চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১০ নভেম্বর, ২০১৯ | ৩:২৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

আল্লামা তাহের শাহের নেতৃত্বে নগরীতে আজ জশনে জুলুস

হ কাজীর দেউড়ি মোড়ের মঞ্চে হুজুর কেবলা বক্তব্য রাখবেন হ নগরীতে প্রবেশ করবে না মুসল্লিদের বহনকারী যানবাহন

আজ রবিবার পবিত্র জশনে জুলুসে ঈদ-এ মিলাদুন্নবী (সা.)। এদিনে পৃথিবীতে এসেছিলেন রাহমাতুল্লিল আলামিন হযরত মোহাম্মদ মোস্তাফা (সা.)। মহানবী (সা.) এর আগমন উপলক্ষে আঞ্জুমান-এ-রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্ট প্রতিবছরের ন্যায় এবার জশনে জুলুসে ঈদ-এ মিলাদুন্নবী (সা.) আয়োজন করেছে। এ উপলক্ষে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। ষোলশহর জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসা ও আলমগীর খানকাহ শরিফে মাসদুয়েক ধরে প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।
১৯৭৪ সালে বলুয়ারদিঘিস্থ খানকাহ থেকে জুলুস শুরু হয়। পরের বছর থেকে জুলুসে নেতৃত্ব দেন রাহনুমায়ে শরিয়ত ও তরিকত আল্লামা হাফেজ সৈয়্যদ মুহাম্মদ তৈয়্যব শাহ। ১৯৮৩ সাল পর্যন্ত বলুয়ারদিঘি এলাকা থেকে জুলুস বের হয়ে আসছিল। কিন্তু কালের পরিক্রমায় জুলুসের পরিধি বাড়তে থাকে। লোকসমাগম সংকুলান না হওয়ার ১৯৮৪ সাল থেকে স্থান পরিবর্তন করে ষোলশহর আলমগীর খানকা শরীফে আনা হয়। বর্তমানে ষোলশহর জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন আলমগীর খানকাহ থেকে জুলুস অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। ১৯৮৬ সাল থেকে সৈয়্যদ মুহাম্মদ তাহের শাহ জুলুসে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। আজকের জুলুসেও নেতৃত্ব দেবেন তিনি। জশনে জুলুস ও মিলাদুন্নবী উপলক্ষে ষোলশহর জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসার দুটি মাঠে শামিয়ানা-প্যান্ডেল টাঙানো হয়েছে। মাদ্রাসা, খানকাহ ও আশপাশের ভবনগুলো আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয়েছে। মাঠের এক কোণে মেজবানির আয়োজন করা হয়েছে।
আজ রবিবার সকাল ৯টায় জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন আলমগীর খানকাহ থেকে জুলুস বের হবে। এটি বিবিরহাট, মুরাদপুর, মির্জাপুল, কাতালগঞ্জ, চকবাজার, প্যারেড কর্নার, সিরাজুদ্দৌল্লা সড়ক, আন্দরকিল্লা, মোমিন রোড, চেরাগী পাহাড়, প্রেসক্লাব, কাজীর দেউড়ি, আলমাস, ওয়াসা, জিইসি মোড়, মুরাদপুর হয়ে পুনরায় জামেয়া মাদ্রাসা মাঠে মিলিত হবে। সেখানে জোহরের নামাজ, ওয়াজ-নসিহত, মিলাদ-কেয়াম ও মুনাজাতের মাধ্যমে কর্মসূচি সমাপ্ত হবে।
এছাড়া এবারের জুলুসে কাজীর দেউড়ি মোড়ে অস্থায়ী মঞ্চে হুজুর কেবলা বক্তব্য রাখবেন ও দেশের শান্তি কামনায় মোনাজাত করবেন। এবারের জশনে জুলুসে ৬০ লাখের বেশি মানুষের সমাগমের আশা করছেন আয়োজকেরা। জশনে জুলুসে আগত ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের বহনকারী যানবাহন কর্ণফুলী শাহ আমানত ব্রিজ, অক্সিজেন, একে খান ও কুয়াইশ এলাকায় এসে থেমে যাবে। নগরীর অভ্যন্তরে যানজট এড়াতে এ ব্যবস্থা নিয়েছে আয়োজকরা।

The Post Viewed By: 73 People

সম্পর্কিত পোস্ট