চট্টগ্রাম সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

১৩ আগস্ট, ২০২২ | ১:০৮ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

কবিগুরুকে স্মরণ ‘কবি প্রণাম’ শীর্ষক সঙ্গীতানুষ্ঠানে

‘ভালোবেসে, সখী, নিভৃতে যতনে/আমার নামটি লিখো তোমার/ মনের মন্দিরে।’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের বিখ্যাত গান নিয়ে কবি প্রণাম শীর্ষক একটি সঙ্গীতানুষ্ঠানের আয়োজন করে সুর ধারা সঙ্গীতালয়। আলো আঁধারির মধ্যে মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে সেই গান উপভোগ করেন আমন্ত্রিত অতিথিরা। গতকাল সন্ধ্যায় নগরীর ফুলকি স্কুলের এ কে খাঁন মিলনায়তনে কবির প্রয়াণ দিবস উপলক্ষে এ সঙ্গীতানুষ্ঠানটি আয়োজন করা হয়।

 

সুর ধারার আহ্বায়ক এডভোকেট শুভাগত চৌধুরীর পরিচালনায় সঙ্গীতানুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের জেনারেল ম্যানেজার মাহফুজা আক্তার, ঢাকা থেকে আমন্ত্রিত বিশিষ্ট রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী সাজেদ আকবর ও সালমা আকবর। এসময় অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদুর রশিদ। আবৃত্তি শিল্পী মিলি চৌধুরীর সঞ্চালনায় প্রথমেই রবীন্দ্রসঙ্গীত ‘চরণ ধরিতে দিয়োগো’ গানটি পরিবেশন করেন শিল্পী সীমা পাল। এরপর গান পরিবেশন করেন শিল্পী সঞ্চিতা ভট্টাচার্য্য, অর্পিতা দাশ, শুভাগত চৌধুরী, রূপা দত্ত, শিউলি নাথ, শ্যামলী পাল, সুমিত্রা বিশ্বাস ও দেবযানী চক্রবর্তী।

 

এসময় আবৃত্তি করেন আবৃত্তিশিল্পী শম্পা বিশ্বাস। রবীন্দ্র সঙ্গীতশিল্পী সালমা আকবর পরিবেশন করেন ‘পথে চলে যেতে যেতে/ কোথা কোন খানে, তোমার পরশ আসে/ কখন কে জানে, কখন পথে চলে যেতে যেতে’। একে একে পাঁচটি বিখ্যাত রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশন করেন তিনি। একইভাবে রবীন্দ্র সঙ্গীতশিল্পী সাজিদ আকবর পরিবেশন করেন ‘আমি তখন ছিলেম মগন গহন ঘুমের ঘোরে/ যখন বৃষ্টি নামল তিমিরনিবিড় রাতে’। এসময় তিনিও পাঁচটি গান পরিবেশন করেন।

 

সঙ্গীতানুষ্ঠানের ফাঁকে উপস্থিত অতিথিদের হাতে শুভেচ্ছা স্মারক তুলে দেন পরিচালক এডভোকেট শুভাগত চৌধুরী। এসময় অতিথিরা বলেন, বিদেশি সংস্কৃতির আধিপত্যে আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতি হারিয়ে যাচ্ছে। এটি দেশের সংস্কৃতির জন্য অশুভ সংকেত। আমরা সবাই যদি সংঘবদ্ধভাবে পথ চলি তাহলে আগামীতে আমাদের বাঙালি সাংস্কৃতিকে ধরে রাখতে পারবো।

 

বিশ্ব কবির প্রয়াণ দিবসের মাসে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের মৃত্যু দিবস। তাই এ মাসটি বাঙালির জন্য আরো বেশি কষ্টের। এ মাসে বাঙালি হারিয়েছে তাদের অভিভাবককে। বিশ্ব হারিয়েছে এক বিখ্যাত নেতাকে। এ দুই মহাপুরুষের জন্ম ধন্য করেছে আমাদের। তাদের মৃত্যু নেই, যতদিন বিশ্ব রবে ততদিন জীবিত থাকবেন মানুষের অন্তরে।

 

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট