চট্টগ্রাম বুধবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২০

১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৩:০২ পূর্বাহ্ন

মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন

সুকৌশলে অস্থির হচ্ছে ভোগ্যপণ্যের বাজার

রোজায় বাজার স্থিতিশীল রাখতে এখনই পদক্ষেপ চাই : চেম্বার রোজার তিন-চার মাস আগে ভোগ্যপণ্যের দাম বৃদ্ধি ব্যবসায়ীদের নতুন কৌশল : ক্যাব

প্রতি বছর রমজান মাস আসার দুই-তিন মাস আগে থেকে ভোগ্যপণ্যের বাজার ক্রমান্বয়ে অস্থির হয়ে ওঠে। এবারও যেন সেই পথে হাঁটছে ভোগ্যপণ্যের বাজার। তবে একটু আগে থেকেই বাজার অস্থির হয়ে ওঠেছে। বিশেষ করে পাম অয়েল, সয়াবিন তেল ও চিনির দাম বাড়ছে। এক মাসের ব্যবধানে পাম তেলের দাম মণপ্রতি প্রায় ৬ শ’ টাকা বেড়েছে। চিনির দাম বেড়েছে একশ’ থেকে দেড়শ’ টাকা। একইভাবে বেড়েছে সয়াবিন তেল আর ছোলার দামও।
ব্যবসায়ী ও আমদানিকারকদের দাবি, আন্তর্জাতিক বাজারের উপর নির্ভর করে ভোগ্যপণ্যের দাম বাড়ছে। তবে ভোক্তা সংগঠন ক্যাবের দাবি- ব্যবসায়ীরা এখন কৌশল করে তিন-চার মাস আগে থেকে পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেয়, রোজায় যাতে চাপাচাপি থেকে রক্ষা পায়।

ভোগ্যপণ্যের বড় পাইকারি বাজার চাক্তাই-খাতুনগঞ্জে এক মাস ধরে কয়েকটি পণ্যের দাম অস্থির হয়ে ওঠেছে। বিশেষ করে শীত মৌসুমে পাম অয়েলের দাম কম থাকে। কিন্তু চলতি মৌসুমে সেই নিয়ম রেকর্ড ভেঙেছে। শীত মৌসুম শুরু হওয়ার পর থেকে পামঅয়েলের দাম অস্থির হয়ে ওঠে। এক মাসের ব্যবধানে মণপ্রতি পণ্যটির দাম বেড়েছে ৬ শ’ টাকা থেকে ৭ শ’ টাকা পর্যন্ত। পাইকারি বাজারে গতকাল পামঅয়েল বিক্রি হয়েছে মণপ্রতি ২৭ শ’ টাকা দরে। তবে সকালে বিক্রি হয়েছে আরও ৫০ টাকা বেশি দরে। এই পণ্যটির দাম দিন দিন, সকাল-বিকেল রূপ বদলাচ্ছে। এরসঙ্গে লাফিয়ে বাড়ছে সয়াবিনের দামও।

মণপ্রতি এক শ’ থেকে দেড় শ’ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে সয়াবিন তেলের দাম। একইসঙ্গে চিনির দামও বাড়ছে। পণ্যটির দামও মণপ্রতি একশ টাকা থেকে দেড়শ’ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। বাড়ছে ছোলা, এলাচি, ডালসহ কয়েকটি পণ্যের দাম।

চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ‘বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে বৈঠকে আমার প্রস্তাবনা ছিল তিন মাস পর পর আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠক করে ভোগ্যপণ্যের চাহিদা ও যোগানের বিষয়ে ব্যবসায়ীদের অবহিত করার। যাতে ব্যবসায়ী ও আমদানিকারকেরা সেইভাবে পণ্য আমদানির প্রস্তুতি নিতে পারে। উদ্যোগটি বাজার পরিস্থিতির জন্য সহায়ক হবে। বাণিজ্য, অর্থ, শিল্প মন্ত্রণালয়, চেম্বার ও ব্যবসায়ীদের সংগঠনের প্রতিনিধিদের নিয়ে ওয়ার্কিং কমিটি বৈঠক করা যেতে পারে। এতে বাজার স্থিতিশীল থাকবে। চাহিদা ও সরবরাহ থাকলে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করতে পারবে না। তিনি আরও বলেন, রোজা আসছে। ছোলা, চিনি চাহিদা ও জোগানের বিষয়ে ব্যবসায়ীদের অবহিত করা হলে আমদানির জন্য সুবিধা হয়। অথবা সংকট নিরসনে সরকার পণ্য আমদানির উদ্যোগ নিতে পারে।

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠনের নেতা মাহবুবুল আলম পাম-সয়াবিন তেলের বিষয়ে বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়তি। তার প্রভাব পড়ছে দেশীয় বাজারে। এছাড়াও এই দুই পণ্য এখন রিফাইনারি-নির্ভর হয়ে পড়েছে। অন্য কেউ আমদানি করতে পারবে না। সয়াবিন ও পাম অয়েলের বাজার মিল মালিকদের হাতে।

রোজার মাসে ভোগ্যপণ্যের সংকট সৃষ্টি করে বাজার অস্থির করতে না পারে সেজন্য এখন থেকে সরকারকে পদক্ষেপ নিতে হবে। যাতে বাজার অস্থির হয়ে না উঠে। ভোগ্যপণ্যের পাইকারি বাজারের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পেঁয়াজের মূল্য অস্বাভাবিক বৃদ্ধির পর থেকে ভোগ্যপণ্যের বাজারও বাড়তে শুরু করেছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মধ্যে কয়েকটি পণ্যের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে গেছে। রোজার মাস আসতে আসতে আরও বাড়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন অনেক ব্যবসায়ী ও আমদানিকারক।

পাম, সয়াবিন, চিনি ছাড়াও ছোলার দামও ক্রমান্বয়ে বাড়তে শুরু করেছে। গতকাল পাইকারী বাজারে ছোলার বুকিং দর হচ্ছে মণপ্রতি দুই হাজার ২৭০ টাকা। পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২৩শ টাকা পর্যন্ত। মধ্যমানের ছোলা বিক্রি হচ্ছে ২১ শ’ টাকা দরে। আন্তর্জাতিক বাজারে কয়েকদিনে ছোলার দাম বাড়তি বলে দাবি আমদানিকারক ও পাইকারি ব্যবসায়ীদের। তবে দেশে প্রচুর পরিমাণ ছোলা মজুত রয়েছে। এছাড়াও রোজার জন্য দেশের শীর্ষস্থানীয় কয়েকটি গ্রুপ ও বড় ব্যবসায়ী প্রচুর পরিমাণ ছোলা আমদানি পাইপলাইনে রয়েছে। এসব কারণে দেশীয় বাজারে ছোলার দাম অনেকটা সহনীয় রয়েছে বলে দাবি তাদের।

একাধিক ট্রেডিং ব্যবসায়ী জানান, দেশীয় বাজার এখন আন্তর্জাতিক বাজারদর-নির্ভর হয়ে পড়েছে। বিশ্ববাজারের উপর নির্ভর করে চাক্তাই-খাতুনগঞ্জে পণ্য বেচাকেনা হয়। বিশ্ববাজারে বাড়লে এখানেও পণ্যের দাম বেড়ে যায়, কমলে এখানেও কমে যায়।

কনজুমার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) চট্টগ্রাম বিভাগীয় সভাপতি এস এম নাজের হোসাইন পূর্বকোণকে বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা এখন নতুন কৌশল নিয়েছে। রোজার মাস আসার ৩-৪ মাস আগ থেকে পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেয়। রোজার মাসে যাতে বলতে পারেন পণ্যের দাম বাড়েনি। বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের তদারকি না থাকার সুযোগ নিচ্ছে ব্যবসায়ীরা।

The Post Viewed By: 119 People

সম্পর্কিত পোস্ট