চট্টগ্রাম শনিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০

৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৫:১৩ পূর্বাহ্ন

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে চট্টগ্রাম গণঅধিকার ফোরামের স্মারকলিপি

৬ বছর আগে কেজিডিসিএল-এ ডিমান্ড নোট দিয়েও সংযোগ পায়নি ২৫ হাজার গ্রাহক

নগরীর ২৫ হাজার আবাসিক গ্রাহক ৬ বছর আগে গ্যাসের জন্য কেজিডিসিএল-এর নির্দেশ মত টাকা জমা দিয়েও গ্যাস সংযোগ না পাওয়ায় গত ৩ ডিসেম্বর সকাল ১১টায় চট্টগ্রাম গণঅধিকার ফোরামের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর ঢাকাস্থ তেজগাঁও কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান করেন চ.গ.অ ফোরামের মহাসচিব এম.এ হাশেম রাজু এবং উপদেষ্টা মাঈন উদ্দিন আহমদ। স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, চট্টগ্রামে বসবাসরত ৭০ লক্ষ নগরবাসী আবাসিক গ্যাস দ্বারা রান্নাবান্নাসহ নানা কাজকর্ম সেরে আসছেন। এছাড়াও দিন দিন জনসংখ্যা বৃদ্ধি ও নগরায়নের ফলে গ্যাসের চাহিদা প্রতিনিয়ত বাড়ছে এবং নতুন করে আবাসিক গ্যাস সংযোগ প্রয়োজন হচ্ছে। এ অবস্থায় গ্যাস সংযোগের জন্য আবেদনকারীর সংখ্যা বাড়ছে। এছাড়াও চট্টগ্রামে আবাসিক গ্যাস সংযোগের জন্য ২৫ হাজার আবেদনকারীরা নতুন নয়। এই আবেদনকারীগণ ৬ বছর পূর্বে গ্যাস সংযোগের জন্য কেজিডিসিএল’র (কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড) সমস্ত নিয়মনীতি মেনে ডিমান্ড নোটের টাকা পরিশোধ করেন। কেজিডিসিএল’র উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের আশ্বাসের উপর ভিত্তি করে সংযোগের আশায় দিন যাপন করছেন। পরিতাপের বিষয় কেজিডিসিএলে ডিমান্ড নোটের টাকা দিয়েও বর্তমানে অনিশ্চয়তায় চট্টগ্রামের ২৫ হাজার আবেদনকারী। কিন্তু সম্প্রতি পাইপ লাইনের মাধ্যমে আবাসিকে আর কোন গ্যাস সংযোগ না দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পর কেজিডিসিএল ২৫ হাজার আবেদনকারীর সংযোগ পাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। আইনানুযায়ী ডিমান্ড নোট গ্রহণের পর ১৮ কর্মদিবসের মধ্যে আবাসিক গ্যাস সংযোগ প্রদানের কথা থাকলেও আজকে ৬ বৎসর যাবত গ্যাস সংযোগ না হওয়ার ফলে আবাসিক গ্যাস সংযোগ পেতে ডিমান্ড নোট প্রদানকারী গ্রাহকগণ হতাশা ও অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন যাপন করছেন। এই অবস্থায় ডিমান্ড নোট জমাদানকারী ২৫ হাজার গ্রাহকের গ্যাস সংযোগ প্রদান অত্যন্ত জরুরি। উল্লেখিত দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কারণে ২৫ হাজার গ্রাহক আজ আবাসিক গ্যাস সংযোগ থেকে বঞ্চিত। এ বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়।-বিজ্ঞপ্তি

The Post Viewed By: 37 People

সম্পর্কিত পোস্ট