চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

৯ নভেম্বর, ২০১৯ | ৪:১১ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা, রাউজান

বিচার চায় মা-বাবা

ময়নাতদন্ত শেষে রাউজানের স্কুলছাত্রী রুনার দাফন সম্পন্ন

রাউজানের চিকদাইরে আত্মহত্যার চেষ্টার দীর্ঘ ৬ মাস শয্যাশায়ী থাকার পর মারা যাওয়া এসএসসি পরীক্ষার্থী রুনা আকতারের মরদেহ গত বুধবার (৬ নভেম্বর) রাত ১১টার দিকে জানাজা নামাজশেষে স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এর আগে নিহত রুনার ময়না ময়না তদন্তশেষে রাত ৮টার দিকে তার লাশ বাড়িতে আনা হলে আত্মীয়-স্বজন, পরিবারের সদস্য ও প্রতিবেশীরা কান্নায় ভেঙে পড়েন।
থানার সেকেন্ড অফিসার মো. নুরুন্নবী জানিয়েছেন, রুনার মৃত্যুর আগে তাকে উত্ত্যক্ত করার ব্যাপারে তার পরিবার আদালতে একটি মামলা করায় নতুন করে কোন মামলা নেয়া হয়নি। তবে রুনার ময়নাতদন্ত করা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) বিকেলে সরেজমিনে নিহত রুনার বাড়িতে গেলে দু’পক্ষের ভিন্ন ভিন্ন তথ্য পাওয়া গেছে। নিহত রুনার বাবা আবদুল মান্নান ও তার স্ত্রী নয়ন বেগম সাংবাদিকদের কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, ‘আমরা মেয়েকে আর ফেরত পাবো না, কিন্তু আমাদের মেয়েকে যারা এভাবে উত্ত্যক্ত, খারাপ করতে চেয়েছিল, তার বিচার চাই’।

এলাকার মেম্বার মো. হানিফ, এলাকার বাসিন্দা মো. আইয়ুব ও নুরুল আমিন বলেন, ‘রুনাকে বাড়িতে দিয়ে আসার পর তার বাবা মারধর ও গালিগালাজ করে। এরপর রুনা ঘরের পেছনের রুমে আত্মহত্যা চেষ্টা করে। পরিবারের সদস্যরা তা দেখতে পেয়ে রুনাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। দীর্ঘ ৬ মাস চিকিৎসাশেষে রুনা গত বুধবার মারা যায়।’ এলাকার অনেকের দাবি, রুনাকে এলাকার কেউ উত্ত্যক্ত করেনি, তার বাবা বিভিন্ন পারিবারিক কোন্দল, ক্লেশের কারণে ক্ষোভের বশবর্তী হয়ে এলাকার নাবালকসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে রুনার মৃত্যুর আগে মামলা দায়ের করেছে। মামলাটি ষড়যন্ত্রমূলক’।
রুনার পরিবারের সদস্যরা জানান, রুনার মৃত্যুর আগে তাকে উত্ত্যক্ত ও লাঞ্চিত করার অভিযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে দায়ের করা মামলায় এলাকার নুরুল আমিনের ছেলে মঞ্জুর হোসেন (২২), কবির আহম্মদের ছেলে কফিল উদ্দিন (২০), মো. বশিরের ছেলে হেলাল (২০) ও ফয়েজ আলীর ছেলে বেলালসহ (১৯) অজ্ঞাতনামাদের আসামি করা হয়। এদিকে রুনার বাবার দায়ের করা সেই মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন পিবিআই’র চট্টগ্রামের সাব ইন্সপেক্টর মো. কামাল আব্বাস তদন্ত করে গত ২৬ সেপ্টেম্বর আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। নিহতের সহপাঠীরা জানান, রুনা টেস্ট পরীক্ষা দিয়ে আগামী বছর এসএসসি পরীক্ষা দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল।

The Post Viewed By: 55 People

সম্পর্কিত পোস্ট