চট্টগ্রাম রবিবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২০

সর্বশেষ:

৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৫:৩৯ পূর্বাহ্ন

জাহেদুল আলম হ রাউজান

বরণে প্রস্তুত চুয়েট উন্মুখ রাউজানবাসী

আজ আসছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বহুল প্রতীক্ষিত ৪র্থ সমাবর্তন

রাষ্ট্রপতিকে বরণে প্রস্তুত চুয়েট, উন্মুখ রাউজানবাসী। বহুল প্রতীক্ষিত ও প্রত্যাশিত চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) ৪র্থ সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আজ বৃহস্পতিবার। বেলা আড়াইটার চুয়েট কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত হবে এ সমাবর্তন। এ সমাবর্তনে সভাপতি হিসেবে যোগ দেবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি এবং এ বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর এডভোকেট মো. আবদুল হামিদ। দীর্ঘদিনের নেয়া ব্যাপক প্রস্তুতির পর জমাকালো সমাবর্তনের মধ্যে দিয়ে সাঙ্গ হবে এ মহাযজ্ঞ।

রাষ্ট্রপতির আগমনকে ঘিরে চুয়েট ক্যাম্পাস ছাড়াও এমপি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীসহ রাউজান উপজেলা প্রশাসন, রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠন নানা প্রস্তুতি নিয়েছে। উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে চুয়েট ক্যাম্পাস এবং পুরো রাউজানে। চট্টগ্রাম শহর থেকে কাপ্তাই সড়কপথে চুয়েট যাওয়ার সময় রাস্তার দুই পাশে দাঁড়িয়ে রাউজানের হাজার হাজার জনতা হাতে জাতীয় পতাকা এবং রাষ্ট্রপতির ছবি সংবলিত পতাকা নিয়ে রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানাবে। রাষ্ট্রপতির এ আগমনকে ঘিরে সড়কটির দু’পাশ থেকে অবৈধ এবং ভ্রাম্যমাণ স্থাপনা উচ্ছেদ করে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান করা হয়েছে। দু’পাশের গাছ, স্থাপনাগুলো সেজেছে নতুন রূপে। গাছ ও স্থাপনাগুলোতে লাগানো হয়েছে গোলাপী-সাদা রঙে। ঝকঝকে তকতকে করা হয়েছে কাপ্তাই সড়কের ৮ কিলোমিটার পথ। বিশেষ করে উরকিরচর, নোয়াপাড়া, বাগোয়ান, পাহাড়তলী ইউনিয়নের দু’পাশ পেয়েছে ভিন্নতা। চুয়েট ক্যাম্পাসজুড়ে সাজানো হয়েছে জমকালো আয়োজনে। মূল ফটক, চুয়েটের অভ্যন্তর, ভবন, চত্বর, গাছপালা সেজেছে ভিন্ন আয়োজনে। পথে পথে শোভা পাচ্ছে নানা আলপনা আর কারুকাজ। নানা রঙে রঙিন করে তোলা হয়েছে পুরো ক্যাম্পাস। বিকেল কিংবা সন্ধ্যা নামলেই বর্ণিল আলোকচ্ছটায় চোখ জুড়িয়ে যাচ্ছে এ ক্যাম্পাসের প্রত্যেক এলাকা।

চুয়েট কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, আজকের সমাবর্তনে সভাপতিত্ব করবেন রাষ্ট্রপতি ও এ বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর এডভোকেট মো. আবদুল হামিদ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি থাকবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্ল­াহ। সমাবর্তন বক্তা থাকবেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এ কে আজাদ চৌধুরী।
এবারের সমাবর্তনে বিশ্ববিদ্যালয় হতে স্নাতক, স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনকারী সকল শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবেন। এছাড়া দেশি-বিদেশি আমন্ত্রিত অতিথি, সংসদ সদস্য, রাষ্ট্রীয় ও ব্যক্তি মালিকানাধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উর্দ্ধতন আমন্ত্রিত অতিথিসহ সর্বমোট প্রায় ৩০০০ অতিথি উপস্থিত থাকবেন বলে আশা প্রকাশ করা হচ্ছে। সমাবর্তন শোভাযাত্রার মধ্যে দিয়ে সমাবর্তনের অনুষ্ঠান শুরু হবে।
এদিকে সমাবর্তনকে ঘিরে চুয়েট প্রশাসন, আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। রাউজানকে সাজিয়ে তোলা হয়েছে ঝকঝকে তকতকে করে। রাষ্ট্রপতি চট্টগ্রাম শহর থেকে গাড়িতে করে চুয়েটে যাওয়ার সিদ্ধান্ত রয়েছে।

অন্যদিকে চুয়েটের গৌরবময় পথচলার ৫০ বছর পূর্তিকে স্মরণীয় করে রাখতে আগামীকাল শুক্রবার দিনব্যাপী বিশ্ববিদ্যালয়ের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করা হবে। আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রে অনুষ্ঠানে দেশ-বিদেশের ভিভিআইপি, মন্ত্রী পরিষদ সদস্য, এমপি, বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, এ প্রতিষ্ঠান থেকে পাসকৃত বিপুল প্রাক্তন ছাত্রছাত্রী, চুয়েট পরিবারের বর্তমান সদস্যগণের মিলনমেলা বসবে। সুবর্ণজয়ন্তীর জমকালো আয়োজনে থাকবে আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্র থেকে নগরজুড়ে আনন্দর‌্যালি, সন্ধ্যায় আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, রাতে চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী মেজবান, আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্র থেকে চুয়েট ক্যাম্পাসে যাত্রা, উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভা, স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠান, চুয়েটের বর্তমান ও সাবেক শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আমন্ত্রিত শিল্পীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক পরিবেশনা, নৈশভোজ, ফায়ারওয়ার্কস, জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী জেমস ও নগর বাউলের জমজমাট কনসার্ট প্রভৃতি।

The Post Viewed By: 208 People

সম্পর্কিত পোস্ট