চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২০

৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৪:২৮ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা হ সীতাকু-

‘ডাকাতি প্রতিরোধে সভা’কে ডাকাতদের চ্যালেঞ্জ!

সীতাকু-ে পরিবারের ১০ জনকে বেঁধে রেখে দুর্ধর্ষ ডাকাতি

সীতাকু-ে মডেল থানা কর্তৃক ডাকাতি প্রতিরোধে সচেতনতা সভাকে অনেকটা চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ওই রাতেই দুর্ধর্ষ ডাকাতি করেছে দুস্কৃতিকারীরা। গত সোমবার গভীর রাতে পৌরসভার দক্ষিণ ইদিলপুর ওয়ার্ডের দেলোয়ার হোসেনের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত আনুমানিক ২টার দিকে পৌরসভার ইদিলপুর দেলোয়ার হোসেন ও তার ভাই হারুনের ঘরে একদল ডাকাত প্রবেশ করে অস্ত্রের মুখে সবাইকে জিম্মি করে ঘরের আলমারির তালা ভেঙে টাকা, স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায়। ভুক্তভোগী দেলোয়ার ও হারুন সাংবাদিকদের জানান, মধ্যরাতে তারা ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় ৯/১০ জনের একটি ডাকাত দল তাদের ঘরে প্রবেশ করে অস্ত্রের মুখে ঘরের অন্তত ১০ সদস্যকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে একটি কক্ষে নিয়ে আটকে রাখে। পরে রুমের আলমিরার তালা খুলে কাপড় ও অন্যান্য দ্রব্যাদি তছনছ করে ৪ ভরি স্বর্ণালংকার, সিন্ধুকসহ বিভিন্ন স্থানে রাখা প্রায় ২৫ হাজার টাকা, মোবাইল ও মূল্যবান সরঞ্জাম লুটে নেয়। তবে ডাকাতি হলেও ডাকাতরা ঘরের দরজা না ভেঙে প্রবেশ করায় প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। এ কারণে গৃহস্থরা ধারণা করছেন সোমবার সন্ধ্যার পর কোন এক সময় ডাকাত দলের একজন কৌশলে ঘরে প্রবেশ করে লুকিয়ে ছিল। পরে তার সহযোগিতায় অন্য ডাকাতরা প্রবেশ করে লুট করে নিয়ে গেছে। এদিকে এলাকাবাসীরা জানিয়েছেন এ ডাকাতির মাত্র ১০/১২ ঘণ্টা আগে ঘটনাস্থলের কয়েক কিলোমিটার দূরবর্তী নুনাছরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ডাকাতি প্রতিরোধে সভা করেছে সীতাকু- মডেল থানা। এতে ডাকাতি বন্ধ হবে আশা করলেও ওই রাতেই ডাকাতিতে জনমনে নানান প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে সীতাকু- থানার ওসি (তদন্ত) মো. শামীম শেখ বলেন, আসলে এটি ডাকাতি নয়, এটি চুরি। কারণ তারা লুকিয়ে আগেই ঘরে ঢুকেছিল। তবে ঘটনায় জড়িতদের খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে বলে জানান।

The Post Viewed By: 39 People

সম্পর্কিত পোস্ট