চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

২৩ নভেম্বর, ২০১৯ | ৫:৪৪ পূর্বাহ্ন

ক্বণন’র ধারাবাহিক আয়োজন মহড়া কক্ষে মার্টিনার একক আবৃত্তি

কবিতা ও ধ্বনি-শিল্পের মেলবন্ধনের নান্দনিক পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হলো ক্বণন শুদ্ধতম আবৃত্তি অঙ্গন আয়োজিত ‘মহড়া কক্ষে একক আবৃত্তি’ শীর্ষক অনুষ্ঠান।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে কদম মোবারক এম ওয়াই স্কুলে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন ক্বণন সদস্য মার্টিনা সরকার। মোসতাক খন্দকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে পর্যালোচনামূলক বক্তব্য রাখেন আবৃত্তি শিল্পী রাশেদ মোহাম্মদ ও সৌভিক চৌধুরী। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ক্বণন সদস্য সাইমুম মুরতাজা।

সভাপতির বক্তব্যে আবৃত্তি শিল্পী ও প্রশিক্ষক মোসতাক খন্দকার বলেন, আবৃত্তি শিল্পের চর্চা ও প্রসারে বত্রিশ বছর ধরে ক্বণন তার নিঃস্বার্থ প্রয়াস অব্যাহত রেখেছে। আবৃত্তিকে কারও মতলব চরিতার্থ করার হাতিয়ার হিসাবে গ্রহণ করেনি ক্বণন।

মার্টিনা সরকার শামসুর রাহমান দিয়েই তার আবৃত্তির একক পরিবেশনা শুরু করে। প্রথমেই আবৃত্তি করে শামসুর রাহমানের ‘কখনো আমার মাকে’। এরপর একে একে আবৃত্তি করেন সিকান্দর আবু জাফরের ‘সংগ্রাম চলবেই’, সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের ‘যেতে যেতে’, আশিক আকবরের ‘স্বীকারোক্তি’, জয়দেব বসুর ‘ভারত এক খোঁজ’, সলিল চৌধুরীর ‘শৃংখলা-বিশৃংখলা’, রোকেয়া খাতুন রুবির ‘কোন কিছুতে যায় আসেনা’ এবং জয় গোস্বামীর ‘মেঘবালিকার জন্য রূপকথা’ আবৃত্তি শিল্পী মার্টিনা সরকারের সাবলিল পরিবেশনায় বিভিন্ন কবির একগুচ্ছ কবিতার আবৃত্তি দর্শকশ্রোতাদের মুগ্ধ করে। বিজ্ঞপ্তি

The Post Viewed By: 23 People

সম্পর্কিত পোস্ট