চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

৫ আগস্ট, ২০১৯ | ১২:৫৮ এএম

এম. সারওয়ার

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত কলেজে বিএসসি-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং

এইচএসসির পর উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন বুননে ব্যস্ত লক্ষ তরুণ মেধাবী। এদের মধ্যে যারা গণিতে পারদর্শী তাদের একটাই স্বপ্ন ইঞ্জিনিয়ার হওয়া। যে সকল মেধাবী তরুণ এইচএসসি-র পর প্রকৌশলীরূপে জীবন গড়ার স্বপ্নে বিভোর তাদের স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে এগিয়ে এসেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় অধিভূক্ত চিটাগাং ন্যাশনাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ (ঈঘঊঈ)। চট্টগ্রামে প্রকৌশল ও কারিগরী শিক্ষার পথিকৃৎ অধ্যক্ষ প্রকৌশলী আব্দুল বাকী (সাবেক অধ্যক্ষ, সুইডিস পলিটেকনিক, কাপ্তাই) কর্তৃক নগরীর প্রধান শিল্পকেন্দ্র নাসিরাবাদ এলাকায় প্রতিষ্ঠিত এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের অন্তর্ভূক্ত যেখানে প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের মতই ৪ বছর মেয়াদী বিএসসি-ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে ভর্তি হতে পারবে ছাত্রছাত্রীরা। আবার ৪ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করা শিক্ষার্থীরাও এই কোর্সে ভর্তি হয়ে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার গৌরব অর্জন করতে পারবে। এখানকার কোর্সগুলো হলো বিএসসি-ইন-মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ও বিএসসি-ইন-টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং।
শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত গঠনে ঈঘঊঈ কেমন ভূমিকা রাখবে?
এ প্রশ্নের জবাবে ট্রাস্টি বোর্ডের সভাপতি অধ্যক্ষ আব্দুল বাকী বলেন,‘চট্টগ্রামের মেধাবী ছাত্রছাত্রী যারা প্রকৌশলী হয়ে উন্নত ক্যারিয়ার গড়তে চায় তাদের জন্য নিজস্ব জমিতে সুপরিসর ওয়াই-ফাই ক্যাম্পাস, মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম ও অত্যাধুনিক ল্যাব, বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকবৃন্দ কর্তৃক পাঠদান সহ শিক্ষাবান্ধব সকল পরিবেশের আয়োজন করেছি আমরা। এমনকি চাকুরীরতদের জন্য রয়েছে সান্ধ্যকালীন ক্লাসের ব্যবস্থা। আমাদের একাডেমিক কাউন্সিলের সভাপতি হলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড.শিরীন আখতার। কোর্স এডভাইজর এবং শিক্ষকরূপে রয়েছেন চট্টগ্রাম প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, ডুয়েট এবং বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ^বিদ্যালয়ের খ্যাতিমান অধ্যাপকবৃন্দ। এ ছাড়াও পাঠদান করছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত, পদার্থবিদ্যা বিভাগের অভিজ্ঞ শিক্ষকবৃন্দ। সর্বোপরি কলেজ অধ্যক্ষরুপে রয়েছেন টেক্সটাইল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রকৌশলী সোহরাব দস্তগীর, বিএসসি-ইন-টেক্সটাইল ইঞ্জিঃ (ঢাবি), পিজিডি-ইন-টেক্সটাইল টেক এন্ড ম্যানেজমেন্ট (হল্যান্ড)। এখানকার কোর্স সমূহের সিলেবাস প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলেবাসের অনুরূপ। সকল পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ এবং কোর্স শেষে সার্টিফিকেট প্রদান করবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়। অতএব অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মতই ঈঘঊঈ হতে প্রকৃত জ্ঞান লাভ করে শিক্ষার্থীরা দেশ বিনির্মাণে গৌরবোজ্জল ভূমিকা রাখবে এতে কোন সন্দেহ নেই।’
ভর্তির যোগ্যতা : অধ্যক্ষ জানান, যে সকল ছাত্র-ছাত্রী বাংলাদেশের যে কোন শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ২০১৪ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে মাধ্যমিক বা সমমান পরীক্ষা ও ২০১৭ বা ২০১৮ সালে উচ্চ মাধ্যমিক বা সমমান পরীক্ষায় অথবা ২০১২ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে মাধ্যমিক বা সমমান পরীক্ষা ও ২০১৭ বা ২০১৮ সালের ৪ (চার) বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে তারা ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। ভর্তিচ্ছুদের মাধ্যমিক বা সমমান এবং বিজ্ঞান শাখায় উচ্চ মাধ্যমিক বা সমমান উভয় পরীক্ষায় চতুর্থ বিষয় সহ নূন্যতম মোট জিপিএ ৬.০০ থাকতে হবে। তবে মাধ্যমিক বা সমমান ও উচ্চ মাধ্যমিক বা সমমান উভয় পরীক্ষায় আলাদাভাবে নূন্যতম জিপিএ ২.৭৫ পেতে হবে। কারিগরি শিক্ষা বোর্ড হতে ৪ (চার) বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা-ইন- ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে উত্তীর্ণদের মাধ্যমিক বা সমমান এবং ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং উভয় পরীক্ষায় চতুর্থ বিষয় সহ নূন্যতম মোট জিপিএ ৫.৮৫ থাকতে হবে। তবে মাধ্যমিক বা সমমান পরীক্ষায় নূন্যতম জিপিএ ২.৭৫ এবং ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং পরীক্ষায় নূন্যতম জিপিএ ২.৪০ থাকতে হবে।
আবেদন করতে হবে যেভাবে : আবেদন ফরম চিটাগাং ন্যাশনাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ওয়েব সাইট (িি.িপহবপবফঁ.পড়স) থেকে অথবা চ.বি.ওয়েব সাইট (িি.িপঁ.ধপ.নফ) থেকে ডাউনলোড করে অগ্রণী ব্যাংক চ.বি. শাখার অনুকূলে ডীন, ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ চ.বি. বরাবর ৬০০/- (ছয়শত) টাকার পে-অর্ডার ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদন পত্র ২২ আগস্ট ২০১৯ এর মধ্যে কলেজ ওয়েবসাইট িি.িপহবপবফঁ.পড়স এর মাধ্যমে অনলাইনে বা সরাসরি নির্ধারিত ফর্মে আবেদন করা যাবে। ভর্তির আবেদন ফরমের সাথে মাধ্যমিক বা সমমান এবং উচ্চ মাধ্যমিক বা সমমান পরীক্ষার ট্রান্সক্রিপ্টের সত্যায়িত ফটোকপি এবং ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং এর সকল পর্বের নম্বরপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি ও তিন কপি পাসপোর্ট সাইজের সত্যায়িত রঙিন ছবিসহ জমা দিতে হবে। ভর্তি পরীক্ষা ২৯ আগস্ট ২০১৯ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে সকাল ১০ টায় অনুষ্ঠিত হবে।
পরীক্ষার মানবন্টন : ভর্তি পরীক্ষায় লিখিত পরীক্ষার মান ৪০ নম্বর ও পাশ নম্বর ২০। এমসিকিউ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নেয়া হবে এবং পরীক্ষার সময়কাল ৩০ মিনিট। লিখিত পরীক্ষায় ইংরেজী, পদার্থ, রসায়ন ও গণিত প্রতি বিষয়ে পরীক্ষার মান ১০ নম্বর।
পরিশেষে নির্বাহী পরিচালক প্রকৌশলী এ. বি. এম আব্দুল ওয়াহেদ বলেন, ‘বাংলাদেশের অন্যতম গৌরব চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয় অনুমোদিত এই কোর্সে ৩য় ব্যাচে ভর্তি চলছে। প্রাইভেট বিশ^বিদ্যালয়গুলোর তুলনায় প্রায় অর্ধেক সেমিষ্টার ফি-তে লেখাপড়া করে সরকারী বিশ^বিদ্যালয়ের সনদপ্রাপ্তি নিঃসন্দেহে একটি সুবর্ণ সুযোগ।’
বিস্তারিত জানতে এয়াকুব ফিউচার পার্ক, প্লট নং-৫, দশতলা ভবন, নাসিরাবাদ পলিটেকনিক্যাল কলেজের পশ্চিম পাশের্^, খুলশী, চট্টগ্রাম এই ঠিকানায়, ভন/পযরঃঃধমড়হম হধঃরড়হধষ বহমরহববৎরহম পড়ষষবমব এবং ০১৮১৪-৩১০৬০৯,০১৮১৯-৬১০৫৮৯ ফোন নম্বরে যোগাযোগ করা যাবে।

The Post Viewed By: 664 People