চট্টগ্রাম বুধবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৯

২২ অক্টোবর, ২০১৯ | ২:১৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা হ হাটহাজারী

মহানবীকে কটূক্তিকারীর শাস্তি দাবি হেফাজতে ইসলামের

ভোলার বোরহানউদ্দীনে মহানবীকে (দ.) নিয়ে কটুক্তিকারী ব্যাক্তি ও বিনা উস্কানিতে ৪ তৌহিদি জনতাকে গুলি করে হত্যাকারী এবং শতাধিক মুসল্লীকে আহতের জন্য দায়ী পুলিশ সদস্যদের কঠোর শাস্তি দাবি করেছে হেফাজতে ইসলাম। পাশাপাশি আল্লাহর ও নবী (দ.)কে কেউ কটুক্তি করলে তার জন্য কঠোর শাস্তির বিধান রেখে সংসদে আইন পাশের দাবিসহ আগামী পনের দিনের মধ্যে দোষীদের বিচার করা না হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। গতকাল সোমবার (২২ অক্টোবর) হাটহাজারীতে হেফাজতের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ দাবি করে হেফাজত। হেফাজত মহাসচিব আল্লামা জোনায়েদ বাবুনগরী সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি তুলে ধরেন। দাবি আদায়ে আজ মঙ্গলবার সারা দেশে জেলাভিত্তিক বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিলের ঘোষণা দেয়া হয়।

হেফাজতে ইসলাম বাংলেদেশের আয়োজনে প্রেস ব্রিফিংয়ে ভোলায় মহানবী (দ.) কে কটুক্তিকারীর শাস্তির দাবিতে প্রতিবাদ সভা, বিক্ষোভ মিছিলে বর্বরোচিত হামলা চালিয়ে চারজনকে নিহত ও শতাধিক তৌহিদি জনতাকে গুলি করে আহত করার প্রতিবাদ জানিয়ে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুুনগরী বলেন, আমরা এ ন্যক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। কটূক্তিকারী এবং চারজনকে গুলি করে হত্যাকারী পুলিশ সদস্যদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি। সংবাদ সম্মেলনে বাবুনগরী বলেন, নিহতদের প্রত্যেক পরিবারকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ এবং আহতদের চিকিৎসা খরচ সরকারকে বহন করার অনুরোধ করছি। তিনি বলেন, হেফাজতের দাবির মধ্যে তের দফায় স্পষ্ট আছে আল্লাহ ও নবী (দ.) কে কেউ কটুক্তি করলে তার শাস্তি প্রদান করতে হবে। তাই আগামী পনের দিনের মধ্যে দোষীদের বিচার করা না হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারিও দেন বাবুনগরী। হেফাজত মহাসচিব বলেন, জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুর সম্মান রক্ষার্থে আইন আছে কিন্তু কোটি কোটি ধর্মপ্রাণ মুসলিমের প্রিয় আল্লাহ ও নবী (দ.) কে কেউ কটূক্তি করলে তার বিচারের জন্য কোন আইন নেই। বাবুনগরী বলেন, কোটি কোটি ঈমানদার মুমিনদের কাছে আল্লাহ এবং রাসুল (স.) এর অবস্থান অনেক উচুতে, আল্লাহ এবং রাসুল (স.) এর শানের কেউ কটুক্তি করলে তার বিচারের জন্য সংসদে দ্রুত আইন পাশের জন্য আমরা দাবি জানাচ্ছি।

পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সাংবাদিকদের উপর হামলার ঘটনায় হেফাজতের পক্ষ থেকে ক্ষমা প্রার্থনা করে তিনি বলেন সাংবাদিকরা জাতির বিবেক। আমরা তাদের সম্মান করি। তারা কষ্ট করে তাদের দায়িত্ব পালন করেন। হতে পারে কোন তৃতীয় পক্ষ পাঞ্জাবি টুপি পড়ে হেফাজতের সুনাম ক্ষুন্ন করার চেষ্টা করছে। ভবিষ্যতে এ ব্যাপারে সজাগ দৃষ্টি রাখার অনুরোধ করেন হেফাজত নেতাদের প্রতি।

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের সাংগঠনিক সম্পাদক আল্লামা আজিজুল হক ইসলামাবাদীর সঞ্চালনায় এতে উপস্থিত ছিলেন নায়েবে আমির আল্লামা তাজুল ইসলাম, মাওলানা লোকমান হাকিম, মাওলানা সলিমুল্লাহ, মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা আশ্রাফ আলী নিজামপুরী, মাওলানা আনাছ মাদানী, মাওলানা জিয়াউল হাসান জিয়া, মাওলানা নাছির উদ্দিন মুনির, মাওলানা মীর ইদ্রিস প্রমুখ।

The Post Viewed By: 53 People

সম্পর্কিত পোস্ট