চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

সর্বশেষ:

২২ জানুয়ারি, ২০২০ | ৪:০৬ পূর্বাহ্ণ

কায়সার হামিদ মানিক, উখিয়া

বিব্রতকর মেঘ বৃষ্টি কিছুই নেই, সড়ক সয়লাব নোংড়া পানিতে

কক্সবাজার-টেকনাফ সড়ক

উখিয়া উপজেলার মরিচ্যা গরু বাজার সংলগ্ন সুলতানিয়া আজিজুল উলুম মাদ্রাসার মলমূত্র ও ওজুর পানিতে একাকার হয়ে গেছে কক্সবাজার-টেকনাফ সড়ক।

ওই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন চলাচল করে হাজার হাজার গাড়ি এসব গাড়ির চাকার ঝাপটায় ময়লাযুক্ত প্র¯্রাবের পানি পথচারীদের গায়ে এসে পড়ার কারণে কাপড়-চোপড় নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি তাদের বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। তাছাড়াও সড়কে চলমান গাড়ির যাত্রী সাধারণকেও পড়তে হচ্ছে চরম বিপাকে।

সরেজমিনে দেখা যায়, মরিচ্যা গরু বাজারে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী সুলতানিয়া আজিজুল উলুম মাদ্রাসায় রয়েছে শতাধিক ছাত্র এবং রয়েছে মসজিদ। প্রতিদিন শতশত মুসল্লির ওজুর পানি, প্র¯্রাবখানার পানি ও গোসলসহ নিত্য ব্যবহারিক পানি নিষ্কাশনের কোন সুব্যবস্থা না থাকায় গড়িয়ে গড়িয়ে নেমে আসছে ব্যস্ততম সড়কে। বিগত দিনে মাদ্রাসার ব্যবহারের পানি সড়কে লাগোয়া একটি ড্রেন দিয়ে পূর্ব পাশের পতিত জমির দিকে চলে যেত। সম্প্রতি কক্সবাজার-টেকনাফ মহাসড়কের পুনঃসংস্কার কাজ চলার কারণে উক্ত ড্রেনটি ভেঙে দিয়েছে সওজ। বর্তমানে সেখানে ড্রেনের কোন অস্তিত্ব নেই। যার কারণে গরু বাজার সংলগ্ন সড়কে এ নাজুক অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

এ ব্যাপারে এলাকার ইউপি সদস্য এম মনজুর আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমার নজরে এসেছে, মানুষ ওই ময়লা পানির কারণে সড়ক দিয়ে চলাচল করতে যে সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে সেই বিষয়ে আমি শীঘ্রই মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের সাথে বসে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করবো। আশা করি আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ওইসব ময়লা পানি নিষ্কাশনের জন্য বিকল্প ড্রেনেজ ব্যবস্থা করা হবে। এদিকে একটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা কমিটির সদস্যদের দায়িত্বহীনতাকে দায়ী করেছে সচেতন মহল। তাদের চোখের সামনে প্রতিদিন পথচারী জনসাধারণ দুর্ভোগের শিকার হলেও কারো কোন মাথাব্যথা নেই। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহোদয়ের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তভোগী পথচারীগণ।

The Post Viewed By: 39 People

সম্পর্কিত পোস্ট