চট্টগ্রাম শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২০ নভেম্বর, ২০১৯ | ২:৫১ পূর্বাহ্ন

মোহাম্মদ আলী

১৪ পৌরসভায় সুপেয় পানি দিবে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর

চট্টগ্রামের ১৪ পৌরসভায় সুপেয় পানি সরবরাহ করবে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর। ইতোমধ্যে একটি পৌরসভায় পানি সরবরাহ লাইন, সংযোগলাইনসহ সবগুলো কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। অপর ৪টি পৌরসভায় মাঠ পর্যায়ে কাজ চলছে। অবশিষ্ট ৯টি পৌরসভায় পর্যায়ক্রমে কাজ শেষ হলে চট্টগ্রামের প্রত্যেক পৌরসভার বাসিন্দাদের সুপেয় পানি নিশ্চিত হবে বলে জানিয়েছেন অধিদপ্তরের সংশিষ্ট কর্মকর্তারা। প্রকল্পের অধীনে একই সাথে পৌরসভাগুলোতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্টও করা হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের উদ্যোগে চট্টগ্রামে প্রথম উদ্যোগ নেওয়া হয় দ্বীপাঞ্চল সন্দ্বীপ পৌরসভায়। গ্রোথ সেন্টার প্রকল্পের আওতায় এ পৌরসভায় ২৬ কিলোমিটার ১২ ইঞ্চি ডায়ামিটারের ট্রান্সমিশন পাইপলাইন বসানোর কাজ শেষ হয়েছে। একই সাথে সংযোগ দেওয়া হয়েছে পৌরসভার বাসাবাড়িতে। এ জন্য বসানো হয়েছে তিনটি গভীর নলকূপ। প্রতিটি গভীর নলকূপ ঘণ্টায় ৭০ হাজার লিটার উৎপাদন করতে পারে। এ ক্ষেত্রে তিনটি নলকূপ থেকে ঘণ্টায় পানি মিলবে দুই লাখ ১০ হাজার লিটার। গভীর নলকূপ থেকে উত্তোলনকৃত পানি ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টে পরিশোধন করে সরবরাহ করা হবে। পানি সরবরাহ ছাড়াও প্রকল্পের অধীনে মনুষ্য বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট করা হবে। সন্দ্বীপ পৌরসভায় চলতি বছরের জুনে সব কাজ শেষ করা হয়েছে। এখন শুধু বিদ্যুৎ সংযোগ দিলেই পানি সরবরাহ শুরু হবে। প্রায় সাড়ে ৫ কোটি টাকার এ প্রকল্পটি উৎপাদনে গেলে এটিকে সন্দ্বীপ পৌরসভা কর্তৃপক্ষকে হস্তান্তর করবে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর। পৌরসভা কর্তৃপক্ষ এটির পানি সরবরাহের যাবতীয় কাজ ছাড়াও রক্ষণাবেক্ষণ করবে।

সূত্র আরো জানায়, সন্দ্বীপ পৌরসভার পাশাপাশি বাঁশখালী, চন্দনাইশ, সাতকানিয়া ও মিরসরাই পৌরসভাও সুপেয় পানি সরবরাহের কাজ শুরু করেছে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর। বাঁশখালী ও চন্দনাইশ পৌরসভায় গভীর নলকূপের মাধ্যমে পানি উত্তোলন করে ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টে পরিশোধনের পর সরবরাহ করা হবে। তবে সাতকানিয়া ও মিরসরাই পৌরসভায় পানি সরবরাহ করা হবে ভূ-উপরিস্থ পানি। সাঙ্গু নদী থেকে পানি উত্তোলন করে পরিশোধনের পর সরবরাহ করা হবে সাতকানিয়া পৌরসভায়। অপরদিকে মহামায়া লেকের পানি ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টে পরিশোধনের পর সরবরাহ করা হবে মিরসরাই পৌরসভায়। এসব পৌরসভায় প্রতিটি প্রকল্পে ব্যয় করা হবে ২০ থেকে ২৫ কোটি টাকা।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর চট্টগ্রামের নির্বাহী প্রকৌশলী সুমন রায় দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ‘সুপেয় পানি সরবরাহ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর এসব প্রকল্প গ্রহণ করেছে। প্রথম পর্যায়ে সন্দ্বীপ পৌরসভার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এখন শুধু বিদ্যুৎ সংযোগের অপেক্ষায় রয়েছি। সংযোগ পেলে পানি সরবরাহ শুরু হবে। বর্তমানে বাঁশখালী, চন্দনাইশ, সাতকানিয়া ও মিরসরাই পৌরসভার কাজ শুরু হয়েছে। পর্যায়ক্রমে চট্টগ্রামের অন্যান্যে বারইয়াহাট, সীতাকু-, হাটহাজারী, নাজিরহাট, ফটিকছড়ি, রাউজান, রাঙ্গুনিয়া, বোয়ালখালী, পটিয়া ও চন্দনাইশ পৌরসভায় সুপেয় পানি সরবরাহের কাজ শুরু করা হবে।’

The Post Viewed By: 38 People

সম্পর্কিত পোস্ট