চট্টগ্রাম সোমবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৯

৮ নভেম্বর, ২০১৯ | ২:২৭ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক

পার্কিংয়ের জায়গায় দোকান

গাড়ির পার্কিং সংকটে হিমশিম অবস্থায় ট্রাফিক বিভাগ। পার্কিংয়ের স্থান নির্ধারণ নিয়ে দফায় দফায় বৈঠক করছে নগর পুলিশ। এ অবস্থায় পার্কিংয়ের জায়গায় দোকান নির্মাণ করেছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। নগরীর ব্যস্ততম মোড় নিউমার্কেট। এর মাত্র আড়াইশ মিটার অদূরে অবস্থিত শাহ আমানত সিটি কর্পোরেশন সুপার মার্কেট। নিউ মার্কেট ও শাহ আমানত মার্কেটের মাঝখানে হকার মার্কেট। সামনে নগরের সর্ববৃহৎ খুচরা ও পাইকারি বাজার রিয়াজ উদ্দিন বাজার ও তামাকুম-ি লেইন। এখানে রয়েছে কয়েক হাজার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। কেনাকাটা করতে আসা শত শত লোকজন টাকা দিয়ে মোটরসাইকেল পার্কিং করে রাখেন শাহ আমানত মার্কেটের নিচতলায়। আর এই পার্কিংয়ের জায়গায় এখন দোকান নির্মাণ করেছে সিটি কর্পোরেশন। ফলে মোটরসাইকেল পার্কিং করা হবে রাস্তায়। ব্যস্ততম মোড়টিতে বাড়বে যানজট। দোকান নির্মাণে ব্যবসায়ী ও ট্রাফিক বিভাগের আপত্তিও কানে নেয়নি সিটি কর্পোরেশন।

সিটি কর্পোরেশন সূত্র জানায়, নগরের আমতলে শাহ আমানত সুপার মার্কেটের নিচতলায় বরাদ্দের জন্য চলতি বছরের ১৫ মার্চ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে সিটি সিটি কর্পোরেশনের এস্টেট শাখা। এতে মার্কেটটির নিচতলার ২২৫৩ বর্গফুট ও দ্বিতীয় তলায় ১৮২৪ বর্গফুট ফ্লোর বরাদ্দ দেওয়া হবে বলে প্রচার করা হয়। পরে ৯ কোটি ৫২ লাখ টাকায় শামীম কর্পোরেশন নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে বরাদ্দ দেওয়া হয়। বরাদ্দ পাওয়ার পর প্রতিষ্ঠানটি মার্কেটের নিচতলায় পার্কিংয়ের জায়গায় বারোটি দোকান নির্মাণ করেছে। এসব দোকান ইতিমধ্যে বিক্রিও করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা চীন ভ্রমণে থাকায় এ ব্যাপারে তাঁর বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। তবে শাহ আমানত সুপার মার্কেটের পার্কিংয়ের ইজারাদার জাহেদ উদ্দিন বলেন, ‘মার্কেটের নিচতলায় আগে এক সঙ্গে এক হাজার মোটরসাইকেল রাখার সুযোগ ছিল। পার্কিংয়ের জায়গায় দোকান নির্মাণ করা হয়েছে। ফলে এখন দুইশ’র বেশি মোটরসাইকেল রাখা যাবে না।

পার্কিং ও মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় খোলা জায়গায় দোকান নির্মাণের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হলে ব্যবসায়ীরা আপত্তি জানাতে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের সঙ্গে দেখা করেছিলেন। তিনি ব্যবসায়ীদের আপত্তি আমলে নেননি। আয় বাড়াতে দোকানগুলো নির্মাণ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে সিটি কর্পোরেশন। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ব্যবসায়ীরা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ব্যবসায়ী বলেন, সিটি কর্পোরেশন মার্কেটের পার্কিংয়ের জায়গায় দোকান নির্মাণ করছে। নিচতলায় দোকান নির্মাণের ফলে ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা গাড়ি রাখতে পারবে না। মার্কেটের সামনে স্থায়ীভাবে যানজট সৃষ্টি হবে। নগরীর নিউমার্কেট এলাকায় যানজট বাড়ার কথা জানিয়ে পার্কিংয়ের জায়গায় দোকান নির্মাণ বন্ধের অনুরোধ জানিয়েছে নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগও। কিন্তু তাদের আপত্তিও আমলে নেয়নি সিটি কর্পোরেশন। এ প্রসঙ্গে নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের উত্তর জোন অফিস থেকে ‘পার্কিংয়ের জায়গায় দোকান নির্মাণ না করতে সিটি কর্পোরেশনকে অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

নগর ট্রাফিকের উত্তর জোনের উপ-কমিশনার মো. আমীর জাফর জানান, ওই এলাকার মার্কেটের ব্যবসায়ীদের সাথে আমরা ইতিমধ্যে বৈঠক করেছি। বিষয়টি নিয়ে সিটি কর্পোরেশনের সাথে আমরা আলোচনা করবো। এমনিতে পার্কিংয়ের সংকট প্রকট। তার উপর পার্কিংয়ের স্থানে দোকান নির্মাণ করা হলে সাধারণ লোকজন যানবাহন রাখবে কোথায়?

১৯৯৫ সালে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) অনুমোদন ছাড়াই চারতলা শাহ আমানত সুপার মার্কেটটি নির্মাণ করে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। নিয়ম অনুযায়ী নগরীতে কোন ভবন নির্মাণ করতে হলে সিডিএ থেকে নকশা অনুমোদন নেওয়া বাধ্যতামূলক। মার্কেটটিতে প্রায় ২৫০টি দোকান রয়েছে। টেলিভিশন, মোবাইল ফোন, কম্পিউটারসহ নানা ইলেক্ট্রনিক পণ্য মেরামত ও বেচাকেনার জন্য পরিচিত মার্কেটটি।
এ প্রসঙ্গে সিডিএ’র অথরাইজড অফিসার মোহাম্মদ শামীম বলেন, ‘কোন ভবনের পার্কিংয়ের জায়গায় অন্যকোন স্থাপনা নির্মাণ আইন বহির্ভূত। শাহ আমানত মার্কেট নির্মাণের সময় সিডিএ থেকে কোন নকশার অনুমোদন নেয়নি’।

The Post Viewed By: 56 People

সম্পর্কিত পোস্ট