চট্টগ্রাম শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৩ নভেম্বর, ২০১৯ | ১:৩৫ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক

৫ ক্যাটাগরিতে নির্বাচিত ৫৫ জন

সফল জয়িতা সম্মাননা পুরস্কার প্রদান আজ

জীবন সংগ্রামে সফল পাঁচ নারীকে দেয়া হবে শ্রেষ্ঠ ‘জয়িতা’ সম্মাননা পুরস্কার ২০১৮। ইতোমধ্যে বিভাগের ১১ জেলার প্রতিটি ইউনিয়ন পর্যায় হতে শুরু করে বিভাগীয় পর্যায়ের শ্রেষ্ঠ ৫৫ জন জয়িতাকে বাছাই করা হয়েছে। এই ৫৫ জনকেও আজ বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে সংবর্ধনা দেয়া হবে।

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে জীবনযাপনকারী এবং জীবন সংগ্রামে জয়ী নারীদের সম্মানিত করতে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর ‘জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ’ শীর্ষক কর্মসূচির আওতায় তাদের এই স্বীকৃতি ও পুরস্কার প্রদান করা হবে। পাঁচ ভাগে বিভক্ত মান অনুসারে ৫৫ জন নারীর মধ্যে পাঁচজনকে ‘শ্রেষ্ঠ জয়িতা’ নির্বাচিত করা হবে। যারা পরবর্তীতে জাতীয় পর্যায়ে অংশ গ্রহণ করবেন। আজ বুধবার সকাল ১১টায় নগরীর ষোলশহরস্থ এলজিইডি ভবনের কনফারেন্স হলে জয়িতাদের হাতে সম্মাননার ক্রেস্ট ও আর্থিক পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে। চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বেগম ফজিলাতুন নেসা ইন্দ্রিয়া। বিশেষ অতিথি থাকবেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কামরুন নাহার ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বদরুন নেছা।
গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মো. নুরুল আলম নিজামী।

তিনি বলেন, ২০১৩ সাল থেকেই দেশের সার্বিক উন্নয়নে নারীদের অবদানের স্বীকৃতি প্রদানের মাধ্যমে নারীদেরকে আত্মশক্তিতে উজ্জীবিত ও অনুপ্রাণিত করার লক্ষ্যকে সামনে রেখে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে দেশব্যাপী ‘জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ’ শীর্ষক কার্যক্রম শুরু করা হয়। এ বছরও বিভাগের ১১টি জেলা থেকে বিভিন্ন পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী নারী, শিক্ষা ও চাকরি ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী নারী, সফল জননী নারী, নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন উদ্যমে জীবন শুরু করেছেন যে নারী, সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রেখেছেন যে নারী, এই ৫টি ক্যাটাগরিতে নির্বাচিত মোট ৫৫ জন জয়িতাদের সংবর্ধনা দেওয়া হবে। একই সাথে বিভাগীয় বিচারকম-লীর দ্বারা চট্টগ্রাম বিভাগের ৫ জন শ্রেষ্ঠ জয়িতা নির্বাচন করা হবে।

যারা পাচ্ছেন সংবর্ধনা : অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী নারীদের মধ্যে চট্টগ্রামের দৌলতুন্নেছা, রাঙ্গামাটি জেলার শিউলী খানম, বান্দরবানের জাহানারা আকতার, খাগড়াছড়ির লিপি দেওয়ান, কক্সবাজারের ইয়াছমিন আক্তার, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিলকিছ বেগম, চাঁদপুরের মরিয়ম বেগম, নোয়াখালীর মোছা. তাসলিমা খাতুন, লক্ষ্মীপুরের খাদিজা আক্তার, ফেনীর জোসনা আরা ও কুমিল্লা’র ফারহানা ইয়াসমিন।
শিক্ষা ও চাকুরি ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী নারীদের মধ্যে চট্টগ্রামের ডা. সুপর্ণা দে সিম্পু, রাঙ্গামাটির হাছিনা বেগম, বান্দরবানের ইন্দিরা ত্রিপুরা, কক্সবাজারের সাজেদা বেগম, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরদ্বতী বর্মন, চাঁদপুরের সাবিনা ইয়াসমিন, নোয়াখালীর তানজিন জাহান, লক্ষ¥ীপুরের শিল্পীরানী পাল, ফেনীর ফাতেমা তুজ জোহুরা ও কুমিল্লার সুমাইয়া আক্তার শিমু।

সফল জননীতে চট্টগ্রামের বেগম আঞ্জুমা খাতুন, রাঙ্গামাটির লক্ষ¥ীদেবী চাকমা, বান্দরবানের ইয়াসমিন আক্তার রুবি, খাগড়াছড়ির নুরনাহার বেগম, কক্সবাজারের জাহানারা বেগম, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সপনেহার বেগম, চাঁদপুরের ইউ কে এম ফরিদা বেগম, নোয়াখালীর আবেনা বেগম, লক্ষীপুরের মাহবুবা বেগম, ফেনীর রাহেলা আক্তার ও কুমিল্লার হাজী বেগম মেহেরুন ইসলাম।
নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে নতুন উদ্যমে জীবন শুরু করা লোহাগাড়ার রত্না চক্রবর্তী, রাঙ্গামাটির শাহিনুর বেগম, বান্দরবানের সালেহা বেগম, খাগড়াছড়ির বীনাবানী ত্রিপুরা, কক্সবাজারের রুপনা দাশ লাকী, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পারভীন বেগম, চাঁদপুরের জয়তুননেছা, নোয়াখালীর জাহানারা বেগম, লক্ষ¥ীপুরের সুফিয়া বেগম, ফেনীর সাবিহা আক্তার ও কুমিল্লার ববিতা বেগম।

সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদানে চট্টগ্রামের পারভীন আকতার, রাঙ্গামাটির মনোয়ারা আক্তার জাহান, বান্দরবানের পাইং¤্রাউ মার্মা, খাগড়াছড়ির মনোয়ারা বেগম, কক্সবাজারের নয়ন সেলিনা, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নুরুন্নাহার বেগম, চাঁদপুরের ফিরোজা বেগম, নোয়াখালীর খোদেজা আক্তার, লক্ষ¥ীপুরের খালেদা বেগম, ফেনীর দেল আফরোজ ও কুমিল্লার খন্দকার ফরিদা ইয়াসমিন।

The Post Viewed By: 42 People

সম্পর্কিত পোস্ট