চট্টগ্রাম শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯

২২ নভেম্বর, ২০১৯ | ৩:০২ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক

খুচরা বাজারে এখনও বেশি বিমানে পেঁয়াজ আনছে এস আলম গ্রুপ

মিশর ও তুরস্ক থেকে বিমানে এক হাজার ৭৫০ টন পেঁয়াজ আনছে এস আলম গ্রুপ। গত বুধবার রাতে পেঁয়াজের প্রথম চালান দেশে পৌঁছেছে।

পর্যায়ক্রমে দু-একদিনের মধ্যেই দেশে পৌঁছে যাবে পুরোটায়। এস আলমের বাণিজ্যিক শাখা সূত্র জানায়, প্যাসেঞ্জার ও কার্গো বিমানে আনা হচ্ছে এসব পেঁয়াজ। ১০৫-১১০ টন ধারন ক্ষমতার ১০টি কার্গো বিমানে বুকিং দেওয়া হয়েছে। দুটি চালান দেশে পৌঁছেছে। গতকাল (বৃহস্পতিবার) রাত ১২ টায় বিসমিল্লাহ এয়ারলাইন্সের কার্গো উড়োজাহাজে ১০৫ টন পেঁয়াজ বিমানবন্দরে পৌঁছার কথা রয়েছে। আজ (শুক্রবার) কায়রো এয়ারের একটি

কার্গো বিমানে আসবে আরও ৫৫ টন। দেশে পেঁয়াজ ঘাটতি ও অতিরিক্ত দামের কারণে পেঁয়াজ আমদানি করছে এস আলম গ্রুপ। মিশর থেকে বাল্ক ও কনটেইনারের মাধ্যমে সমুদ্রপথে পেঁয়াজ আমদানি করার উদ্যোগ রয়েছে বলে জানায় প্রতিষ্ঠানের বাণিজ্যিক বিভাগ। এজন্য ১১টি এলসিতে ৫৮ হাজার ৫শ টন পেঁয়াজ আমদানির জন্য এলসি খোলা হয়েছে। সমুদ্রপথে সময় বেশি লাগছে বিধায় আকাশপথে দ্রুত পেঁয়াজ আমদানি করছে দেশের এই শীর্ষস্থানীয় শিল্প গ্রুপ। আমদানি করা এসব পেঁয়াজ ট্রেডিং কর্পোরেশন বাংলাদেশের (টিসিবি) মাধ্যমে বাজারজাত করা হবে।

এদিকে, গত বুধবারের তুলনায় বৃহস্পতিবার পাইকারিতে প্রতিকেজি পেঁয়াজে ১০ থেকে ১৫ টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে। যার প্রভাব পড়েছে খুচরা বাজারেও। গতকাল (বৃহস্পতিবার) খাতুনগঞ্জে মিয়ানমারের পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে সর্বনি¤œ ২৫ টাকা থেকে শুরু করে ৮০ টাকা পর্যন্ত। মিশর ও চীনের পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৮০ থেকে ৮৫ টাকায়। যা গত বুধবার ছিল ৬৫ থেকে ৭০ টাকায়। এছাড়া, খুচরা বাজারে প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ১৪০ টাকা থেকে ১৬০ টাকায়। পরিবহণ ধর্মঘট ও আমদানি কম হওয়ায় পেঁয়াজের দাম কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

The Post Viewed By: 27 People

সম্পর্কিত পোস্ট