চট্টগ্রাম বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২৮ এপ্রিল, ২০১৯ | ১:৪৩ এএম

সাদেক রিপন , কুয়েত

ফেসবুকে প্রবাসীদের কাছে পরিচিত নাম ফয়জুল হক কুটি

বর্তমানের দেশে ও বিদেশে সামাজিক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম হিসেবে ব্যাপক পরিচিত পেয়েছে ফেসবুক। মুহূর্তের মধ্যে ঘটে যাওয়া যেকোন ঘটনা দেশে বিদেশে ছবি, লাইভ ভিডিও হচ্ছে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ছে সারাবিশ্বে।
সিলেট মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার কাঠালতলী ইউনিয়নের ফয়জুল হক কুটি কুয়েতের বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও প্রবাসীদের সমস্যা ও সম্ভাবনার তথ্য চিত্র তুলে ধরেন তার ফেসবুকে। ফেসবুকে লাইভ দিয়ে বর্তমানে সে কুয়েত প্রবাসী ও কমিউনিটির মাঝে লাইভ সাংবাদিক নামে পরিচিতি লাভ করেন। ফয়জুল হক কুটি পরিবারের আর্থিক সচ্ছলতার জন্য ২০০১ সালে কুয়েতে আসে ফ্রি ভিসা নিয়ে আস্তে আস্তে চেষ্টা নিজের পরিশ্রমে কাঠের ফার্নিসারের ব্যবসায় সাথে যুক্ত দীর্ঘদিন কাজ করার পর তিনি কাঠের ব্যবসা নিজেই দোকান। কাজের পাশাপাশি অবসর সময়ে কমিউনিটির বিভিন্ন প্রোগ্রামে তার ফেসবুক পেইজ থেকে লাইভ দিয়ে থাকেন। ফেসবুকে লাইভে আসা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, লাইভে আসার উদ্দেশ্য হলো আমি যখন প্রথম কুয়েতে আসি তখন অল্প বেতন চাকরি করতাম।
ফেসবুকে, টিভিতে, খবরে বিভিন্ন প্রোগ্রামে কমিউনিটি নেতা, বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতারা তাদের বক্তব্যে প্রবাসীদের কল্যানে কাজ করা ও সহযোগিতার আশার বাণী আমি শুনতাম সবাই বলতো এন করবে তেন করবে লাস্ট বেলায় কেউ কিছু করে না এর জন্য আমি দেখলাম কুয়েতের অসহায় মানুষগুলোর নেতারা যেমন একটি সুবিধা করে না এবং প্রবাসীরা কেউ কাকে হেল্প করার জন্য এগিয়ে আসে না ওরা নিরবে কাঁদে অঝরে চোখের পানি ঝরে তখন আমার একটি উদ্দেশ্য অসহায় মানুষেরা এই প্রবাসে তাদেরকে তুলে ধরার জন্য আমি লাইভ সিদ্ধান্ত নিই। নানান বাঁধা পেরিয়ে ফেসবুকে লাইভে আমার প্রায় ছয় বছর হয়ে গেছে তবে আমি এই ফেসবুকের মাধ্যমে অনেক সফলতা অর্জন করেছি।
লাইভের মাধ্যমে কুয়েত প্রবাসী সবাইকে আমি বুঝিয়ে দিতে পেরেছি অসহায় কিভাবে জীবন যাপন করে এবং আমার ইচ্ছা আগের দুস্থ অসহায় মানুষ জন্য কাজ করা তাদের সুখ দুঃখ হাসি কান্ন বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরে দেশের মানুষকে সচেতন করা।
যেই দেশে যাবেন সেই দেশের অবস্থানরত প্রবাসী অবস্থা খোজ খবর নিয়ে দালালের কথায় মুগ্ধ না হয়ে কাজের ধরণ, কোম্পানরি অবস্থা, ভিসা যাচাই বাছাই করে তারপর সিদ্ধান্ত নিবেন।

The Post Viewed By: 218 People