চট্টগ্রাম শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯

১৭ নভেম্বর, ২০১৯ | ৩:৪০ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা হ বোয়ালখালী

বোয়ালখালীতে ধর্মান্তরিত হয়ে বিয়ে

বরের পরিবারের ওপর পুলিশী নির্যাতনের অভিযোগ

মেয়ে প্রাপ্ত বয়স্ক। জন্ম ১৯৯৭ সালে। নাসিরাবাদ মহিলা কলেজের মাস্টার্স-এর ছাত্রী। প্রায় দেড় বছর আগে পরিচয় হয় বোয়ালখালী উপজেলার পশ্চিম শাকপুরার আবদুল শুক্কুরের ছেলে শাহদাত হোসেন (২৮)এর সাথে। মেয়েটিও একই এলাকার স্বপন মহাজনের মেয়ে মেঘলা মহাজন (২২)। প্রেমে বাধ সাজে ধর্ম। অতএব ধর্মান্তরিত হয়ে মেয়েটিই প্রেমিকের ধর্ম ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। নাম ধারণ করেন সুনেহেরা ইসলাম (মেঘলা)। এবার প্রেমের পরিণতি। গত ১৩ নভেম্বর আদালতে হাজির হয়ে প্রেমিক শাহাদাত

হোসেনের সাথে বিয়ের কার্য সম্পন্ন করে। দিন যায় সুখে শান্তিতে। এবার বাধ সাজে পুলিশ। বোয়ালখালী থানা নয়, নগরীর ডবলমুরিং থানা এবার এসে হাজির ছেলের পিত্রালয়ে। ছেলেকে না পেয়ে ছেলের বৃদ্ধ পিতা ও ভাইকে ধরে নিয়ে যায় ডবলমুরিং থানায়। চলে নির্যাতন। ছেলের পরিবারের এখন নানান অভিযোগ ডবলমুরিং থানা পুলিশের বিরুদ্ধে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ১৩ নভেম্বর আদালতে হাজির হয়ে প্রেমিক শাহাদাত হোসেনের সাথে বিয়ে কার্য সম্পন্ন করেন শাহাদাত হোসেন ও ধর্মান্তরিত সুনেহেরা ইসলাম (মেঘলা)। গত শুক্রবার (১৫ নভেম্বর) শেষ রাতের দিকে পুলিশ শাহাদাত হোসেনের বোয়ালখালীর গ্রামের বাড়ি থেকে তাঁর অসুস্থ পিতা আবদুর শুক্কুর ও ছোট ভাই জয়নাল আবেদিনকে তুলে নিয়ে যান। পরদিন শাহাদাতের পরিবার বোয়ালখালী থানায় খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন বোয়ালখালী পুলিশ এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না। অনেক খোঁজাখুঁজির পর জানতে পারেন ওই দুইজন ডবলমুরিং থানায় আটক আছে।

জানা যায়, মেঘলার নিকটাত্মীয় এক পুলিশ কর্মকর্তার প্রভাবে নগরীর ডবলমুরিং থানা পুলিশ বোয়ালখালী থানাকে না জানিয়ে তাদের তুলে নিয়ে যায় এবং শারীরিক নির্যাতন করে। যাতে আবদুর শুক্কুর খুবই অসুস্থ হয়ে পড়ে বলে অভিযোগ পরিবারের। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় নানান কথা ছড়ালেও, বিয়ের ব্যাপারটিকে সাধারণ সকলেই নিয়ম মাফিক হয়েছে বলে দাবি করেন।

এব্যাপারে এডভোকেট সেলিম আনসার রানা বলেন, প্রাপ্ত বয়স্ক দুই জন নিজেদের ইচ্ছায় আদালতে গিয়ে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করেছে, এতে আইনি কোন সমস্যা নেই। তাদের পরিবারকে নিয়ে নির্যাতন করলে তা আইন পরিপন্থী।

এনিয়ে জানতে চাইলে বোয়ালখালী থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ নেয়ামত উল্লাহ বলেন, কারা তাদের তুলে নিয়ে গেছেন বা কি জন্য নিয়ে গেছেন তা আমরা কিছুই জানিনা।
ডবলমুরিং থানার অফিসার ইনচার্জ সুদীপ কুমার দাশ বোয়ালখালী থেকে দুই জন আসামিকে আটক করার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, স্বপন মহাজন নামের একজন বাদির সুনির্দিষ্ট অপহরণ মামলায় তাদের আটক করে কোর্টে হস্তান্তর করা হয়েছে।

The Post Viewed By: 73 People

সম্পর্কিত পোস্ট