চট্টগ্রাম রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১২ নভেম্বর, ২০১৯ | ২:১৫ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক

অবৈধ দোকানে মুখ ঢাকা জাতিতাত্ত্বিক জাদুঘরের

২৮ নং পাঠানটুলী ওয়ার্ড

নগরীর আগ্রাবাদ এলাকায় নির্মিত জাতিতাত্ত্বিক জাদুঘর। যেখানে সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে জাদুঘর কর্তৃপক্ষ কাজ করে যাচ্ছে, সেখানে যাদুঘরের সামনের ফুটপাত দখলে নিয়ে ছোট ছোট দোকান বসিয়ে নষ্ট করছে জাদুঘরের পুরো সৌন্দর্য। কর্তৃপক্ষ ও সিটি কর্পোরেশন থেকে ফুটপাত দখল করে দোকান বা হকার বসা নিষিদ্ধ থাকলেও প্রশাসনকে বৃদ্ধ আঙ্গুল দেখিয়ে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী টাকার বিনিময়ে এসব দোকান বসিছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

১৯৬৫ সালে নির্মিত এই জাদুঘরটি বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর জীবনযাপন, সাংস্কৃতিক আচার, ঐতিহ্যের নমুনা সংরক্ষণের উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়। এতে বাঙালি জাতিসহ বিভিন্ন ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক জাতিগোষ্ঠীর জীবনযাপন, সাংস্কৃতিক আচার, পোশাক, অলংকারের নিদর্শন রয়েছে। কিন্তু বাইরে থেকে বুঝার কোন উপায় নেই এখানে একটি জাদুঘর রয়েছে। সব সৌন্দর্য মলিন হচ্ছে ফুটপাতে দখলে থাকা এসব দোকানের কারণে।

সরেজমিনে দেখা যায়, জাদুঘরের সামনে পুরো ফুটপাত জুড়েই বসানো হয়েছে একাধিক খাবারের দোকান। প্রতিটি দোকানে বসার জন্য ফুটপাতের মধ্যেই রাখা হয়েছে ৮ থেকে ১০ চেয়ার। যার কারণে একদিকে মানুষের যাতায়াতের বিঘœ ঘটছে, অন্যদিকে সৌন্দর্য মলিন হচ্ছে জাদুঘরের। তবে স্থানীয় প্রভাবশালীদের প্রভাবের কারণেই এসব দোকান সরানো যায় না বলেও অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা। আবার এসব প্রভাবশালীরা এসব দোকান থেকে প্রতিদিন এবং সপ্তাহ হিসেবে অর্থ আদায় করে তাদের বসার সুযোগ দিয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

জাদুঘরে ঘুরতে আসা একাধিক শিক্ষার্থী পূর্বকোণকে বলেন, বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠী সম্পর্কে শিক্ষার্থীরা এখান থেকে ধারণা নিতে আসে। এই জাদুঘর আমাদের সম্পদ। কিন্তু আমরাই এর সৌন্দর্য নষ্ট করছি। জাদুঘরের সামনে প্লাস্ট্রিক লাগিয়ে এর পুরো সৌন্দর্যকে নষ্ট করছি আমরাই। এসব দোকান তুলে দিলে জাদুঘরের সৌন্দর্য আরও বেশি বৃদ্ধি পাবে বলেও জানান তিনি।

The Post Viewed By: 84 People

সম্পর্কিত পোস্ট