চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১১ জুলাই, ২০১৯ | ১২:৫৭ পূর্বাহ্ণ

মাসুম খান

ধর্মীয় উৎসবকে কেন্দ্র করে বাড়তি ভাড়া আদায় কেন?

আমাদের দেশ সম্প্রীতিতে ভরপুর একটি দেশ। যেখানে সবাই মিলেমিশে বসবাস করি পরম সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে। উৎসবমুখর পরিবেশে পালন করি নিজ নিজ ধর্ম। ধর্মীয় উৎসবগুলোতে সকল ধর্মের লোকজনের উপস্থিতিতে হয়ে ওঠে আনন্দময় ।
তবে আমরা যারা শহরে বা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকি তারা কিন্তু ধর্মীয় উৎসবগুলো পালনের জন্যে নাড়ীর টানে ছুটে চলি নিজ নিজ গ্রামে। আর সেই উৎসবকে কেন্দ্র করে বাড়ি ফেরার সময় আমরা যারা মধ্যবিত্ত ও নি¤œবিত্ত আছি তাদের দুশ্চিন্তার অন্যতম কারণ অতিরিক্ত গাড়ি ভাড়া। ধর্মীয় উৎসবকে পুঁজি করে গাড়ি ভাড়া বাড়াতে যেন ওৎ পেতে থাকে পরিবহন সেক্টরের লোকজন। যদিও আশার বাণী হচ্ছে, এই বছর বাড়তি ভাড়া আদায়ের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সে ছিল সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। তবুও সম্প্রতি হিন্দু ধর্মের রথযাত্রা উৎসবকে পুঁজি করে মহানগরীর কয়েকটি রুটে অতিরিক্তি ভাড়া আদায় করেছে গণপরিবহনগুলো। বাড়তি ভাড়া আদায়ের প্রতিবাদ করায় হেনস্তার শিকার হয়েছেন অনেক যাত্রী সাধারণ। এ যেন এক অসহায় নাগরিকদের জনজীবনের নিয়মিত চিত্র।
বাড়তি ভাড়া গোনা থেকে বাদ যায় না সকল ধর্মীয় উৎসবে বাড়ি ফেরা লোকজন। আদায় করতে হয় নির্দিষ্ট ভাড়া থেকে দুইগুণ বেশি ভাড়া। অনেকসময় সেটা হয়ে যায় কয়েকগুণ বেশি।
এখন প্রশ্ন হচ্ছে, ধর্মীয় উৎসবে কেন বেশি ভাড়া গুণতে হবে আমাদের? অনেকেই বলবেন অভিযোগ পেলেই নির্দিষ্ট প্রশাসনতো অভিযান চালাচ্ছে। হ্যাঁ আমিও একমত। তারপরেও কেন থামছেনা ভাড়া নৈরাজ্য ?
ধর্মীয় উৎসবে বাড়তি ভাড়া আদায়কারীদের নৈরাজ্য থেকে বাঁচতে হলে প্রথমে আমাদের সচেতন হতে হবে। সচেতনতার মাধ্যমে নৈরাজ্যকারীদের তথ্য প্রশাসনের কাছে সরবরাহ করে তাদেরকে থামাতে হবে। তাহলে, শৃংখলা ফিরবে পরিবহন খাতে। তবেই, নির্বিঘœ ও উৎসব মুখর হবে আমাদের প্রতিটি ধর্মীয় উৎসব।

The Post Viewed By: 176 People

সম্পর্কিত পোস্ট