চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

সর্বশেষ:

৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৫:৫৬ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা হ রাউজান

শেষ মুহূর্তে ছাত্র-পুলিশ সংঘর্ষ

সমাপ্ত হলো চুয়েটের সুবর্ণ জয়ন্তী হ ব্যান্ড শো চলাকালে গভীর রাতে মূল ফটকে হৈ চৈ হ পুলিশ মাথা ফাটালো শিক্ষার্থীর, আহত ১০

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) সুবর্ণ জয়ন্তী অনুষ্ঠানের শেষটা সুন্দর হলো না। গভীর রাতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে চার পুলিশসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। শুক্রবার রাত সোয়া দুইটার দিকে চুয়েটের মূল ফটকে এ সংঘর্ষ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, চুয়েটে সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে মঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলছিল। এলআরবি’র কণ্ঠশিল্পী মিজান মঞ্চে গান গাওয়ার সময় চুয়েটের মূল ফটক থেকে হৈ চৈ শোনা যায়। এসময় শ্রোতারা দিগি¦দিক ছুটতে থাকেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, পুলিশের আঘাতে এক চুয়েট ছাত্রের মাথা ফেটে যাওয়ার ঘটনায় শিক্ষার্থীরা ক্ষিপ্ত হন। তারা রড, কাঠের বাটাম, ইটপাটকেল নিয়ে উত্তেজনা শুরু করেন। পরে আমরা বঙ্গবন্ধু হলে অবস্থান নেই। এ সময় গেট বন্ধ করে দেয়া হয়। ক্যাম্পাসের সব পুলিশ গেটে জড়ো হয়। পরে বের হওয়ার সময় দেখতে পেয়েছি বেশকিছু লাইট ভাঙা অবস্থায় পড়ে রয়েছে।
আরেকটি সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার রাত ২টা ২০ মিনিটের সময় আনাস নামের এক চুয়েট ছাত্র তার কোচিং সেন্টারের শিক্ষার্থী এবং কিছু বহিরাগত নিয়ে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে চাইলে মূল ফটকে সিকিউরিটি পাস দেখতে চায় পুলিশ। তাদের পাস না থাকায় পুলিশ বাধা দিলে উভয়পক্ষে বাকবিত-া শুরু হয়। পরে আনাসের নেতৃত্বে আসা দেড় থেকে দুই শ’ চুয়েট শিক্ষার্থী পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুঁড়েন। পুলিশও পাল্টা জবাব দেয়। দু’পক্ষের মধ্যে বেশ কিছুক্ষণ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এ ঘটনায় চার পুলিশ সদস্য, ছাত্রসহ ১০-১২ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

পুলিশের দাবি- চুয়েটে দায়িত্ব পালনকালে উত্তেজিত ছাত্রদের আঘাতে আহত হয়েছেন বায়েজিদ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) পেয়ার হোসেন, রাউজান গুজরা তদন্ত কেন্দ্রের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মোরশেদ, রাউজান থানার কনস্টেবল কামাল, রাউজান গুজরা তদন্ত কেন্দ্রের কনস্টেবল মাহবুব হোসেন। আহত পুলিশ সদস্যদের রাউজান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। অপরদিকে শিক্ষার্থীদের পক্ষে আহত আনাস ছাড়া অন্যদের পরিচয় জানা যায়নি। চুয়েট ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক মসিউল হক সাংবাদিকদের জানান, আমরা জেনেছি দুইছাত্র আহত হয়েছে। তবে তাদের পরিচয় এখন জানাতে পারবো না।’

রাউজান থানার সেকেন্ড অফিসার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নুরুন্নবী বলেন ‘সুবর্ণ জয়ন্তী অনুষ্ঠান চলাকালীন এক চুয়েটছাত্র কিছু বহিরাগত নিয়ে প্রবেশের চেষ্টা করেন। তাদের সিকিউরিটি পাস না থাকায় প্রবেশে বাধা দিলে পুলিশের সাথে ধাক্কাধাক্কি হয়। পরে চুয়েট ছাত্ররা জড়ো হলে উভয়পক্ষের মধ্যে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। তবে বিষয়টি এত বড় কিছু নয়। উভয়পক্ষে সামান্য ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। এতো বড় অনুষ্ঠানে এ রকম টুকটাক হয়ে থাকে।

চুয়েট পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক শফিউল্লাহ ভুঁইয়া সাংবাদিকদের বলেন- ‘চুয়েট কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মোতাবেক বহিরগতদের প্রবেশে বাধা দিলে জনৈক ছাত্র তার কোচিং সেন্টারের ছাত্রদের নিয়ে জোর করে প্রবেশের চেষ্টা করে। এ নিয়ে সৃষ্ট ঘটনায় তারা চুয়েট গেটের মূল ফটকে অবস্থান নেয়। পুলিশ তাদের সরিয়ে দেয়ার চেষ্টার সময় এ ঘটনা ঘটে। সমাবর্তন ও সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে করা সাজসজ্জার ভাংচুরের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি উক্ত বিষয়ে ওসি সাহেব বলতে পারেন বলে এড়িয়ে যান।

The Post Viewed By: 62 People

সম্পর্কিত পোস্ট