চট্টগ্রাম রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২৩ অক্টোবর, ২০১৯ | ২:১২ পূর্বাহ্ণ

ইসলামিয়া কলেজ শিক্ষার্থীদের সংবাদ সম্মেলন

অনৈতিক সুবিধা ধরে রাখতে রাতের আঁধারে ছাত্রলীগ-ছাত্রসংসদের কমিটি

গঠনতন্ত্রবিরোধী ও নিয়ম বহির্ভূতভাবে ইসলামিয়া ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগ-ছাত্রসংসদের কমিটি গঠনের প্রতিবাদে ও বাতিলের দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে ইসলামিয়া কলেজ সাধারণ শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে একটি সংবাদ সম্মেলন করেছে। লিখিত বক্তব্যে শিক্ষার্থী মোহাম্মদ আরিফ খান বলেন, দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও ক্যাসিনো ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন। যা সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে এবং চট্টগ্রামেও এই অভিযান অব্যাহত রয়েছে। চট্টগ্রামে দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের

বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হওয়ার সাথে সাথে পরিকল্পিতভাবে তথাকথিত যুবলীগ নেতা, নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর ও ইসলামিয়া কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ দাবিকারী মোস্তফা মোরশেদ যোগসাজশ করে শান্তিপূর্ণ কলেজ ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল করতে, দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অভিযান বানচাল করতে রাতের আঁধারে ইসলামি কলেজ ছাত্রলীগ-ছাত্রসংসদ এর পকেট কমিটি ঘোষণা করেছে। দীর্ঘ ১৫ বছর যাবত যুবলীগ নেতা নামধারী তথাকথিত ব্যক্তি আমাদের কলেজকে ব্যবহার করে অনৈতিকভাবে ভর্তি বাণিজ্য ও কলেজ ফা- থেকে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ এনে তিনি বলেন, সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের প্রাণের দাবি ছিল নিয়মিত ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে কলেজ ছাত্রলীগ ছাত্রসংসদের কমিটি গঠন করার। আমাদের দাবিকে উপেক্ষা করা যাবে না বুঝতে পেরেই তাদের স্বার্থ টিকিয়ে রাখতে রাতের আঁধারে কমিটি ঘোষণা করেন। ১৫ বছর যাবৎ ঐ তথাকথিত ব্যক্তি আশপাশের এলাকা থেকে নানা অনৈতিক সুবিধা ভোগ করেছেন।

তিনি আরো বলেন, ছাত্রসংসদের ছাত্র প্রতিনিধি নির্বাচনের একটি গঠনতন্ত্র থাকে। এর কিছু নিয়মাবলীও রয়েছে। যেমন-ছাত্র সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রথমে ভোটার তালিকা প্রকাশ করতে হয়, তারপর নির্বাচনের জন্য তফসিল ঘোষণা করতে হয়, নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হয়, মনোনয়নপত্র দাখিল করতে হয়, প্রার্থিতা যাচাই বাছাইয়ের পরে বৈধ-অবৈধ প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হয়, বাতিল হওয়া প্রার্থীদের আপিল করার সুযোগ থাকে। তফশীলানুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, নির্বাচন কমিশন কমিটি ঘোষণা করবে, অনুমোদন দিবে অধ্যক্ষ এবং কর্তৃপক্ষ অফিসিয়ালি একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে। ছাত্রসংসদ প্রতিনিধিদের নামের পাশাপাশি শ্রেণি, রোল, শিক্ষাবর্ষ উল্লেখ থাকে। ছাত্র সংসদের কমিটির ঘোষিতপত্রে শিক্ষামন্ত্রী, সংশ্লিষ্ট জেলার জেলা প্রশাসক, শিক্ষা অধিদপ্তর, সংশ্লিষ্ট জেলা/ মহানগরের পুলিশ সুপার/ পুলিশ কমিশনার, শিক্ষা বোর্ড ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় বরাবর অনুলিপি প্রদান করতে হয়। যা এই অবৈধ ছাত্রসংসদের কমিটিতে অনুসরণ করা হয়নি।
কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশনার তোয়াক্কা না করে, মুরুব্বি সংগঠন নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিনের কোন পরামর্শ না নিয়ে এবং কাউন্সিলের কোন তারিখ ঘোষণা ছাড়াই এই কমিটি ঘোষণা করা হয়। এমন পরিস্থিতে কলেজ ক্যাম্পাসের পরিবেশ স্থিতিশীল রাখতে ঘোষণাকৃত ইসলামিয়া ছাত্রলীগের কমিটি বাতিল করে সংশ্লিষ্ট নেতাদের সাথে সমন্বয় করে পরিপূর্ণ একটি কমিটি গঠনের জন্য কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কাছে জোর দাবি জানান।

সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন কলেজ ছাত্রসংসদের ভিপি মোহাম্মদ ইউনুছ ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা।
এসময় উপস্থিত ছিলেন কায়সার হামিদ, এজেএম আবদুল মতিন, সৌমিন ঘোষ, মো. খালেকুজ্জামান, মো. তৌসিফ, মো. তুহিন, মো. শহীদুল আলম আরাফাত, মো. মহিদুল ইসলাম অনিক, তন্ময় দাশ, ওয়াহিদুর রহমান চৌধুরী, মো. জুনায়েদ আহমেদ, অন্তু দাশ প্রমুখ।-বিজ্ঞপ্তি

The Post Viewed By: 132 People

সম্পর্কিত পোস্ট