চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯

২৮ অক্টোবর, ২০১৯ | ২:১৩ পূর্বাহ্ন

মুহাম্মদ আবু নাসের

দুষ্টু শিশুরা খুব তাড়াতাড়ি শিখে

আপনার শিশু দুষ্টু হলে হতাশ হবেন না। দুষ্টু শিশুরা খুব তাড়াতাড়ি অনেক কিছু শিখে ফেলে। আমেরিকার ইউনিভার্সিটি অব আইওয়ার এক গবেষণায় জানা গেছে, আপনার শিশু খাবার নিয়ে যত বেশি দুষ্টুমি করে তত বেশি নতুন বিষয় শিখবে।
নতুন হাঁটতে শেখা শিশুদের নিরেট বস্তুর আকার ও আকৃতি বিষয়ে ধারণা থাকলে তারা তাড়াতাড়ি বিষয়টা ধরতে পারে। আগে থেকে জানা বিষয়ে কোন কিছু করতে দিলে শিশুদের তা করা সহজ হয়।

সাইকোলজির অধ্যাপক ল্যারিসা স্যামুয়েলসনের মতে, খাওয়ার সময় নরম জিনিসগুলো শিশুরা দেখে এবং সেগুলো সম্বন্ধে ধারণা পায়। এর মাধ্যমে ছোট শিশুদের শব্দ শেখার দক্ষতাও বাড়ানো সম্ভব। শিশুদের উঁচু চেয়ারে বসিয়ে যদি শেখানো হয় তাহলে তারা ভালোভাবে শিখতে পারে। ১৬ মাস বয়সের শিশুদের ১৪টি নরম খাবার দিয়ে গবেষণাটি করা হয়। এর অধিকাংশই ছিল আপেলের সস, জুস, পুডিং ও সুপের খাবার। শিশুদের খাবারগুলোকে ড্যাং কিভ ইত্যাদি অভিনব নামে পরিচিত করানো হয়। এর পরেরবার খাবারগুলো ভিন্ন আকার ও আকৃতিতে পরিবেশন করা হলেও শিশুরা সেগুলো শনাক্ত করতে পারে।
তবে খাবারগুলোর সঙ্গে পরিচিত হওয়ার জন্য বেশকিছু শিশু সেগুলো নিয়ে নানারকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে। এর মধ্যে রয়েছে খোঁচা দেওয়া, ছুঁয়ে দেখা, ছুঁড়ে ফেলা ও খেয়ে দেখা। এভাবেই শিশুদের শেখা সহজ হয়।

গবেষকরা বলছেন, আপনি যদি আপনার শিশুর সঠিক মানসিক বিকাশ চান তবে তার নিজের মতো খেলতে দিন। তাকে তার নিজের মতো করে জগতটাকে চিনতে দিন। কেননা, শিশুদের মানসিক বিকাশ একটি স্বতঃস্ফূর্ত বিষয়। এখানে চাপিয়ে দেওয়ার ফলাফল ভালো হবে না।
এছাড়া শিশুর ঘুমটা ওর মেধা ও স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর জন্য চমৎকার কাজ করে। বিশেষ করে যেসব শিশু এখনো স্কুলে যাওয়া শুরু করেনি, তাদের জন্য এ ঘুমটা খুবই দরকারি। শিশুদের দুপুরের ঘুমের অভ্যাস করা খুব ভালো। যতক্ষণ ঘুমাতে পারে ততই ভালো।

শিশুদের অল্প বয়সেই বেশি করে বই পড়তে দেওয়া উচিত। টেলিভিশন, ইন্টারনেট, ভিডিও গেমস, নেটফ্লিক্স ইত্যাদি সবই বইয়ের ভূমিকা কমিয়ে দিচ্ছে। এগুলো বিনোদনের জন্য ব্যবহৃত হয় এবং প্রচুর সময় নষ্ট করে। বর্তমানে বই পড়া অন্য সব সময়ের তুলনায় কঠিন হয়ে পড়েছে।

একটা শিশু যদি বই পড়ে তা হলে সে তা সম্পর্কে চিন্তা করবে। এটি দ্রুত চলমান ভিডিও নয়। এ কারণে বইয়ের বিষয়গুলো কল্পনা করে নিতে হয়। ফলে মস্তিষ্কের বিকাশ ঘটে। শিশুদের মস্তিষ্কের বিকাশের জন্য বইয়ের প্রয়োজনীয়তা উঠে এসেছে চাইল্ড ডেভেলপমেন্ট জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণা প্রতিবেদনে। এতে জানানো হয়েছে, শিশু ও তরুণদের কল্পনাশক্তি গঠন করতে ভূমিকা গড়তে সহায়তা করে। অন্য একটি গবেষণাতে উঠে এসেছে শিশুদের মস্তিষ্ক পাঁচ বছরের মধ্যে গঠিত হয়। এ কারণে অল্প বয়সেই বেশি করে বই পড়তে দেওয়া উচিত।

The Post Viewed By: 120 People

সম্পর্কিত পোস্ট