চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

১১ অক্টোবর, ২০১৯ | ১:০০ পূর্বাহ্ণ

অধ্যক্ষ এম সোলাইমান কাসেমী

শুদ্ধসমাজ প্রতিষ্ঠায় বৈধ উপার্জনের বাধ্যবাধকতা

মহান আল্লাহ মানব জাতিকে সৃষ্টি করে তাদের প্রদান করেছেন যথার্থ পথনির্দেশনা। আল্লাহ তায়ালা বলেন ‘আমি প্রতিটি জাতির জন্যই রাসুল প্রেরণ করেছি।’ [আল কুরআন] মহাগ্রন্থ আল কুরআন অবতরণের মাধ্যমে মুহাম্মদ (সা.) এর দ্বারা মানবজাতিকে প্রদান করা হয় পূর্ণাঙ্গ এক জীবনব্যবস্থা। তাদের জন্য করণীয়-বর্জনীয় সব কিছুর স্পষ্ট বর্ণনা রয়েছে তাতে। সৃষ্টির মন্দ এবং ভালো সম্পর্কে আল্লাহ সর্বাধিক পরিজ্ঞাত। সৃষ্টির জন্য কল্যাণকর বিষয়কে তিনি বৈধ করেছেন আর অকল্যাণকর বিষয়কে করেছেন অবৈধ। হারাম ইসলামি শরিয়তের একটি পরিচিত পরিভাষা। অর্থ অবৈধ, নিষিদ্ধ, অননুমোদিত। ইসলামি শরিয়তের পরিভাষায় যে সব বিষয়ের নিষেধাজ্ঞা সম্পর্কে অকাট্য দলিল রয়েছে তাকে হারাম বলে। প্রতিটি ক্রিয়ারই কোনো না কোনো প্রতিক্রিয়া রয়েছে। হারামও এর ব্যতিক্রম নয়। ব্যক্তি ও সমাজজীবনে হারামের বিস্তৃত প্রভাব রয়েছে। মন্দখাদ্য খেলে শরীরে যেমন মন্দপ্রভাব দেখা যায়, ব্যক্তি ও সমাজ জীবনে হারামেরও তেমন মন্দপ্রভাব রয়েছে।

সাধারণত মানুষ যে সব হারামে লিপ্ত হয় তা হলো, খাদ্য গ্রহণ, উপার্জন ও হারাম কাজ সম্পাদন। হারামখাদ্য গ্রহণের দ্বারা মানবমনে সৎ কাজের ইচ্ছা হ্রাস পায় এমন পাপ কাজের আকাক্সক্ষা সৃষ্টি হয়। হারাম কাজ করার দ্বারা ব্যক্তির লজ্জাশীলতা হ্রাস পায়। মন থেকে আল্লাহভীতি কমে যায়। সমাজে অনিষ্টের সৃষ্টি হয়। পরকালীন শাস্তির উপযুক্ত হতে হয়। মানবজীবনে হারামের যে সব দিক রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম হলো হারাম উপার্জন। ব্যক্তি যদি হারাম উপার্জন করে তাহলে সে স্বাভাবিকভাবেই হারাম আহার করে। হারাম পরিধান করে। আর এ সম্পর্কে ইসলামে কঠোর হুশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়েছে।

হারাম কাজ করার মাধ্যমে আল্লাহ ও তার রাসুল (সা.) এর বিরুদ্ধাচারণ করা হয়। প্রত্যেক মুসলমানের জন্য হালাল উপার্জন করা ওয়াজিব। এ সম্পর্কে রাসুল (সা.) বলেন, ‘নিশ্চয় হালাল স্পষ্ট এবং হারাম স্পষ্ট। এ দু’টির মাঝে সন্দেহযুক্ত বিষয় আছে অনেক লোক তা জানে না। যে সন্দেহযুক্ত জিনিস থেকে বেঁচে থাকবে সে তার দিন এবং সম্মানকে ত্রুটিমুক্ত রাখলো। আর যে সন্দেহযুক্ত জিনিসের মধ্যে পতিত হলো সে হারামের মধ্যে পতিত হলো। ওই রাখালোর ন্যায় যে সংরক্ষিত এলাকার নিকট চারণ করে আশঙ্কা আছে তার মধ্যে ঢুকে পড়ার। সাবধান! প্রত্যেক বাদশাহ একটি সংরক্ষিত এলাকা আছে, জেনে রাখ! আল্লাহ তায়ালার সংরক্ষিত এলাকা হলো তার হারাম করা বিষয়, জেনে রাখ! শরীরের মধ্যে একটি মাংসপি- আছে।’ [বুখারি ও মুসলিম] যদি কেউ এ সম্পর্কে না জানে তাহলে তার জ্ঞানীদের নিকট থেকে জেনে আমল করা ওয়াজিব। আল্লাহ বলেন, ‘সুতরাং জ্ঞানীদের জিজ্ঞেস কর, যদি তোমরা না জানো।’ [সূরা নাহল: ৪৩] হারামখাদ্য দ্বারা গড়া শরীর কখনোই জান্নাতে প্রবেশ করবে না। জান্নাতে প্রবেশ করার ক্ষেত্রে হারাম অনেক বড় একটি প্রতিবন্ধক। এ বিষয়ে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘আর যে দেহ হারাম খাদ্য দ্বারা গড়ে ওঠে তার জন্য দোজখের আগুনই উত্তম। [জামিউস সগির: ৮৬৪৮] হারাম উপার্জনের দান আল্লাহ কবুল করেন না। অনেকে হারাম সম্পদ উপার্জন করে পাপমোচনের আশায় দান খয়রাত করে থাকেন। হারাম উপার্জনের দানে সাওয়াব হওয়া তো দূরের কথা এ দান আল্লাহ তায়ালা কবুল করেন না। হযরত আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুলূল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘আল্লাহ তায়ালা পবিত্রতা ছাড়া কোনো সালাত কবুল করেন না, আর হারাম উপার্জনের দানও আল্লাহ তায়ালা কবুল করেন না।’ [ইবনে খুজাইমাহ: ১০] হারাম উপার্জনের দ্বারা সমাজে জুলুম অত্যাচারের দ্বারা উন্মোচিত হয়। যেমন ঘুষ নেয়া হারাম। এর দ্বারা স্পষ্টভাবে সৃষ্টির উপর জুলুম করা হয়।

বর্তমানে হারাম উপার্জনের আরেকটি মাধ্যমে হলো সুদ। ইসলামে এটি একটি জঘন্য অপরাধ। পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তায়ালা পরিষ্কারভাবে সুদকে হারাম করেছেন। সুদ না ছাড়লে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হওয়ার কথা বলেছেন। হাদিসে রাসুল (সা.) সুদ গ্রহণ করাকে নিজের মায়ের সাথে ব্যভিচারে লিপ্ত হওয়ার থেকেও নিকৃষ্ট বলেছেন। সুদ এমন এক হারাম যা সমাজের অর্থনীতিকে পঙ্গু করে দেয়। অভাবীকে আরো অভাবী করে। আর ধনীকে করে আরও ধনী। এর মাধ্যমে এক শ্রেণির লোক নির্বিচারে শোষিত হয় আরেক শ্রেণির লোক বিনা পরিশ্রমে সম্পদের পাহাড় গড়ে তোলে। হারাম উপার্জনের দ্বারা ব্যক্তির মধ্যে অতৃপ্তির সৃষ্টি হয়। দিন দিন তার মাঝে সম্পদের চাহিদা বাড়তে থাকে। আমরা দেখতে পাই, যে ব্যক্তি হারাম পন্থায় সম্পদ উপার্জন করে লোভ-লালসা তার মনের মধ্যে অনেক বেশি বাসা বাঁধে। সে মনে কখনো শান্তি পায় না। সব সময় কৃপণতা করে।

তাদের হাত ভর্তি কিন্তু মন খালি। মানুষ তাদের সম্পর্কে বলে, ধনীরা গরিবদের সম্পদের প্রতি বেশি লোভাতুর হয়। কেননা হাদিসের ভাষায় তারা হলো এমন যে, খাবার গ্রহণ করে তবে তাদের পেট ভরে না। আর যে সুদের কারবারের মধ্যে পড়ে যায়, সে তার থেকে তওবা করে না। ফলে সুদ গ্রহণ করা থেকে তার মধ্যে অনুশোচনা আসে না। আর যে ব্যক্তি মানুষের সম্পদ অন্যায়ভাবে ভক্ষণ করে, অন্যায় কাজ তার জন্য সুন্দর করে দেখানো হয়। সে নিজে সেটিকে ভালো মনে করে। ফলে কোনো বাহানা বা ষড়যন্ত্র করতে ত্রুটি করে না। আমরা দেখতে পাই, তাদেরকে যারা মানুষের সাথে ধোঁকাবাজি করে মিথ্যার আশ্রয় নেয়, অথবা শুনতে পাই তাদে সম্পর্কে যারা কোনো কাজ করে দিয়ে তার পরিবর্তে ঘুষ নেয় অথবা জমির দালালি করে পয়সা নেয় তাদের এই হারাম উপায়ে অর্জন করতে অন্তর কাঁপে না। তারা মানুষের ন্যায্য অধিকার দিতে কার্পণ্য করে শ্রমিকের মজুরি ঠিকমতো দেয় না। আল্লাহ তায়ালার নিষিদ্ধ পথে কখনোই শান্তি, নিরাপত্তা মিলতে পারে না। পরকালীন এবং ইহকালীন উভয় জীবনেই হারাম ব্যাপক ক্ষতিকর প্রভাব বিস্তার করে। সবশেষে সেই দোয়া করি যা রাসুল (সা.) করেছেন- ‘হে আল্লাহ! হারাম থেকে বাঁচিয়ে হালাল আমাদের জন্য যথেষ্ট করে দিন। গুনাহ থেকে বাঁচিয়ে আনুগত্য যথেষ্ট করে দিন। আপনি অনুগ্রহ করে আমাদের মুখাপেক্ষীহীন করে দিন।’ আমিন।

ি অধ্যক্ষ এম সোলাইমান কাসেমী ইসলামী গবেষক ও প্রাবন্ধিক

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 413 People

সম্পর্কিত পোস্ট