চট্টগ্রাম রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৯ নভেম্বর, ২০১৯ | ২:৫২ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক

চমেক হাসপাতালে লিফটে ১০ মিনিট আটকা খসরুসহ বিএনপি নেতারা

নগরীর পাথরঘাটায় বিস্ফোরণের ঘটনায় আহতদের দেখতে গিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটি সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীসহ দলীয় নেতারা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের দোতলা থেকে লিফট ছিঁড়ে পড়ে গেছেন। এ সময় তাঁরা লিফটে প্রায় ১০ মিনিট আটকা ছিলেন। হাসপাতালের ও দলীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করেন। গতকাল সোমবার দুপুর ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। অবশ্য এ ঘটনায় কেউ তেমন আহত হননি। এ সময় লিফটে আমীর খসরুর সঙ্গে ছিলেন নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন, বিএমএ চট্টগ্রামের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ডা. খুরশিদ জামিল চৌধুরীসহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে ডা. খুরশিদ জামিল চৌধুরী দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ‘আহতদের দেখে পাঁচতলার অর্থোপেডিক বিভাগ থেকে আমরা লিফটে নামছিলাম। দোতলায় এসে লিফট ছিঁড়ে দ্রুত নেমে যায়। নিচতলায় বিকট শব্দে পড়ে যায়। লিফটটি নিচের ফ্লোরের আরও এক হাত নিচে চলে যায়। পরে দরজা আটকে যায়। অনেক কষ্টে আমাদের বের করা হয়।’

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. আখতারুল ইসলাম এ প্রসঙ্গে পূর্বকোণকে বলেন, ‘এ বিষয়ে খোঁজ নিয়েছি। মূলত লিফটের ধারণ ক্ষমতার চেয়েও বেশি মানুষ ছিল। যার কারণে লিফট হ্যাঙ্ক হয়ে পড়ে। হাসপাতালের সকল লিফ্ট দেখভাল করে গণপূর্ত বিভাগ। তারাই এ বিষয়ে বলতে পারবে। তবুও বিষয়টি আরও খতিয়ে দেখা হবে’।

জানতে চাইলে গণপূর্ত বিভাগের কর্মকর্তা (চমেকে দায়িত্বরত) মাহমুদুল হাসান পূর্বকোণকে বলেন, ‘লিফট ছিঁড়ে যায়নি। বরং পুরোনো হওয়ায় কোন কারণে হ্যাঙ্ক হয়ে পড়েছিল। যার কারণেই কিছুক্ষণ বন্ধ হওয়ায় উনারা ভাবছেন ছিঁড়ে পড়েছে। তাছাড়া লিফট যদি ছিঁড়ে পড়তো তাহলে সাথে সাথে লিফট চালু হওয়ার কথা নয়। কিন্তু তা এখনো চালু রয়েছে। বিষয়টি জানার পর আমি সাথে সাথে সেখানে গিয়েছি এবং বিষয়টি দেখেছি’।

The Post Viewed By: 27 People

সম্পর্কিত পোস্ট