চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

৯ নভেম্বর, ২০১৯ | ১১:০৯ পূর্বাহ্ন

অনলাইন ডেস্ক

শাহ আমানতে বিমান চলাচলা স্বাভাবিক

অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়ে ‘বুলবুল’ আরও উত্তর দিকে অগ্রসর হয়েছে। এর প্রভাবে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরসহ ৯ উপকূলীয় জেলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখানো হচ্ছে। এর কারণে দেশের প্রধান সমুদ্রবন্দরের অপরাশেন বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্বাভাবিক সূচি অনুযায়ী বিমান ওঠানামা করছে।

শনিবার (৯ নভেম্বর) সকাল পৌনে ১০টায় শাহ আমানত বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক উইং কমান্ডার সারওয়ার ই জামান পূর্বকোণকে বলেন, আমরা হেড কোয়ার্টারের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছি। আমাদের বিমানবন্দরে ফ্লাইট ওঠানামা স্বাভাবিক রয়েছে। আবহাওয়া দুর্যোগপূর্ণ হয়ে উঠলে তখন জরুরি ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে আবহাওয়ার অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী এটি দুপরের দিকে আঘাত হানতে পারে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের সংকেতগুলোকে আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছি। সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। যাতে করে সব ধরনের বিপদ মোকাবিলা করতে পারি।

উল্লেখ্য, অতিপ্রবল এই ঘূর্ণিঝড়টি শনিবার সন্ধ্যা নাগাদ উপকূল অতিক্রম করতে পারে বলে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়। ঘণ্টায় দেড়শ কিলোমিটার বেগের বাতাসের শক্তি নিয়ে বুলবুল সুন্দরবন দিয়ে উপকূলে আঘাত হানতে পারে। ঘূর্ণিঝড়টি শনিবার সকাল ৯টায় মোংলা থেকে ৩৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে, পায়রা থেকে ৩৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল। চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে এর দূরত্ব ছিল ৫২৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং কক্সবাজার থেকে ৫১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে।

পূর্বকোণ/পিআর 

The Post Viewed By: 73 People

সম্পর্কিত পোস্ট