চট্টগ্রাম সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৯ আগস্ট, ২০১৯ | ১২:৩২ এএম

শালবনকে পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে দেখতে চাই

শালবন লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্দা উপজেলার একটি সংরক্ষিত বনাঞ্চল। স্থানীয়ভাবে এটি শালবন নামে সবার কাছে পরিচিত। এ শালবনটির আয়তন ১৯৯ একর। জমিদারি প্রথার সময় গড়ে ওঠা এ শালবনের ইতিহাস কারো জানা না থাকলেও ১৯৫০ সালে জমিদারি প্রথা উচ্ছেদের ফলে এ বনটি সরকারের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। ঐতিহ্যবাহী এ শালবনে শীতকালসহ বছরের অন্যান্য সময় হাজার হাজার পাখির সমারোহ ঘটে থাকে। এ বনের উল্লেখযোগ্য পাখির মধ্যে দোয়েল, কোয়েল, শ্যামা, ময়না, চড়ুই, কাক, কাকাতুয়া, টিয়া, শালিক, ঘুঘু, বক ও মাছরাঙা ইত্যাদি। এ ছাড়াও রয়েছে বিষধর নানা প্রজাতির সাপ, শৃগাল, বনবিড়াল ও বেজি ইত্যাদি। সবুজ ছায়াঘেরা বনটির অপরূপ দৃশ্য দেখার জন্য প্রতিদিন শত শত পর্যটকের আগমন ঘটে এখানে। এ বন সংরক্ষণের অভাবে চুরি হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ এবং পাখি শিকারিদের হাতে ধরা পরছে নানা প্রজাতির পাখি। বনটিতে বনভোজন কেন্দ্র ও পর্যটকদের ভ্রমণের জন্য উপযোগী করে গড়ে তুললে একদিকে যেমন শালবনটি সংরক্ষিত হতো, অন্যদিকে সরকার আয় করতে পারতো প্রচুর রাজস্ব। বনটিকে সংরক্ষণ, ও পর্যটকদের ভ্রমণের উপযোগী করে গড়ে তোলার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

নুরুজ্জামান মাহমুদ বায়জিদ
ঢাকা।

The Post Viewed By: 90 People