চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৯

২২ অক্টোবর, ২০১৯ | ১:৫০ অপরাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা, চবি

চবি ছাত্রকে প্রাণনাশের হুমকি দিলেন কটেজ মালিক

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) মহসিন কটেজের মালিক মোহাম্মদ শরীফুল ইসলামের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের প্রাণাশের হুমকির অভিযোগ উঠেছে। তবে বিষয়টি অস্বীকার করেছেন কটেজ মালিক শরীফুল। সোমবার (২১ অক্টোবর) রাত ১২টার দিকে অজ্ঞাত একটি নম্বর থেকে ফোন করে কটেজ ছেড়ে দিতে বলেছেন বলেও অভিযোগ করেছেন ওই কটেজে ভাড়ায় থাকা আরজু মিয়া, রাহাত নামে দুই শিক্ষার্থী।

 জানা গেছে, কটেজে বেশ কিছুদিন ধরে পানি সমস্যা দেখা দিলে তা সমাধান করতে শিক্ষার্থীরা বেশ কয়েকবার কটেজ মালিককে জানায়। কিন্তু কটেজ মালিক বিষয়টির সমাধান না করে উল্টো ছাত্রদের ভালো না লাগলে কটেজ ছেড়ে দিতে বলেন। এসব বিষয়ে প্রতিবাদ করলে মেসে বসবাসরত ছাত্রদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন তিনি। মুঠোফোনে হুমকির শিকার ওই কটেজের ছাত্র আরজু মিয়া পূর্বকোণকে বলেন, গতকাল রাত ১২ টার দিকে আমার মুঠোফোনে ফোন করে অজ্ঞাত এক নম্বর (০১৭৩৫৭৯৭৩২৮) থেকে বিভিন্ন অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন। এ সময় ওই ব্যক্তির পরিচয় জানতে চাইলে অপর প্রান্ত থেকে কটেজ থেকে চলে না গেলে হাত-পা ভেঙে দেয়ার হুমকি দেন। শুধু আমাকে নয় গতকাল রাতে আরো কয়েকজনকে ওই নাম্বার থেকে হুমকি দেওয়া হয়। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে কটেজ মালিক শরীফুল ইসলাম পূর্বকোণকে বলেন, আমি কাউকে হুমকি দিইনি। আমার কটেজে পানি সমস্যা ছিল। তা সমাধান করতে নতুন করে পাম্প বসানো হয়েছে। কিন্তু পানিতে আয়রন আছে বলে ছাত্ররা আমাকে জানায়। আমি তাদের মাস দুয়েক সময় লাগবে বললে তারা আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। তাছাড়া এক ছাত্র তিন মাস ধরে ভাড়া দিচ্ছে না। আমি তার কাছে ভাড়া চাইতে গেলে সে ভাড়া দিতে পারবে না বলে জানায়। আমি তাকে কটেজ ছেড়ে দিতে বললে সে আমার সাথে ঝগড়া শুরু করে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমার কটেজে কিছু সংস্কার কাজ করতে হবে, তাই তাদের আগামী মাস থেকে কটেজ ছেড়ে দিতে বলেছি। আমার কটেজ ছেড়ে দিতে বলা কি অপরাধ?’

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের পর্যাপ্ত আবাসন সুবিধা না থাকায় শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের আশেপাশে ব্যক্তি মালিকানাধীন বিভিন্ন কটেজ বা ছাত্রাবাসে থাকেন। তবে আশেপাশে ছাত্রাবাস থাকলেও এইসব ছাত্রাবাস পরিচালনায় নেই কোন তদারকি। ফলে এই মালিকদের হাতে জিম্মি হয়ে আছে ছাত্ররা।

 

পূর্বকোণ/এম

The Post Viewed By: 164 People

সম্পর্কিত পোস্ট