চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০২০

সর্বশেষ:

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৪:২৮ পূর্বাহ্ন

পূর্বকোণ প্রতিনিধি, রাঙামাটি

পাহাড়ি-বাঙালির স্বার্থ রক্ষা

‘পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ’র আত্মপ্রকাশ

রাঙামাটি @ দুই মাসের মধ্যেই গঠন করা হবে পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রীয় কমিটি, তিন পার্বত্য জেলাসহ প্রত্যেক উপজেলা কমিটি

পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত নিপীড়িত ও বঞ্চিত পাহাড়ি বাঙালি সবার স্বার্থ এবং দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় ঐক্যবদ্ধ থাকার মানসে ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ’ নামে গঠিত হয়েছে নতুন একটি আঞ্চলিক সংগঠন। ইতিপূর্বে আন্দোলনরত পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ, পার্বত্য চট্টগ্রাম সম-অধিকার আন্দোলন, পার্বত্য নাগরিক পরিষদ, পার্বত্য অধিকার ফোরামসহ কয়েকটি সংগঠন বিলুপ্ত ঘোষণা করে এসব সংগঠন একীভূত হয়ে আনুষ্ঠানিক আত্মপ্রকাশ ঘটল সংগঠনটির। ১২ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) সকাল ১১টায় রাঙামাটি পৌরসভা সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

এ সময় বলা হয়, মূল সংগঠন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ ছাড়াও ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ’ ও ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা পরিষদ’ নামে আরও দুই অঙ্গ সংগঠন থাকবে। বিলুপ্ত ঘোষণা করা পার্বত্য নাগরিক পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার আলকাছ আল মামুন ভূঁইয়া, পার্বত্য চট্টগ্রাম সম-অধিকার আন্দোলনের মহাসচিব মনিরুজ্জামান মনির, খাগড়াছড়ি পৌরসভার মেয়র মো. রফিকুল আলম, বাঘাইছড়ি পৌরসভার সাবেক মেয়র ও পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. আলমগীর কবির, পার্বত্য গণ-পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট পারভেজ তালুকদারসহ তিন পার্বত্য জেলা হতে মোট ৪২ সদস্য নিয়ে গঠিত হয়েছে স্টিয়ারিং কমিটি। এ কমিটি দিয়ে সামনে দুই মাসের মধ্যেই গঠন করা হবে পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রীয় কমিটি এবং তিন পার্বত্য জেলাসহ প্রত্যেক উপজেলা কমিটি।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন, এডভোকেট পারভেজ তালুকদার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, আলমগীর কবির, আবু বক্কর ছিদ্দিক, আবুল কাইয়ুম, জামাল উদ্দিন, কাজী মো. জালোয়া, হাবিবুর রহমান হাবীব, রুপ কুমার চাকমাসহ অন্য নেতারা। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন, মনিরুজ্জামান মনির।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, পার্বত্য চট্টগ্রাম নিয়ে বিদ্যমান নানা ষড়যন্ত্র অনন্তকাল ধরে চলতে দেয়া যায় না। ক্ষুদ্র জাতিসত্তাগুলোকে সংখ্যাগরিষ্ঠ পাহাড়িদের হাতে বলির পাঁঠা হতে দেয়াও গ্রহণযোগ্য নয়। তাই সময় এসেছে পাহাড়ি-বাঙালি ভেদাভেদ ভুলে ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার। এমন অভিন্ন লক্ষ্যে এ সংগঠনটির প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয় ১৩ নভেম্বর চট্টগ্রামে। এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু ৫ ডিসেম্বর ঢাকা জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে। এর পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয় ৭ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে। সর্বশেষ ১২ ডিসেম্বর রাঙ্গামাটি পৌরসভা সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের মধ্য দিয়েই সংগঠনটির আনুষ্ঠানিক আত্মপ্রকাশ ঘটল।
সংবাদ সম্মেলনের পর রাঙামাটি পৌরসভা চত্বর হতে একটি আনন্দ মিছিল বের করে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

The Post Viewed By: 59 People

সম্পর্কিত পোস্ট