চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০২০

সর্বশেষ:

১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৫:৩৮ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক

ওরা খবরের ফেরিওয়ালা

ভোরের আলো ফুটতেই দুই শতাধিক হকার বাইসাইকেল নিয়ে হাজির হয় নগরীর জামালখান চেরাগীর মোড়ে। শীত-গ্রীষ্ম কিংবা বর্ষা। একদিন নয়। এ দৃশ্য প্রতিদিনের। খবরের এ ফেরিওয়ালারা প্রতিদিন ৪০ হাজারের অধিক পাঠকের কাছে পৌছে দিচ্ছে পত্রিকা। টানা ২৮ বছরের বেশী সময় ধরে চেরাগীমোড়ের হকারদের এ কাজ চলছে নিত্যদিন। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোর পাঁচটায় সরেজমিন গিয়ে দেখাযায় চেরাগীর মোড়ে গলির ভেতরে সারি করে রাখা হয়েছে কয়েক’শ বাইসাইকেল। হকারদের কেউ সড়কের পাশে আবার কেউ ফুটপাতে বসে ব্যস্ত পত্রিকা গোছাতে। এ ফাঁকে আবার অনেকে পত্রিকার পাতায় চোখ রেখে মেতে উঠছেন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক বাকবিতন্ডায়। হকাররা জানান, ভোরের আলো ফোটার আগেই ঢাকার পত্রিকা বহনকারি বাস পৌছে চেরাগীর মোড়ে। এরপর থেকে শুরু হয় চাহিদা অনুযায়ী পত্রিকা সংগ্রহের পালা। ভোর ছয়টা থেকে সাতটার মধ্যেই পাঠকের দোরগোড়ায় পৌঁছানো হয় পত্রিকা।

যাত্রা যেভাবে শুরু : কুমিল্লার দেবিদ্বার থানার বাসিন্দা মকবুল হোসেন সরকার চট্টগ্রামে আসেন ১৯৭৮ সালে। মামা নুর মোস্তফার হাত ধরে ১৪ বছর বয়স থেকে পত্রিকার হকারের পেশায় জড়িয়ে যান মকবুল। এখনো জড়িয়ে আছেন হকারদের সাথে। মকবুল সরকার বলেন, ৭৭-৭৮ সালে ঢাকা থেকে পত্রিকা আসতো বিমানে। আগ্রাবাদ ও আন্দরকিল্লায় সেই সময় পত্রিকার এজেন্ট ছিলো। পরবর্তীতে কেসিদে রোড থেকে বিলি করা হতো পত্রিকা। এরমধ্যে মধ্যস্বত্বভোগীদের হয়রানিতে অতিষ্ঠ হয়ে ১৯৮৫ সালে ১৫ জন হকার নিয়ে গঠন করা হয় চিটাগাং সংবাদপত্র হকার্স বহুমুখী সমবায় সমিতি লিঃ। আটমাস আন্দোলনের পর মনির আহমদের নেতৃত্বে চট্টগ্রাম সংবাদপত্র হকার্স ইউনিয়ন (১২০৯) পুনরায় প্রতিষ্ঠিত করা হয়।
মকবুল হোসেন বলেন, ১৯৮৫ সালে পরিচয় হয় দৈনিক পূর্বকোণের প্রতিষ্ঠাতা মরহুম ইউসুফ চৌধুরীর সাথে। ৮৬ সালে তিনি পূর্বকোণ প্রকাশ করেন। মধ্যস্বত্বভোগীদের হয়রানির জের ধরে ১৯৮৭ সালের ১৯ আগস্ট থেকে চেরাগীমোড়ে পত্রিকা বিপণনের কাজ শুরু হয়। আমরা মাথায় বহন করে পূর্বকোণ পত্রিকা বিক্রি করতাম। পত্রিকার মালিক হলেও ইউসুফ চৌধুরী আমাদের সাথে সময় কাটাতেন- বিভিন্ন পরামর্শ দিতেন। হকারদের সংগঠিত থাকার পরামর্শ দিতেন তিনি। প্রতিদিন ভোরে শত শত হকার চেরাগীর মোড় থেকে সংগ্রহ করা পত্রিকা পৌঁছে দেয় নগরীর পাঠকের কাছে। ৪০ হাজারের বেশী পত্রিকা প্রতিদিন বিলি হয় এখানে। এখানে সবাই এজেন্ট সবাই হকার। ভোর থেকে হকারদের পত্রিকা সংগ্রহের প্রতিযোগিতা দীর্ঘ ২৮ বছরের পরিশ্রমের ফসল । বর্তমানে সমিতির সদস্য সংখ্যা প্রায় দেড়শো। এর বাইরেও হকার রয়েছে। হকার্স নেতা মনির আহমদ জানান, পনেরো সদস্যের সমিতি নিয়ে ১৯৮৭ সালে চেরাগী মোড়ে পত্রিকা বিপণনের কাজ শুরু করেছিলেন তিনি। সেই সময় চেরাগীর মোড় থেকে প্রতিদিন ৩০/৩৫ হাজার পত্রিকা বিলি করা হতো। বর্তমানে ৫০ হাজারের অধিক পত্রিকা বিলি হয় প্রতিদিন। এ চেরাগীর মোড়ে পত্রিকা বিক্রি করে অনেকে কাটিয়ে দিয়েছেন পুরো জীবন। যেমন- সমিতির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ইব্রাহিম মারা গেছেন ২০০৫ সালে। নিজেকে এখনো হকারদের আন্দোলন সংগ্রামের সাথে জড়িয়ে রেখেছেন মনির। চেরাগীমোড় ছাড়াও সমিতির নিয়ন্ত্রণে পাহাড়তলি, ইপিজেড, রেলস্টেশন এলাকায় পত্রিকা বিপণন করা হয়।

The Post Viewed By: 75 People

সম্পর্কিত পোস্ট