চট্টগ্রাম শনিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০

৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৫:৩৯ পূর্বাহ্ন

ইমরান বিন ছবুর

৩২০ শিক্ষার্থীর বিপরীতে এক শিক্ষক

সরকারি কমার্স কলেজ হ ৮ হাজার শিক্ষার্থীর কলেজে পদ ৩১টি হ উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষকদের দিয়ে চলছে ¯œাতকের ক্লাস

মাত্র ২৫ জন স্থায়ী শিক্ষক দিয়ে চলছে সরকারি কমার্স কলেজের প্রায় আট হাজার শিক্ষার্থীর পাঠদান। এর বাইরে শিক্ষার্থীদের জন্য অতিথি শিক্ষক রয়েছে ১২ জন। যেখানে একজন স্থায়ী শিক্ষকের বিপরীতে রয়েছে ৩২০ জন শিক্ষার্থী এবং অতিথি শিক্ষকসহ ৩৭ মোট জন শিক্ষকের মধ্যে একজনের বিপরীতে শিক্ষার্থী রয়েছে ২১৬ জন। এছাড়া, ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং, মার্কেটিং এবং অর্থনীতি বিভাগ থাকলেও, এসব বিভাগে কোন স্থায়ী শিক্ষক নেই। অতিথি শিক্ষক এবং অন্য বিভাগের শিক্ষকদের দিয়ে চলছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান।

কলেজ সূত্রে জানা যায়, ১৯৪৭ সালে প্রতিষ্ঠা হওয়া এই কলেজে পদ রয়েছে ৩১টি। এরমধ্যে পাঠদানের সাথে যুক্ত ২৭ জন শিক্ষক। দুটি অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষের পদ এবং একজন লাইব্রেরিয়ান ও একজন শরীর চর্চার শিক্ষকের পদ রয়েছে। ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষে ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং, মার্কেটিং এবং অর্থনীতি বিভাগ চালু হয়। হিসাব বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা (ম্যানেজমেন্ট) বিভাগের শিক্ষক দিয়ে চলছে ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং এবং মার্কেটিং বিভাগের পাঠদান। এছাড়া, এই দুটি বিভাগের জন্য তিনজন করে ছয়জন অতিথি শিক্ষক রয়েছেন। আর অর্থনীতি বিভাগের পাঠদান চলছে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণির শিক্ষকদের দিয়ে। শিক্ষার্থী এবং বিভাগ বাড়লেও এখনো পদ সৃষ্টি হয়নি এই তিনটি বিভাগে। যার ফলে শিক্ষক সংকটে ভুগছে ব্যবসায় শিক্ষা শাখার জন্য নগরীর সবচেয়ে জনপ্রিয় এই সরকারি কলেজ।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর সাগর কান্তি দে জানান, ২০১৭-২০১৮ শিক্ষা বর্ষে ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং, মার্কেটিং এবং অর্থনীতি বিভাগ চালু হলেও, এ বিষয়গুলোর জন্য এখনো কোন শিক্ষক নিয়োগ দেয়নি শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ফলে হিসাব বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক এবং ছয়জন অতিথি শিক্ষক দিয়ে এসব বিভাগের পাঠদান চলছে। আর অর্থনীতি বিভাগ চলছে উচ্চ মাধ্যমিক (একাদশ-দ্বাদশ) শ্রেণির শিক্ষক দিয়ে।
তিনি আরো জানান, এনাম কমিশনের রিপোর্ট অনুযায়ী একটি অনার্স বিষয়ের জন্য সাত জন শিক্ষক এবং মাস্টার্স বিষয়ের জন্য ১২ শিক্ষক থাকতে হবে। তার কোনটি নেই সরকারি এই কলেজে। ফলে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষক সংকটে ভুগছে শিক্ষর্থীরা।

কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান প্রফেসর আবু মো. রহিম উল্লাহ জানান, আমাদের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগ এবং ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষকরা মিলে ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং ও মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থীদের পড়াতে হচ্ছে। এই দুটি বিভাগের জন্য তিনজন করে ছয়জন অতিথি শিক্ষকও রয়েছে। এছাড়া, বাংলা বিভাগের জন্য একজন, ইংরেজি বিভাগের জন্য দুইজন অতিথি শিক্ষক রয়েছে।

কলেজ সূত্র মতে, উচ্চ মাধ্যমিক, ¯œাতক (সম্মান), ¯œাতক (পাস) ও ¯œাতকোত্তর কোর্স চালু রয়েছে। হিসাব বিজ্ঞান, ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং, ব্যবস্থাপনা, মার্কেটিং, ইংরেজি, বাংলা ও অর্থনীতি বিষয়ে ¯œাতক (সম্মান) কোর্স চালু রয়েছে। এরমধ্যে হিসাব বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ে ¯œাতকোত্তর কোর্স চালু রয়েছে। এসব কোর্স মিলে কলেজে প্রায় ৮ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে।

The Post Viewed By: 125 People

সম্পর্কিত পোস্ট