চট্টগ্রাম রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর, ২০১৯

১৫ নভেম্বর, ২০১৯ | ২:২৮ পূর্বাহ্ন

ইফতেখারুল ইসলাম

কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগে নগর আ. লীগ সম্মেলন হচ্ছে না

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগে আর হচ্ছে না। গত বুধবার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের চট্টগ্রামে এই সিদ্ধান্ত দেন। এসময় তিনি চট্টগ্রামের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীমের সাথেও কথা বলেন।

তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে গতকাল সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন পূর্বকোণকে বলেন, কেন্দ্রীয় নির্দেশনা তিনি যেভাবে পেয়েছেন সেভাবে কাজ করছেন। কেন্দ্রীয় নির্দেশনা পাওয়ার পর ইউনিট এবং ওয়ার্ড পর্যায়ে সম্মেলন করার জন্য তারিখও নির্ধারণ করা হয়েছিল। পরে কেন্দ্রের নির্দেশে তা স্থগিত রাখা হয়। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ছয় সাংগঠনিক জেলার প্রতিনিধি সভায় বর্ধিত সভার মাধ্যমে সম্মেলনের বিষয়টি নির্ধারণ করার সিদ্ধান্ত হয়। তবে গত বুধবার তিনি নির্দেশনা পেয়েছেন কেন্দ্রীয় সম্মেলনের পরে নগর সম্মেলন করার।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত ২৭ অক্টোবর নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম উত্তর-দক্ষিণ ও মহানগর এবং তিন পার্বত্য জেলার প্রতিনিধি সভায় সিদ্ধান্ত হয় ১১ নভেম্বর চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা হবে। সভায় তৃণমূলের নেতাদের মতামত নিয়ে সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হবে। ওই সভায় কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীমসহ কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত থাকার কথা ছিল। কিন্তু কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ থেকে সাড়া না পাওয়ার কারণে সেই নির্ধারিত তারিখে বর্ধিত সভা হয়নি। সভার নির্ধারিত তারিখের দুইদিন পর প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর স্মরণসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে চট্টগ্রামে আসেন ওবায়দুল কাদের। বিমান বন্দর থেকে অনুষ্ঠানস্থলে আসার আগে তিনি বোট ক্লাবে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীনসহ নেতাদের সাথে সম্মেলন নিয়ে আলোচনা করেন। এসময় তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগে মহানগরের সম্মেলন হচ্ছে না। এসময় এনামুল হক শামীমের সাথেও মোবাইলে কথা হয়। তখন নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দুই কেন্দ্রীয় নেতার সাথে কথা বলে নিশ্চিত হন যে, কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগে নগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন আর হচ্ছে না। তাছাড়া নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বর্তমানে চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে রয়েছেন। তাঁর দেশে ফেরার সম্ভাব্য তারিখ ১৯ নভেম্বর। তিনি আসার পর যে সময় হাতে থাকতে সেই সময়ের মধ্যে ৪১টি ওয়ার্ড, আবার প্রতি ওয়ার্ডে তিনটি করে ইউনিট এবং থানা পর্যায়ের সম্মেলন করে নগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন করা সম্ভব নয়।

The Post Viewed By: 84 People

সম্পর্কিত পোস্ট