চট্টগ্রাম সোমবার, ২০ জানুয়ারি, ২০২০

৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৪:৫৫ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা হ সাতকানিয়া

আদালতে স্বীকারোক্তি

সাতকানিয়ায় চিকিৎসা করাতে গিয়ে ধর্ষিত ৫ বছরের কন্যা শিশু

সাতকানিয়ায় চিকিৎসা করাতে গিয়ে পল্লী চিকিৎসকের হাতে ধর্ষণের শিকার হয়েছে নার্সারি পড়–য়া ৫ বছরের এক কন্যা শিশু। বড় ভাইয়ের পায়ের ব্যান্ডেজ ড্রেসিং করাতে পল্লী চিকিৎসক তাফসির উদ্দীন (২৬) ফার্মেসীতে যায় শিশুটি। শিশুটিকে মুখে ওষুধ লাগিয়ে দেয়ার কথা বলে ফার্মেসীর পেছনে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে ওই পল্লী চিকিৎসক।

গতকাল বুধবার বিকেলে উপজেলার ছদাহা ইউনিয়নের খোর্দ্দ কেঁওচিয়া ছহির পাড়া এলাকায় এঘটনা ঘটে। ঘটনার পর ছাত্রীর মা বাদি হয়ে সাতকানিয়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন। অভিযুক্ত পল্লী চিকিৎসক তাফসির উদ্দীন (২৬) কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সে লোহাগাড়া উপজেলার জঙ্গল পদুয়া ইউনিয়নের মৃত আব্দুর রাজ্জাকের পুত্র।
এদিকে বুধবার বিকেলে চট্টগ্রাম জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট-৫ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট জিহান সানজিদার আদালতে ঘটনার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

পুলিশ সূত্র ও শিশুটির মায়ের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত সোমবার বিকেলে খেলতে গিয়ে পায়ে আঘাত পায় ধর্ষণের শিকার শিশুটির বড় ভাই। গতকাল বুধবার বিকেলে ভাইয়ের পায়ের ব্যান্ডেজ ড্রেসিং করাতে স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক তাফসির উদ্দীনের ফার্মেসিতে যায় শিশুটি। ড্রেসিংয়ের পরে বড় ভাইকে দোকানের সামনে বসিয়ে রেখে শিশুটিকে মুখে ওষুধ লাগিয়ে দেয়ার কথা বলে ধর্ষণ করে অভিযুক্ত পল্লী চিকিৎসক। পরে শিশুটি তার মায়ের কাছে ঘটনার বর্ণনা দিলে স্থানীয়দের সহযোগিতায় পল্লী চিকিৎসককে আটক করা হয়। পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্তকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে এসআই আক্কাস আলী।

জবানবন্দি গ্রহণের তথ্য নিশ্চিত করে সাতকানিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ সফিউল কবীর বলেন, ছদাহায় শিশু ধর্ষণের কথা স্বীকার করে অভিযুক্ত পল্লী চিকিৎসক আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দি শেষে আদালত তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করে।

The Post Viewed By: 81 People

সম্পর্কিত পোস্ট