চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২২

১৮ নভেম্বর, ২০২২ | ১:০৭ অপরাহ্ণ

রায়হান উদ্দিন, চবি

সাফল্য, ঐতিহ্য ও গৌরবের বহু অর্জন আছে, আছে প্রচুর সংকট

সবুজের সমারোহ আর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর নিঝুমপুরীর ক্যাম্পাসখ্যাত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠার ৫৬ বছর পেরিয়ে আজ ৫৭ তে পা রাখলো প্রাণোচ্ছল এই পাঠশালা। ১৯৬৬ সালের ১৮ নভেম্বর যাত্রা শুরু করার পর থেকে শুধু ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইলেই নয়, বিশ্বজুড়ে জ্ঞানতাপস হয়ে শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছেন চবির শিক্ষার্থীরা। সাফল্য, ঐতিহ্য আর গৌরবের বহু অর্জনে সমৃদ্ধ দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ এ বিশ্ববিদ্যায়টি।

 

তবে প্রতিষ্ঠার দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও এখনো নানা সংকটের আবর্তে শাটলের ক্যাম্পাসটি। আবাসন সংকট, শিক্ষক- শ্রেণিকক্ষের স্বল্পতা, পরিবহনের অপ্রতুলতা, গবেষণায় অনগ্রসরতা ও রাজনৈতিক দ্ব›দ্ব কাক্সিক্ষত লক্ষ্য অর্জনে সৃষ্টি করেছে সংকট। প্রতিষ্ঠার পর সমাবর্তন হয়েছে মাত্র পাঁচটি। ৩২ বছরেও আলোর মুখ দেখেনি কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (চাকসু) নির্বাচন।

যেভাবে শুরু :

মাত্র ৮ জন শিক্ষককে নিয়ে যাত্রা শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়টি। প্রথমে চালু হয় বাংলা, ইংরেজি, ইতিহাস ও অর্থনীতি এ চার বিভাগ। যার অধীনে ছিল মাত্র ২০৪ জন শিক্ষার্থী। তখন প্রথম উপাচার্য হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন অধ্যাপক ড. আজিজুল রহমান মল্লিক।

বর্তমান অবস্থা :

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ২৮ হাজার। পাঠদানে রয়েছেন ৯০৬ জন গুণী শিক্ষক। এখানে ৯টি অনুষদের অধীনে ৪৮টি বিভাগ ছাড়াও রয়েছে ৬টি ইনস্টিটিউট। শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে ১৪টি আবাসিক হল ও ১টি ছাত্রবাস। এর মধ্যে ৯টি ছেলেদের ও ৫টি মেয়েদের হল। আবাসিক হল ও হোস্টেলে শিক্ষার্থীদের জন্য প্রায় ৭ হাজার আসন বরাদ্দ রয়েছে। শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে রয়েছে শাটল ও ডেমু ট্রেন।

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের আধার :

কাটাপাহাড়, হতাশার মোড়, দোলা স্মরণী, একখণ্ড ঝুলন্ত সেতু, চালন্দা গিরিপথ, চবির সৌন্দর্য শুধু এগুলো নয়। ঋতুরাজ বসন্ত, ঝুম বৃষ্টির আষাঢ়, ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা শীতে শাটলের ক্যাম্পাস বদলায় তার রূপ। এই রূপে শুধুমাত্র চবির শিক্ষার্থীরাই বিমোহিত হন না বরং ক্যাম্পাসে অতিথি হয়ে আসা যে কেউই অনায়াসে আপন করে নেয় নিঝুমপুরীর জ্ঞানগৃহের এই সৌন্দর্যকে।

 

গুণীজন :

বাংলাদেশ থেকে একমাত্র নোবেল পুরস্কার বিজয়ী এবং গ্রামীণব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ড. মুহাম্মদ ইউনূস চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের স্বনামধন্য শিক্ষক ছিলেন। বিশ্বখ্যাত বিশ্বতত্ত¡বিদ, পদার্থবিজ্ঞানী ও গণিতবিদ একুশে পদক প্রাপ্ত অধ্যাপক ড. জামাল নজরুল ইসলাম এই বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের শিক্ষক ছিলেন। যিনি শুধুমাত্র দেশের টানে বিদেশের চাকরির লোভনীয় প্রস্তাব ছেড়ে দেশে ফিরে এসেছিলেন। ঐতিহাসিক ও শিক্ষাবিদ আবদুল করিম, একুশে পদকজয়ী সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ ড. আনিসুজ্জামান, শিক্ষাবিদ আহমদ শরীফ, হুমায়ুন আজাদ, চিত্রশিল্পী রশিদ চৌধুরী, কলামিস্ট আবুল মোমেন এই বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। সাবেক জাতীয় অধ্যাপক সৈয়দ আলী আহসান, অপরাজেয় বাংলার স্থপতি ভাস্কর সৈয়দ আব্দুল্লাহ খালিদ, উপন্যাসিক আলাউদ্দিন আল আজাদ, সমাজবিজ্ঞানী ড. অনুপম সেন, অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান, মুর্তজা বশীর, ঢালী আল মামুনসহ দেশ বরেণ্য বহু কীর্তিমান মনীষীর জ্ঞানের আলোয় উদ্ভাসিত এ বিশ্ববিদ্যালয়।

 

ইতিহাসে চবি :

কেবল গবেষণা আর পড়াশুনা নয়, দেশের প্রতিটি ক্রান্তিকালে এ বিশ্ববিদ্যালয় রেখেছে অগ্রণী ভূমিকা। ৬৯’র গণঅভ্যুত্থান, ৭১’র মহান মুক্তিযুদ্ধ, ৯০’র স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন যার সাক্ষী। বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে চবির কমপক্ষে ১৫ জন ‘মহানায়ক’ তাদের নিজের জীবন বিলিয়ে দেন। মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য শহীদ মুক্তিযোদ্ধা মো. হোসেন পেয়েছেন বীর প্রতীক খেতাব।

 

স্থাপত্যকর্ম :

সবুজ ঘেরা ক্যাম্পাসে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে বিভিন্ন নজরকাড়া সব স্থাপত্যকর্ম। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতির প্রতি প্রদ্ধানিবেদনের জন্য রয়েছে স্বাধীনতা স্মারক ভাস্কর্য, দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিস্ম্ভ, শহীদ মিনার। মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বীর সন্তানদের স্মৃতিকে অমলিন রাখতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশমুখেই নির্মাণ করা হয়েছে স্মৃতিস্তম্ভ ‘স্মরণ’। স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি সম্বলিত ‘বঙ্গবন্ধু চত্বর’। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধকে শিক্ষার্থীদের সামনে তুলে ধরতে নির্মিত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ ভাস্কর্য ‘জয় বাংলা’।

 

এছাড়া ১৯৭৩ সালে প্রতিষ্ঠিত জাদুঘরে রয়েছে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন, কামরুল হাসানসহ বিখ্যাত সব শিল্পীদের শিল্পকর্ম, অষ্টম থেকে দ্বাদশ শতাব্দীর নানা কষ্টিপাথরের বিষ্ণু মূর্তিসহ প্রাচীন জীবাশ্মের সংগ্রহ। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগে রয়েছে ‘প্রাণিবিদ্যা জানুঘর, উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগে রয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় হার্বেরিয়াম ও সমুদ্র বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটে রয়েছে সমুদ্র সম্পদ জাদুঘর। বাংলা, সংস্কৃত, আরবি, ফারসি, উর্দু ভাষায় লিখিত সুপ্রাচীন সব পাণ্ডুলিপির সংগ্রহ রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে।

 

 

যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে গড়ে তোলা হয়েছে ডিজিটাল মিডিয়া ল্যাব টেলিভিশন স্টুডিও। জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং ও বায়োটেকনোলজি বিভাগের অধীনে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে গবেষণার জন্য গড়ে তোলা হয়েছে উন্নত সুবিধাসম্বলিত গ্রিন হাউস প্রকল্প। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিসরে রচিত বইয়ের সংগ্রহে গড়ে তোলা হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’।

 

আছে সমস্যা-সংকট :

এতকিছুর মাঝে সমস্যাও কম নয়। ১৯৮৮ সাল থেকে শাটলট্রেন চলাচল করলেও ঝুঁকিপূর্ণ রেল লাইন ও পুরানো বগি দিয়ে চলছে। বছরের পর বছর শিক্ষার্থী বাড়লেও এ খাতে উন্নতি হয়নি। শুধু বেড়েছে শিক্ষার্থীদের ট্রেনে গাদাগাদি আর হাঁসফাঁস। এখনো শতভাগ আবাসনের ব্যবস্থা করতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয়। মাত্র ১৯ শতাংশের মত আবাসিক সুবিধা পায় শিক্ষার্থীরা।

 

হলগুলোতে বেশিরভাগ কক্ষ ও খাবারের মান ব্যবস্থা নিয়ে রয়েছে আবাসিক শিক্ষার্থীদের অভিযোগ। হলে কক্ষ না পেয়ে বাকি শিক্ষার্থীরা আবাসিক সুবিধা নিতে জিম্মি হয়ে পড়েছে নিম্নমানের কটেজগুলোয়। ছেলেদের জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল দীর্ঘদিন আগে উদ্বোধন হলেও এখনো চালু না করে নির্মাণ কাজ চলছে। তবে এ খাতে প্রশাসনের চেষ্টা কিছুটা আশাব্যঞ্জক। এছাড়া ৩২ বছরেও হয়নি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (চাকসু) নির্বাচন। প্রতিষ্ঠার পর মাত্র ছয়বার হয়েছে চাকসু নির্বাচন।

 

এজন্য সবসময় ক্ষমতাসীন দলগুলোর ছাত্রসংগঠনের আধিপত্য থেকেছে ক্যাম্পাসে। এত পাওয়া না পাওয়ার মাঝে শিক্ষার্থীরা অভাব বোধ করছেন একটি ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি), একটি সুইমিংপুল এবং সর্বোপরি তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়ন। ৫৭ বছরে রাজনৈতিক সহিংসতায় অনেকবার রক্তে রঞ্জিত হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের মাটি। প্রাণ গেছে ১৮জন শিক্ষার্থীর। কিছুদিন যেতে না যেতেই রাজনৈতিক ছাত্রসংগঠনের মধ্যে আধিপত্য, সংঘর্ষ আর হানাহানি, টেন্ডারবাজি বিশ্ববিদ্যালয়ের সবচেয়ে নেতিবাচক খবর হিসেবে গণমাধ্যমে এসেছে বেশিরভাগ সময়। এত কিছুর পরও এগিয়ে চলছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

 

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট