপ (১৯৯৬); প্রাচীন বাংলা বৌদ্ধ বিহার (১৯৯৬); বাঙলা নামে দেশ (১৯৯৭); ডানা মলার দিন (১৯৯৭); দেখোরে নয়ন মেলে (১৯৯৯); ভ্রমণ কাহিনী : কাছে থেকে দূরে (১৯৯১)।

পূর্বকোণ/মামুন/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট