চট্টগ্রাম রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ | ১:০৭ পূর্বাহ্ণ

শিশুশ্রম বন্ধে সমাজের ভূমিকা প্রসঙ্গে

শিশুরা আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। আজকের শিশু আগামী দিনের দেশ গড়ার কারিগর। সুস্থ ও সুন্দরভাবে বেড়ে ওঠা প্রতিটি শিশুর জন্মগত অধিকার। যে শিশু আগামী দিনে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব নেবে সেই শিশুরা আজ বঞ্চনার স্বীকার। কেউবা পারিবারিক ভাবে অস্বচ্ছলতার কারণে, কেউবা সচেতনতার অভাবে। অল্প বয়সেই কঠিন শ্রমের মধ্যে নিমজ্জিত হতে দেখা অনেক শিশুকে। বাসের হেলপারিতে, হোটেলের কঠিন কাজে, ইট ভাঙার কাজে, রিক্সা কিংবা অটো চালাতে প্রতিনিয়তই শিশুকে দেখা যায়। অথচ এ সমস্ত কাজ শিশুদের নয়। শিশুশ্রম আইনত নিষেধ থাকলেও সামাজিকভাবে আমরা শিশুশ্রমকে বৈধতা দিচ্ছি।

কারণ আমরাইতো একজন শিশুর রিক্সায় উঠে পথ চলছি, হোটেলের কাজে লাগিয়ে দিচ্ছি, বাসের হেলপারিতে পিচ্চি বলে ডাক দিচ্ছি, গৃহস্থলিতে শিশুকে কাজের লোক বানিয়ে রেখেছি। অথচ শিশুরা কখনই নিজ ইচ্ছায় কাজের মানুষ হতে চায় না। তারা বাধ্য হয়েই কাজে নেমে পড়ে। শিশুশ্রমের ব্যাপারে সমাজকে সচেতন করতে হবে। সমাজের মানুষের সচেতনতা বাড়াতে হবে। সামাজিকভাবে শিশুশ্রম বন্ধের প্রয়াস নিলেই শিশুশ্রম বন্ধ হতে বেশি দিন সময় লাগবে না। এ সমস্যা সমাধানে দেশের সরকার, সেচ্ছাসেবী সংগঠন, এনজিও ও সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। শিশুশ্রমকে না বলতে হবে। আশেপাশের সকল শিশুকে শ্রমে নয়, লেখাপড়ায় উদ্বুদ্ধ করতে হবে। তবেই আমরা শিশুশ্রমমুক্ত একটি দেশ পাবো।

মো. আজিনুর রহমান লিমন
নীলফামারী।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 144 People

সম্পর্কিত পোস্ট