চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ০৪ মার্চ, ২০২১

২৮ জুলাই, ২০১৯ | ১:১৭ পূর্বাহ্ণ

সফিউল্লাহ আনসারী

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য। মানুষের জীবনের সহযোগিতার প্রয়োজন হয় বিপদের সময়। সারাদেশের বিভিন্ন জেলা বন্যাদুর্গত অবস্থা। দুর্গত এলাকায় গৃহহীন অসংখ্য মানুষ একটু আশ্রয়, খিদে নিবারণের জন্য খাদ্য, জীবন বাঁচাতে ঔষধ আর নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর জন্য অপেক্ষায় নির্ঘুম রাত আর কষ্টকর দিন পার করছে। এই বিপদের দিনে অসহায় বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়িয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়া মানুষ হিসেবে আমাদের কর্তব্য। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমের বাংলাদেশের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়।
তখন বিশেষ করে খেটে খাওয়া অসহায় মানুষগুলো যন্ত্রণাময় সময় পার করে। জীবন বাঁচাতে অসহনীয় দুর্ভোগ পোহায়। এ সময় সারা দেশ থেকে সামর্থবান ব্যাক্তি ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ত্রাণ নিয়ে এসব দুর্গতদের পাশে দাঁড়ায়।
বন্যাদুর্গতদের সহযোগিতায় মানুষ হিসেবে মানুষের বিপদের সময় পাশে থেকে সহযোগিতা করাই মানুষের ধর্ম হওয়া উচিত। একটু সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলে যদি একটি প্রাণ বাঁচে। একজন মানুষ বাঁচার স্বপ্ন দেখে, আর সেই সহযোগিতাতেই হয়তো জীবনের সার্থকতা খুঁজে পাওয়া সম্ভব। সামান্য পরিমাণ আর্থিক সহযোগিতা একসাথে করে ওদের হাতে পৌঁছে দিলে হয়তো সাময়িকভাবে তারা জীবন ধারণের স্বপ্ন দেখতে পারে। বাংলাদেশের মানুষ হিসেবে আমরাই পারি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে।
আমাদের দেশে বিভিন্ন সময় প্রাকৃতিক দুর্যোগ দেখা দেয়। এসব দুর্যোগ কখনো ব্যাপক আকার ধারণ করে। তখন আমাদের সমাজের কিছু মানুষ বিপদ সঙ্কুল পরিবেশে পতিত হয়ে অসহায় হয়ে জীবন বাঁচাতে হতাশায় পড়ে একটু সহানুভুতির আশায় দিন গুণে। ঠিক তখনি প্রয়োজন অসহায় মানুষগুলোর সহযোগিতার। বর্তমানে বাংলাদেশের অনেক নিম্নাঞ্চল প্রবল বন্যায় প্লাবিত হয়ে জনজীবন বিপর্যস্থ হয়ে পড়ে। বন্যার পানিতে বসতবাড়ি নিমজ্জিত, চারদিকে পানি আর পানি, খাবার তো দূরের কথা নিরাপদ আশ্রয়টুকুই মানুষের জন্য অপ্রতুল হয়ে পড়ে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে পানিবন্দি মানুষের মাথা গোজার ঠাঁই টুকুও না পেয়ে দুর্বিসহ সময় পার করে। দুর্গতদের সাহায্যার্থে এ অবস্থায় সরকারী সহযোগী প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে পৌঁছে। সরকারের পক্ষ থেকে নানাভাবে দুর্গতদের খাবার-পানি-বাসস্থানের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। অথচ এই সহযোগিতা সবাই প্রয়োজন অনুসারে পাচ্ছে না।
এ অবস্থায় বন্যাদুর্গতদের পাশে দল-মত, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে এগিয়ে আসা অতীব জরুরি। মানবিক মূল্যবোধ থেকে আমাদের এই সহযোগিতা করা সময়ের দাবি।
মানুষ মানুষের জন্যই, মানবতার দুর্দিনের তাদের পাশে থেকে বিপদমুক্ত করার। বিপদে-আপদে, সমস্যা-সংকটে ছুটে এসে সাহায্য করার জন্য, পাওয়ার জন্য প্রত্যাশা মানুষ মাত্রই করার অধিকার রাখে। মানবজীবনের সম্পূর্ণতা আর আত্মতৃপ্তির জন্য সমাজের অসহায়-পীড়িতদের জন্য কিছু করা দরকার। আমাদের সবারই সুযোগ রয়েছে মানবসেবায় নিজেকে নিয়োজিত করে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলার। নিজের একটু সহানুভূতি বা সাহায্য পীড়িত মানুষের জীবনকে বাঁচাতে পারে।
তাই দুর্গদের সহায়তায় সকলের এগিয়ে আসা জরুরী।
আমি, আপনি, সে এভাবেই সকলেই এগিয়ে আসতে পারি বন্যাদুর্গতদের সহযোগিতায়। বিপদে পড়া পীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারি একটু সদিচ্ছাতেই। দেশবাসী হিসেবে আসুন বন্যা দুর্গতদের পাশে এসে একটু সাহায্যের হাত প্রসারিত করি। ভূপেন হাজারিকার সেই অমর গানের মতোই…
মানুষ মানুষের জন্য/জীবন জীবনের জন্য
একটু সহানুভূতি কি মানুষ পেতে পারে না/ও বন্ধু…
মানুষ যদি সে না হয় মানুষ/দানব কখনো হয় না মানুষ
যদি দানব কখনো বা হয় মানুষ লজ্জা কি তুমি পাবে না?…
হ্যাঁ মানুষ মানুষের জন্য আর জীবন জীবনের জন্য। এই মূলমন্ত্রকে ধারণ করে বন্যাদুর্গত মানুষের সহযোগিতায় তাদের পাশে দাঁড়াই…।

লেখক : গণমাধ্যমকর্মী

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 351 People

সম্পর্কিত পোস্ট