চট্টগ্রাম শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯

২১ নভেম্বর, ২০১৯ | ২:২৮ পূর্বাহ্ন

প্রেসিডেন্সি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে মিলাদুন্নবী (সা.) উদযাপন

মহানবীর জীবনাদর্শই জীবনের একমাত্র আদর্শ হওয়া উচিত

প্রেসিডেন্সি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে পবিত্র মিলাদুন্নবী মাহফিলে বক্তারা বলেছেন, আইয়ামে জাহেলিয়াতের অন্ধকার দূর করে তৌহিদের মহান বাণী নিয়ে এসেছিলেন মহামানব হযরত মুহাম্মদ (সা.)। প্রচার করেছেন শান্তির ধর্ম ইসলাম। প্রায় এক হাজার ৪০০ বছর আগে ১২ রবিউল আউয়াল আরবের মরু প্রান্তরে মা আমিনার কোল আলো করে জন্ম নিয়েছিলেন বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)। তাঁর আবির্ভাব এবং ইসলামের শান্তির বাণীর প্রচার সারাবিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টি করে। গতকাল বুধবার স্কুলের জুনিয়র ও সিনিয়র ক্যাম্পাসে হামদ-নাত, কেরাত, আজান প্রতিযোগিতা ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয় পবিত্র মিলাদুন্নবী (সা.) মাহফিল। সিনিয়র ক্যাম্পাসে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মমতাজ উদ্দীন কাদেরী। জুনিয়র ক্যাম্পাসে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের অধ্যাপক গিয়াস উদ্দীন তালুকদার। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বক্তারা বলেন, নবীর জীবনাদর্শই আমাদের জীবনের একমাত্র আদর্শ হওয়া উচিত। নবীর আদর্শকে হৃদয়ঙ্গম করে জীবনাচরণ করলেই পৃথিবী সুন্দরময় হয়ে উঠবে। হযরত মুহাম্মদ (সা.) বিস্ময়কর বালক ছিলেন। তাঁর সততা, কর্তব্যপরায়ণতা ছোটবেলা থেকেই দৃশ্যমান হয়। তাঁর চারিত্রিক গুণাবলীর কারণেই গোটা আরব জাতি তাঁকে ভীষণ ভালোবাসতেন। অতিথিবৃন্দ আরোও বলেন, আমরা সন্তানদের ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, বানানোর স্বপ্ন দেখি কিন্তু কখনোই মূল্যবোধসম্পন্ন মানুষ তৈরির স্বপ্ন দেখি না। আমাদের সবার উচিত আদর্শবান সন্তান গড়ে তোলা কারণ মৃত্যুর পর কর্মগুণই বেঁচে থাকবে দু’জাহানে। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্কুল পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান আশরাফুল হক খান স্বপন, উপাধ্যক্ষ ইইউএম ইনতেখাব, স্কুল হেড মোহাম্মদ জসীম উদ্দিন, শিক্ষার্থীবৃন্দ, অভিভাবকবৃন্দ ও শিক্ষক-শিক্ষিকাম-লী। প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ, মোনাজাত এবং অধ্যক্ষের সমাপনী বক্তব্যের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।-বিজ্ঞপ্তি

The Post Viewed By: 29 People

সম্পর্কিত পোস্ট