চট্টগ্রাম রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯

১৭ নভেম্বর, ২০১৯ | ৩:৪০ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা হ মিরসরাই

মিরসরাই উপজেলা আ. লীগের সম্মেলনে ইঞ্জি. মোশাররফ

নতুন নেতারা দলকে ২০ বছর ক্ষমতায় রাখতে সক্ষম হবে

জাহাঙ্গীর কবির সভাপতি সম্পাদক জাহাঙ্গীর ভূঁইয়া

‘চট্টগ্রামে আমরা যে ধরনের নেতা নির্বাচন করছি তারা আগামী ২০ বছর দলকে ক্ষমতায় রাখতে সক্ষম হবে। আমি বেঁচে না থাকলেও আগামীতে নৌকার যেন ভরাডুবি না হয় আপনারা সেদিকে খেয়াল রাখবেন’। গতকাল (শনিবার) বিকাল ৩ টায় মিরসরাইয়ের মিঠাছড়া স্কুল মাঠে আয়োজিত স্থানীয় উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিলে এসব কথা বলেন, সাবেক মন্ত্রী আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি। তিনি আরো বলেন, খালেদা জিয়া এতিমের টাকা মেরে খেয়েছেন। তাকে আওয়ামী লীগ জেলহাজতে দেয়নি, আদালত দিয়েছে।

সম্মেলনের উদ্বোধনী বক্তব্যে উত্তর জেলা

আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ.বি.এম ফজলে করিম চৌধুরী বলেন, ২৪ বছর আগে জননেতা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের হাত ধরে আমি রাজনীতিতে এসেছিলাম। তিনি শুধু মিরসরাইয়ের নেতা নন, সমগ্র চট্টগ্রামের নেতা। তাঁর নেতৃত্বে চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠিত হচ্ছে।

শুরুতেই পতাকা উত্তোলন ও পায়রা উড়িয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন অতিথিবৃন্দ। এরপর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ আতাউর রহমানের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীর সঞ্চালনায় প্রথম অধিবেশনে প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালাম। বক্তব্য রাখেন উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক ও মিরসরাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান রুহেল, উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তানভীর হোসেন চৌধুরী তপু। উপস্থিত ছিলেন উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যাপক মো. মাঈনুদ্দীন, এডভোকেট ফখর উদ্দিন চৌধুরী, জিতেন্দ্র প্রসাদ নাথ মন্টু। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, ইউনুস গণি চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল আনোয়ার চৌধুরী বাহার, দেবাশীষ পালিত, প্রচার সম্পাদক জসিম উদ্দিন শাহ্, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এ.টি.এম ফেয়ারুল ইসলাম, আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট ভবতোষ নাথ, রাউজান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এহসানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল, সীতাকু- উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম আল মামুনসহ উপজেলা আওয়ামীলীগ, বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ।

দ্বিতীয় অধিবেশনে কাউন্সিলরদের মতামত ও প্রার্থীদের সমঝোতার ভিত্তিতে জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীকে সভাপতি ও এ.কে.এম জাহাঙ্গীর ভূঁইয়াকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়।

প্রসঙ্গত, এবারের কাউন্সিলে তৃণমূলসহ মোট ৬৪৫ জন কাউন্সিলর অংশ নেন। এছাড়া কাউন্সিলের দিন সমগ্র উপজেলার ১৮টি দলীয় ইউনিট থেকে অন্তত ১৫ হাজার মানুষের সমাগম ঘটে।

The Post Viewed By: 82 People

সম্পর্কিত পোস্ট