চট্টগ্রাম রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯

১৮ নভেম্বর, ২০১৯ | ২:৫৯ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক

গ্যাস লাইনে লিকেজের দাবি বিস্ফোরক অধিদপ্তর ও ফায়ার সার্ভিসের

নগরীর পাথারঘাটা ব্রিকফিল্ড সড়কে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা গ্যাস লাইনের লিকেজের কারণে হয়েছে বলে দাবি করছে বিস্ফোরক অধিদপ্তর ও ফায়ার সার্ভিস। কেজিডিসিএল কর্মকর্তারা গ্যাসের কারণে এ ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি করলে তা নাকচ করে দিয়েছে বিস্ফোরক অধিদপ্তর।
ঘটনাস্থলে উপস্থিত বিস্ফোরক অধিদপ্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিদর্শক তফাজ্জল হোসেন বলেন, আমাদের কাছে ছবি আছে রাইজার ও রাইজারের পাইপ লাইন অতি পুরাতন। ডেলিভারি পাইপের পুরুত্ব অনেক কমে গেছে। পাইপ লাইনটি রাবার দিয়ে মোড়ানো থাকার কথা ছিলো, তা ছিলো না। যেহেতু ডেলিভারি পাইপ লাইনটি পুরাতন। আমরা ধারণা করছি পাইপ লাইনের যে কোন একটি ছিদ্র দিয়ে গাস লিকেজ হয়েছে। রান্না ঘরের পাশে দেয়াল থাকায় রুমের যেদিকে ফাঁকা ছিলো সেদিকে গ্যাস প্রবাহিত হয়েছে। রাতভর গ্যাস লিকেজের কারণে ঘরের সবগুলো রুমই গ্যাস চেম্বারে পরিণত হয়েছে।

আমরা শুনেছি ঘটনা সংঘটিত বাসার একটি মেয়ে সকালে উঠে পূজা করতে ম্যাচের কাঠি জ্বালিয়েছে। এতে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। মেয়েটির মুখম-ল আর শরীরের বিভিন্ন অংশ পুড়ে গেছে। গ্যাসের লিকেজের কারণে এ ঘটনা হয়েছে এতে কোন সন্দেহ নেই। রান্নাঘর অক্ষত থাকা প্রসঙ্গে বিস্ফোরক কর্মকর্তা তফাজ্জল বলেন, রান্না ঘরে যেহেতু ম্যাচের কাঠি জ্বালানো হয়নি, তাই সেখানে কোন কিছুই হয়নি।

চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক মো. জসিম উদ্দিন বলেন, গ্যাস লিকেজের কারণে এ ঘটনা সংগঠিত হয়েছে বলে আমরা মনে করছি। অতীতে এ ধরনের বেশ কয়েকটি ঘটনা আমরা তদন্ত করেছি।

সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, ঘটনার উৎস জানতে আমরা একটি তদন্ত কমিটি করেছি। কমিটি তদন্ত করে দেখবে কি কারণে এ ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে। সিডিএ’র প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ শাহীনুল ইসলাম খানের নেতৃত্বে অথরাইজড অফিসার-১ প্রকৌশলী মো. মনজুর হাসান, সহকারী অথরাইজড অফিসার মো. ওসমান, সেকশন অফিসার সাদেকুর রহমান, পরিদর্শক আবদুর রশিদ এবং আবু সৈয়দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
শাহীনুল ইসলাম খান বলেন, বাড়িটি তারা পরিদর্শন করেছেন। তবে এই ঘটনার পর বাড়িটিতে বসবাস ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেছে। বিস্ফোরণের কারণে কলামে ফাটল ধরেছে। ভবন মালিককে নোটিশ দিয়ে বিষয়টি জানানো হবে।

The Post Viewed By: 47 People

সম্পর্কিত পোস্ট