চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারি, ২০২০

২২ নভেম্বর, ২০১৯ | ২:১৮ পূর্বাহ্ন

এম. আনোয়ারুল হক, আনোয়ারা

অন্যতম প্রধান যোগাযোগ মাধ্যম

সিইউএফএল সড়ক সংস্কারে দীর্ঘসূত্রতার অভিযোগ, জনমনে ক্ষোভ

সিইউএফএল সড়কের সংস্কারে দীর্ঘসূত্রতা দেখা দিয়েছে। যার কারণে যাতায়াতকারী সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভের শেষ নেই।
সড়কে গাড়ি চলছে হেলেদুলে। গর্তে পড়ে অনেক যানবাহন নষ্ট হচ্ছে। বৃষ্টি হলেই যান চলাচলে বিঘœ সৃষ্টি হয়। রোদে কোনমতে যানবাহন চলছে। এলাকাবাসী দ্রুত সিইউএফএল সড়কের সংস্কার করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট আহ্বান জানিয়েছেন।

আনোয়ারা উপজেলার অন্যতম প্রধান সড়ক হচ্ছে সিইউএফএল সড়ক। পশ্চিম আনোয়ারার লোকজন এ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করে। কাফকো, সিইউএফএল, কেইপিজেড, ডিএপি ফার্টিলাইজার, বঙ্গবন্ধু টানেল, চায়না ইকোনোমিক জোনের গাড়িগুলো এ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করছে। এছাড়া স্কুল-কলেজপড়–য়া শতশত ছাত্র-ছাত্রী, শাহ্ মোহছেন আউলিয়া মাজার জিয়ারত করতে লোকজন এ সড়ক দিয়ে চলাচল করে। দূর-দূরান্ত থেকে আসা লোকজন এ সড়ক দিয়ে পারকি সৈকতে যায়। ১৫ নং ঘাট পার হয়ে শাহ্ আমানত বিমানবন্দরের যাত্রীরাও এ সড়ক দিয়ে আসা যাওয়া করে। দীর্ঘদিন ধরে সিইউএফএল সড়কটির সংস্কার নেই। ইট, বালি, কংক্রিট উঠে সড়কে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। যানবাহনগুলো ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করছে।

সিএনজিচালিত চালকরা বেকায়দায় পড়েছে। বৃষ্টি হলেই গর্তভরা সড়ক পানিতে একাকার হয়ে যায়। চাতরী চৌমুহনী থেকে বন্দর সেন্টার পর্যন্ত কয়েক কিলোমিটার সড়কের অবস্থা খুবই শোচনীয়। চৌমুহনী বাজারের পশ্চিম পাশ, মোহাম্মদপুর রাস্তার মাথা, বৈরাগ তৈলের দোকান, আমান উল্লাহ পাড়ায় রাস্তার অবস্থা খুবই নাজুক। দীর্ঘদিন ধরে সচেতন মহল থেকে সড়কটি সংস্কারের দাবি উঠে। ভূমিমন্ত্রী আলহাজ সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপির পক্ষ থেকেও সড়কটি সংস্কারে দ্রুত প্রদক্ষেপ নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদেরকে নির্দেশ দেয়া হয়। গতবার কাফকো’র নেতৃত্বে সড়কটি সংস্কার কাজ শুরু হয়েছিল। এবারও কাফকো’র নেতৃত্বে সড়কটির সংস্কারকাজ শুরু করার সিদ্ধান্ত রয়েছে। ইতিমধ্যে উপজেলা আ.লীগের সভাপতি অধ্যাপক এম.এ মান্নান চৌধুরী ও ভূমিমন্ত্রীর একান্ত সহকারী সচিব রিদওয়ানুল করিম চৌধুরী সায়েম কাফকোর চিফ আজিজুর রহমানের সাথে বৈঠক করেছেন।

সড়কটি সংস্কারে দ্রুত প্রদক্ষেপ নেয়ার জন্য সম্প্রতি তারা বৈঠক করেন। সড়কটি সংস্কারে সাড়ে ৩ কোটি টাকার বাজেট নির্ধারণ করা হয়। নির্ভরযোগ্য সূত্রে প্রকাশ কাফকো, সিইউএফএল, ড্যাপ, বঙ্গবন্ধু টানেল, কেইপিজেড কর্তৃপক্ষের যৌথ অর্থায়নে সড়কটি সংস্কার করা হবে। তবে কবে নাগাদ সংস্কার কাজ শুরু হবে বিষয়টি এখনো নিশ্চিত হয়নি। সড়কটি সংস্কারে টেন্ডার প্রক্রিয়াও হয়নি। টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

নির্ভরযোগ্য সূত্রে প্রকাশ, কেইপিজেড ছাড়া অন্যরা বরাদ্দকৃত অর্থ ইতিমধ্যে জমা দিয়েছেন। কেইপিজেড কর্তৃপক্ষ অর্থ জমা না দেয়ায় সড়কটি সংস্কারে বিলম্ব হচ্ছে বলে জানা যায়। এ ব্যাপারে উপজেলা আ.লীগের সভাপতি ও বটতলী ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যাপক এমএ মান্নান চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ভূমিমন্ত্রী’র একান্ত সহকারী সচিব রিদওয়ানুল করিম চৌধুরী সায়েমসহ সড়কটি দ্রুত সংস্কার করার জন্য কয়েক দফা বৈঠক করা হয়েছে। কেইপিজেড কর্তৃপক্ষের অর্থ পাওয়ার পরেই দ্রুত সড়কটি সংস্কারে টেন্ডার প্রক্রিয়ায় যাবে। আমরা আশা করছি, যাতায়াতকারী লোকজনের দুর্ভোগ লাঘবে সংশ্লিষ্টরা সড়কটি সংস্কারে এগিয়ে আসবে।

The Post Viewed By: 74 People

সম্পর্কিত পোস্ট