চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

৮ নভেম্বর, ২০১৯ | ২:১০ পূর্বাহ্ন

মাহমুদ আহমদ

বিশ্বময় শান্তির সুবাতাস প্রবাহিত করাই ইসলামের লক্ষ্য

প্রথমেই আমাদেরকে জানতে হবে যে, ইসলাম শব্দের অর্থ কি। ইসলাম হচ্ছে এক আরবি পরিভাষা। এ শব্দের আভিধানিক অর্থ আনুগত্য করা, আত্মসমর্পণ করা, অনুগত হওয়া, কোন কিছু মাথা পেতে নেয়া। এ শব্দটি সালম, সিলম বা সিলমুন মূলধাতু থেকে উদ্ভুত হয়েছে। ইসলাম শব্দের মূলধাতু হচ্ছে ‘সালম’ যার এক অর্থ শান্তি, সন্ধি, সমর্পন ও নিরাপত্তা। যেহেতু আত্মসমর্পণের মাধ্যমে শান্তি ও নিরাপত্তা লাভ হয়, তাই একে ইসলাম বলা হয়। অন্য কথায়, ইসলামের অর্থ হচ্ছে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করে তার নির্দেশ মান্য করার মাধ্যমে ব্যক্তিগত ও সামাজিক জীবনে শান্তি ও নিরাপত্তা অর্জন করা। ধর্মের মূলতত্ত্ব নিহিত রয়েছে ‘ইসলাম’ শব্দটিতে। তাই ইসলাম বলতে বুঝায় আনুগত্য, বাধ্যতা ও আত্মসমর্পণ। ইসলাম গ্রহণ করার মাধ্যমে নিজেকে আল্লাহর কাছে সমর্পণ করতে হয়।

অতএব, ইসলামের মর্মকথা হলো মানুষের সর্বস্ব আল্লাহতায়ালার কাছে সোপর্দ করে দেয়া। তার সমস্ত শক্তি, তার যাবতীয় কামনা বাসনা, আশা-আকাক্সক্ষা, ভাবাবেগ, তার সমস্ত প্রিয় বস্তু, এক কথায় মাথার চুল হতে পায়ের আঙ্গুল পর্যন্ত সব কিছুকে আল্লাহতায়ালার কাছে সমর্পণ করার নামই হলো ইসলাম। কুরআনের ভাষায় ইসলাম মানে আল্লাহর ইচ্ছার কাছে আত্মসমর্পণ।
ইসলাম এবং সন্ত্রাস এ দু’টির ধর্ম সম্পূর্ণ ভিন্ন। ইসলাম শান্তির শিক্ষা দেয় আর সন্ত্রাস দেয় নৈরাজ্যের শিক্ষা। বিশ্বময় শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্যই আল্লাহপাক ইসলাম নামক ধর্মকে মনোনিত করেছেন। ইসলামে কোনো ধরণের সন্ত্রাসী কার্যকলাপের স্থান নেই। এমনকি অমুসলিমদের উপাসসনালয়েও কোনরূপ আক্রমণ চালানোকে ইসলাম কঠোরভাবে নিষেধ করেছে। শুধু তা-ই নয় বরং অমুসলিমরা যেসবের উপাসনা করে সেগুলোকেও গালমন্দ করতে আল্লাহপাক বারণ করেছেন। পবিত্র কোরআনে আল্লাহপাক বলেছেন ‘আল্লাহকে বাদ দিয়ে তারা যাদের উপাস্যরূপে ডাকে তোমরা তাদের গালমন্দ করো না। নতুবা তারা শত্রুতাবশত না জেনে আল্লাহকেই গালমন্দ করবে’ (সুরা আন আম, আয়াত: ১০৮)। এ আয়াতে শুধু প্রতিমা পূজারীদের সংবেদনশীলতার প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের জন্য নির্দেশ দান করা হয় নি বরং সকল জাতি এবং সকল সম্প্রদায়ের মাঝে বন্ধুত্ব এবং সৌহার্দ্য স্থাপনের জন্য উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে।

পবিত্র কোরআন পাঠে আমরা দেখতে পাই, মহান আল্লাহতায়ালা যখন আদম সৃষ্টির মহাপরিকল্পনা ঘোষণা করেছিলেন তখন ফিরিশতাগণ আল্লাহতায়ালাকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, ‘তুমি কি সেখানে এমন কাউকে সৃষ্টি করতে যাচ্ছো, যে সেখানে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবে আর রক্তপাত ঘটাবে? এর উত্তরে সর্বজ্ঞানী খোদা কেবল এটাই বলেছিলেন, ‘ইন্নি আ’লামু মালা তা’লামুন’ অর্থাৎ আমি তা জানি, যা তোমরা জানো না’ (বায়হাকী)। লক্ষণীয় বিষয় হলো, মহান আল্লাহ কিন্তু বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি বা রক্তপাতের কথা অস্বীকার করেন নি। সে কথার উল্লেখ না করে তার উত্তরে তিনি কেবল তার মহাজ্ঞানের আমরা আর এ বিষয়ে ফিরিশতাদের সীমাবদ্ধতা তুলে ধরেছিলেন।
ধর্মজগতের ইতিহাসে এক ঝলক ভাষাভাষা দৃষ্টি দিলে বাহ্যত: ফিরিশতাগণের কথাই ঠিক বলে মনে হবে। আপাত: দৃষ্টিতে মনে হবে, যেখানেই ধর্ম সেখানেই অশান্তি, যেখানেই ধর্ম সেখানেই বিগ্রহ ও নৈরাজ্য। কিন্তু না, একটু মনোযোগ দিয়ে গভীর দৃষ্টিতে দেখুন। দেখতে পাবেন, এই বিশৃঙ্খলা ও নৈরাজ্য ধার্মিকদের পক্ষ থেকে নয় আর আল্লাহর পক্ষ থেকে আগত সত্য ধর্মের অনুসারীদের পক্ষ থেকেও নয়। কিন্তু যারা সমাগত সত্য সুন্দর জ্যোতিকে অস্বীকার করে অন্ধকারের পূজারী হয়ে থাকতে চেয়েছে, যারা তাদের প্রচলিত ধ্যান-ধারণা ও গলিত মথিত সমাজ দর্শন পরিত্যাগ করতে চায় নি-এসব অরাজকতা ও সন্ত্রাস সব সময় সর্বযুগে তাদের পক্ষ থেকে পরিচালিত হয়েছে।

পবিত্র কোরআনের ঐশী বাণীটি ভালোভাবে পড়লেই বিভিন্ন স্থানে হজরত আদম (আ.) থেকে আরম্ভ করে শ্রেষ্ঠ নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) পর্যন্ত ইতিহাসের এই একই ধারার পুনরাবৃত্তি আমরা লক্ষ্য করবো। বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর পবিত্র জীবনী সবাইকে স্মরণ রাখতে হবে। তিনি সত্য প্রচার ও প্রসারের কারণে সারা জীবন মার খেয়েছেন, কিন্তু কারও প্রতি ধর্মের ক্ষেত্রে বলপ্রয়োগ করেন নি। বরং তার পক্ষ থেকে পরিচালিত সকল আত্মরক্ষামূলক যুদ্ধ ছিল সবার ধর্মীয় স্বাধীনতা নিশ্চিত করার জন্য। সুরা হজের দুটি আয়াত এ বিষয়ে স্পষ্ট নির্দেশনা দান করে। আল্লাহতায়ালা বলছেন, ‘যাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চাপিয়ে দেয়া হয়েছে তাদেরকে যুদ্ধ করার অনুমতি দেয়া হলো কেননা তারা অত্যাচারিত। আর নিশ্চয়ই আলাহ তাদের সাহায্যকল্পে পূর্ণ ক্ষমতাবান। যাদেরকে তাদের নিজ বাড়িঘর থেকে অন্যায়ভাবে শুধু এ কারণে বের করে দেয়া হয়েছে যে, তারা বলে, ‘আল্লাহ আমাদের প্রতিপালক প্রভু! আল্লাহ’র পক্ষ থেকে যদি মানুষের একদলকে মানুষের আরেক দল দিয়ে প্রতিহত না করা হতো তাহলে সাধু-সন্ন্যাসীদের মঠ, গীর্জা, ইহুদীদের উপাসনালয় (ধ্বংস করে দেয়া হতো) যেখানে আল্লাহ’র নাম অধিক পরিমাণে স্মরণ করা হয়। আর আল্লাহ অবশ্যই তাকে সাহায্য করেন যে তাঁকে সাহায্য করে। নিশ্চয়ই আল্লাহ মহাশক্তিধর ও মহাপরাক্রমশালী’ (সুরা আল হজ, আয়াত: ৩৯ ও ৪০)।

মদীনায় অবতীর্ণ উল্লেখিত আয়াত দু’টিতে স্পষ্টভাবে বলে দেয়া হয়েছে মহানবী (সা.)-এর অনুসারীরা দীর্ঘকাল মক্কার অত্যাচারিত নিপীড়িত থাকার পর

যখন তাদেরকে নিশ্চিহ্ন করার জন্য আবারও মক্কায় কাফেররা যুদ্ধ চাপিয়ে দিল কেবল তখনই আত্মরক্ষামূলক যুদ্ধ করার অনুমতি দেয়া হয়েছে। দ্বিতীয়ত, একথা বলা হয়েছে, কেবল মুসলমানদের ধর্মীয় স্বাধীনতা ও অধিকার রক্ষার্থে এই যুদ্ধ পরিচালিত হবে না। বরং মঠ, গীর্জা, মন্দির ও মসজিদ তথা সকল ধর্মের উপাসনালয় রক্ষার্থে আল্লাহ এ ব্যবস্থা নিয়েছেন। সকল ধর্মীয় ও বিবেকের স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠায় এর চেয়ে স্পষ্ট ঘোষণা আর কি হতে পারে!
যেখানে সন্ত্রাস বা জঙ্গিবাদ, সেখানে ইসলাম নেই। ইসলাম শান্তির ধর্ম। ইসলাম কল্যাণের ধর্ম। সারা পৃথিবীতে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্যই ইসলাম নামের ধর্ম আল্লাহতায়ালা এই পৃথিবীতে ইসলামের নবী, বিশ্ব নবী এবং সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ শরীয়তবাহী নবী হজরত মুহাম্মদ মোস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামকে শান্তির অমিয় বাণী দিয়ে পাঠিয়েছেন। অথচ মহানবী (সা.)-এর নামেই সমাজে করা হচ্ছে বিশৃঙ্খলা।

ইসলাম ধর্মে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের কোন স্থান নেই। যারা সামাজিক পরিমন্ডলে বিশৃংখল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায়, ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করতে চায়, রক্তপাত ঘটায়, ধ্বংস যজ্ঞ এবং নৈতিকতা বর্জিত ইসলামিক কর্মকা- চালায় তারা কখনো শান্তির ধর্ম ইসলামের অনুসারী হতে পারে না। শ্রেষ্ঠ নবীর উম্মত হওয়ার দাবি সবাই করতে পারে, কিন্তু কার্যকলাপে শ্রেষ্ঠত্ব না দেখালে তারা কখনো প্রকৃত ইসলামের অনুসারী বলে আল্লাহর কাছে গ্রহণীয়তার মর্যাদা পাবে না। কোনো ধর্মের উপাসনালয় বা ঘরবাড়ি জালিয়ে দেয়ার শিক্ষা ইসলামে নেই। ইসলাম ধর্মের মাহাত্ম্য ও শ্রেষ্ঠত্ব হলো, ইসলাম প্রত্যেক মানুষকে ধর্মীয় স্বাধীনতা প্রদান করে। এই স্বাধীনতা কেবল ধর্মবিশ্বাস লালনপালন করার স্বাধীনতা নয় বরং ধর্ম না করার বা ধর্ম বর্জন করার স্বাধীনতাও এই ধর্মীয় স্বাধীনতার অন্তর্ভুক্ত। পবিত্র কোরআনে আল্লাহতায়ালা বলেছেন, ‘তুমি বল, তোমার প্রতিপালক-প্রভুর পক্ষ থেকে পূর্ণ সত্য সমাগত, অতএব যার ইচ্ছা সে ঈমান আনুক আর যার ইচ্ছা সে অস্বীকার করুক’ (সুরা কাহাফ, আয়াত: ২৮)।

বর্তমানে সারা বিশ্বের যে অবস্থা তা দেখে মনে হয় শান্তির ধর্ম ইসলাম আর শান্তিতে নেই। যেখানেই সন্ত্রাসী কর্মকা- সংঘটিত হচ্ছে, সেখানেই দোষ দেয়া হচ্ছে ইসলামের ওপর। মুসলমানদেরকে মনে করা হচ্ছে সন্ত্রাসী আর ইসলামকে বলা হচ্ছে সন্ত্রাসী ধর্ম, অথচ ইসলাম শান্তির ধর্ম। ধর্মের নামে বোমা মেরে মানুষ হত্যা করা, রক্তপাত ঘটানো, এসব শান্তির ধর্ম ইসলামে নেই। তাই যারা সন্ত্রাসী কার্যকলাপ পরিচালনা করে এই শান্তির ধর্মের বদনাম করছেন তাদের শুভবুদ্ধির উদয় হোক এই কামনা করছি। আল্লাহতায়ালা আমাদের সকলকে প্রকৃত ইসলাম বুঝার ও সে মোতাবেক নিজেদের জীবন পরিচালিত করার তৌফিক দান করুন, আমিন।

মাহমুদ আহমেদ ইসলামী গবেষক ও কলাম লেখক

The Post Viewed By: 90 People

সম্পর্কিত পোস্ট