চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

১৪ অক্টোবর, ২০১৯ | ৯:৪৩ অপরাহ্ণ

বিজ্ঞপ্তি

সিআইইউ’র স্কুল অব ল’তে নতুন ২টি ক্লাবের যাত্রা শুরু

ক’দিন ধরেই আলোচনা ক্যাম্পাসে। নতুন দুটি ক্লাবের উদ্বোধন হচ্ছে। সামনে হাজারও অনুষ্ঠান। কতো কী! তাই এই নিয়ে ঘুম নেই শিক্ষার্থীদের। একদিকে উচ্ছ্বাস, অন্যদিকে আনন্দ। সবই যেন মিলেমিশে একাকার। নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে চিটাগং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটির (সিআইইউ) স্কুল অব ল’তে যাত্রা শুরু হলো নতুন দুটি ক্লাবের।

এ উপলক্ষে আজ সোমবার (১৪ অক্টোবর) সকালে নগরীর জামালখানের সিআইইউ ক্যাম্পাসে আয়োজন করা হয় কেক কাটা, শুভেচ্ছা বিনিময় ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের। কোরআন তেলাওয়াত ও জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় জমজমাট এই আয়োজন।
যাত্রা শুরু করা নতুন ক্লাব দুটি হলো: সিআইইউ ল এন্ড কালচারাল সোসাইটি ও সিআইইউ ল’ ডিবেট ক্লাব। ক্লাব দুটির উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মাহফুজুল হক চৌধুরী।

তিনি বলেন, ক্লাব বা সংগঠনের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে মানুষের সেবা। এই ধরণের ক্যাম্পাসভিত্তিক সংগঠনগুলো থেকে শিক্ষার্থীরা অর্জিত জ্ঞানের মাধ্যমে কীভাবে আগামী দিনে জনকল্যাণে নিজেকে বিলিয়ে দিবে সেই অভিজ্ঞতা বা ধারণা অর্জন করে সবাইকে ছাড়িয়ে যেতে পারে। সিআইইউ’র স্কুল অব ল’তে ‘লিগ্যাল এইড ক্লাব’ গঠনের মাধ্যমে ইতিবাচক গুণাবলি তৈরি করতে শিক্ষকদের প্রতি আহ্বান জানান উপাচার্য।

সভাপতির বক্তব্যে স্কুল অব ল’র উপদেষ্টা অধ্যাপক মো. জাকির হোসেন বলেন, যুক্তিনির্ভর সমাজ মানেই তারুণ্যের জয়-জয়কার। সেখানে দায়িত্বশীলতা বাড়ে। বাড়ে সুস্থ নেতৃত্ব দেয়ার মানসিকতা। যাত্রা শুরু করা ক্লাব দুটি সমাজ বদলে বড় ধরণের ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

অনুষ্ঠানের আহ্বায়ক ও স্কুল অব ল’র সহকারী ডিন মোহাম্মদ আখতারুল আলম চৌধুরী বলেন, সিআইইউ’র ল এন্ড কালচারাল সোসাইটি ও ডিবেট ক্লাব দুটি মৌলিক মানবাধিকার, গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সবসময় এগিয়ে থাকবে এমনটা চাওয়া।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন স্কুল অব ল’র সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ বেলায়েত হোসাইন, প্রভাষক মো. আদনান কবির, মো. জুবায়ের কাসেম খান, মো. হাসনাত কবির ফাহিম প্রমুখ।

পরে নতুন ঘোষিত ক্লাব দুটির দায়িত্বপ্রাপ্তদের ও মুট কোড প্রতিযোগিতায় যারা অংশগ্রহণ করেছেন তাদের হাতে ফুল ও ক্রেস্ট তুলে দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়। দু’পর্বে বিভক্ত অনুষ্ঠানের শেষে ছিলো মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। কৃতি শিক্ষার্থী ইরফানুল ইসলাম ও তাফরিহা সুলতানার প্রাণবন্ত উপস্থাপনা হলভর্তি দর্শকদের নজর কাড়ে।-বিজ্ঞপ্তি।

 

 

 

 

পূর্বকোণ/রাশেদ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 519 People

সম্পর্কিত পোস্ট